‘১৪ বছরের ক্যারিয়ারের প্রতিটি দিনই ছিল রোমাঞ্চকর’

ক্রীড়া প্রতিবেদক ক্রীড়া প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৫:৩০ পিএম, ১০ আগস্ট ২০২০

ঠিক ১৪ বছর আগের কথা। জিম্বাবুয়ের হারারেতে স্বাগতিকদের বিপক্ষে সিরিজের শেষ ম্যাচটি ছিল আনুষ্ঠানিকতার। কারণ, আগের দুই ম্যাচ জিতে ততক্ষণে সিরিজ হাতের মুঠোয় নিয়ে এসেছিল বাংলাদেশ। শেষ ম্যাচে তাই ওয়ানডে অভিষেক করানো হলো দুই তরুণ ক্রিকেটারকে।

২০০৬ সালের ৬ আগস্ট ছিল সেই ঐতিহাসিক দিনটি, যেদিন বাংলাদেশ ক্রিকেটের ইতিহাসে বীজ অঙ্কুরিত হয়েছিল দুই মহীরুহের। যারা সত্যিই পরবর্তীকালে, তথা গত ১৪ বছরে বাংলাদেশের ক্রিকেটকে নিয়ে গেছেন একটি সম্মানজনক স্থানে। সেই দুই মহীরুহের নাম সাকিব আল হাসান এবং মুশফিকুর রহীম।

তবে ওইদিনের আগেই টেস্ট খেলে ফেলায় আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ঠিক মুশফিকের অভিষেক বলা যাবে না ৬ আগস্টকে। অভিষেক কেবল সাকিব আল হাসানের। দেখতে দেখতে ১৪টি বছর পার হয়ে গেলো। সেই ১৪ বছরের ক্যারিয়ারকে একটি ভিডিও ডকুমেন্টারিতে এনে ভক্তদের সামনে উপস্থাপন করলেন সাকিব আল হাসান।

আজ নিজের ফেসবুক আইডিতে দেয়া এক বার্তায় ভক্ত-সমর্থকদের ধন্যবাদ জানান সাকিব। জানিয়ে দেন দেশবাসীর অকুণ্ঠ সমর্থন আর ভালোবাসার কারণেই এতদুর আসতে পেরেছেন তিনি। সেই বার্তার সঙ্গেই পোস্ট করে দিয়েছেন ভিডিওটি।

সাকিব ফেসবুকে লেখেন, ‘দেখতে দেখতে কেটে গিয়েছে অনেকগুলো দিন। বিগত ১৪ বছরের প্রত্যেকটি দিনই আমার কাছে রোমাঞ্চকর একেকটি অভিজ্ঞতা। এমন দুর্দান্ত এক পথচলাই আমাকে দাঁড় করিয়েছে আজকের জায়গায়। আপনাদের সবার অকুণ্ঠ সমর্থন আর ভালোবাসাই আমাকে জুগিয়েছে পথ চলার অনুপ্রেরণা। ক্যারিয়ারের ১৪তম বছর পূর্ণ করার দারুণ এই মুহূর্তে আমি ধন্যবাদ জানাতে চাই আপনাদের সবাইকে। আগামী দিনগুলোতে এগিয়ে যেতে চাই আরও নতুন উদ্যমের সাথে। ধন্যবাদ সবাইকে।’

বার্তাটির একটি ইংলিশ ভার্সন জুড়ে দিয়েছেন তিনি সাথে। ৪ মিনিট ১৫ সেকেন্ডের ওই ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে সাকিবের ক্যারিয়ারের শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত নানা মুহূর্তগুলো।

আইএইচএস/এমকেএইচ

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]