গোলের লড়াইয়েও মেসি বনাম রোনালদো

স্পোর্টস ডেস্ক
স্পোর্টস ডেস্ক
প্রকাশিত: ১০:২৪ এএম, ২৫ নভেম্বর ২০১৭ | আপডেট: ১০:৩৩ এএম, ২৫ নভেম্বর ২০১৭
গোলের লড়াইয়েও মেসি বনাম রোনালদো

আবারও সেই পুরনো প্রশ্ন, কে সেরা? মেসি না রোনালদো? দু’জনের শ্রেষ্ঠত্বের লড়াই যে কখনওই শেষ হওয়ার নয়! হবেও না। এক দশকেরও বেশি সময় ধরে দু’জন যেভাবে ফুটবল বিশ্বকে শাসন করে যাচ্ছেন, তাতে কেউ কাউকে যে ছাড়িয়ে গিয়েছেন, সেটা নিশ্চিত করা বলার উপায় নেই।

দু’জনের সেরার লড়াইটা ফুটবল মাঠে এবং মাঠের বাইরে- সব জায়গাতেই বিদ্যমান। মাঠের লড়াইয়ে নিত্য নতুন মাত্রা যোগ দু’জনের। এই যেমন গোল স্কোরিংয়ের লড়াই। এখানেও কেউ যেন কাউকে ছাড়িয়ে যাওয়ার নয়। চলছে সমানে সমান।

সর্বোচ্চ গোলদাতার লড়াইয়ে দু’জনের শ্রেষ্ঠত্ব সমান অংশে ভাগ হয়েছে শুক্রবারে। কেউ কারও চেয়ে সেরা নয়। কেউ কাউকে ছাড়িয়ে যাওয়ার মত নয়। বার্সা সুপার স্টার যখন ক্যারিয়ারে চতুর্থ সর্বোচ্চ গোলদাতার পুরস্কার, গোল্ডেন বুট জিতে নিলেন, তখন রোনালদোর সঙ্গে সমান কাতারেই বসে গেলেন তিনি।

মেসি-রোনালদো দু’জন যেভাবে সর্বোচ্চ গোল স্কোরিংয়ের রেকর্ড ভাগাভাগি করছেন, তেমন কৃতিত্ব ফুটবল ইতিহাসে আর কেউ কখনও দেখাতে পারবে কি না সন্দেহ। কারণ, ইউরোপিয়ান গোল্ডেন বুট তো আর শুধুমাত্র লা লিগার গোল হিসেবে দেয়া হয় না। দেয়া হয়, ইউরোপিয়ান প্রধান প্রধান লিগগুলোর মধ্যে সর্বোচ্চ গোলদাতাকে। এখন দেখার বিষয়, চারটি করে গোল্ডেন বুট জেতা মেসি-রোনালদোর মধ্যে কে আগে পঞ্চম শিরোপাটিও হাতে তুলে নেন?

তবে এখনই বোঝা যাচ্ছে, আগামী মৌসুমে হয়তো রিয়াল তারকা রোনালদো এই কৃতিত্ব গড়ার ক্ষেত্রে অনেক দুর পিছিয়ে। কারণ, চলতি মৌসুমে গোল করার ক্ষেত্রে রোনালদোর চেয়ে অনেক বেশি এগিয়ে মেসি। কারণ, লিগের ১২ ম্যাচ শেষে রোনালদোর ঝুলিতে মাত্র ১টি গোল। অন্যদিকে মেসি এখনও পর্যন্ত করেছেন ১২টি গোল। যদিও তিনিও পিছিয়ে রয়েছেন পিএসজির এডিনসন কাভানি এবং ইতালিয়ান ক্লাব ল্যাজিওর সিরো ইমোবিলে। এই দু’জনেরই স্ব স্ব লিগে গোল রয়েছে ১৫টি করে।

উরুগুইয়ান এডিনসন কাভানিই হয়তো এবারের মৌসুমে গোল্ডেন বুটের অধিকারী হতে পারেন। কারণ, ফরাসি লিগ ওয়ানে প্রতিপক্ষের গোলমুখে যেভাবে একের পর এক তিনি ফ্রি স্কোরিংয়ের সুযোগ পাচ্ছেন, তাতে অন্য যে কাউকে ছাড়িয়ে যাবেন তিনি।

গোলের হিসেবে আগের বছর পিএসজি এবং লিগ ওয়ানের অন্যক্লাবগুলোর মূল্য ছিল কম। মাত্র ১.৫ পয়েন্ট। এবার কিন্তু লা লিগাসহ অন্য দেশের ক্লাবগুলোর সমান মর্যাদায় উন্নীত হয়েছে ফ্রেঞ্চ লিগ ওয়ান। এবার লা লিগার সমান ২ পয়েন্ট মূল্য তাদের। গত মৌসুমে পিএসজির হয়ে কাভানি করেছিলেন ৩৫ গোল।

ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদো সর্বশেষ টানা দুই বছর ইউরোপে সর্বোচ্চ গোলদাতার পুরস্কার জিততে পারেননি। এর আগে ২০০৭/০৮ মৌসুমে ম্যানইউর হয়ে ৩১ গোল করে সেরা হয়েছিলেন তিনি। এরপর ২০১০-১১ মৌসুমে রিয়ালের হয়ে ৪০ গোল করে হয়েছিলেন সেরা। একইভাবে ২০১৩-১৪ সালে ৩১ গোল করে বার্সার লুইস সুয়ারেজের সঙ্গে যৌথভাবে হয়েছিলেন সর্বোচ্চ গোলদাতা। এরপর ২০১৪-১৫ মৌসুমে রিয়ালের হয়ে তিনি করেছিলেন ৪৮ গোল।

লিওনেল মেসি ২০০৯-১০ সালে ৩৪ গোল, ২০১১-১২ সালে ৫০ গোল, ২০১২-১৩ সালে ৪৬ গোল এবং ২০১৬-১৭ সালে ৩৭ গোল করে জিতেছেন চারটি ইউরোপিয়ান গোল্ডেন বুটের পুরস্কার।

সময়ের দুই সেরা ফুটবলার গোল স্কোরিংয়ে এমন দক্ষতা অর্জন করেছেন যে, এক দশক আগের সেরা সেরা ফুটবলারও এই ধরনের স্কোরিংয়ের কথা চিন্তাও করতে পারতো না। লা লিগায় এক মৌসুমে সর্বোচ্চ ৫০ গোল করার কৃতিত্ব দেখিয়েছেন মেসি। রোনালদোও কম যাননি। তিনিও এক মৌসুমে করেছিলেন ৪৮ গোল।

এবার কী গোল স্কোরিংয়ে তবে দু’জনের এক সঙ্গে রাজত্বের অবসান হতে চলেছে? বিশেষ করে রোনালদোর? গত মৌসুমে তিনি লা লিগায় করেছিলেন ২৫ গোল। চলতি মৌসুমে তো এখনও পর্যন্ত মাত্র ১টি। যদিও আগামী মে মাসে মৌসুম শেষ হওয়ার আগে আরও বেশ কয়েকটি মাস বাকি রয়ে গেছে। এখনও অনেক ম্যাচ হাতে রয়েছে রোনালদোর। হয়তো বা নতুন করে জ্বলে উঠে সবার ধারনাকে মিথ্যা প্রমাণ করে দেবেন তিনি।

আইএইচএস/জেআইএম