সেমিতে নিষিদ্ধ হতে পারেন নেইমার-কৌতিনহো-পগবা

স্পোর্টস ডেস্ক
স্পোর্টস ডেস্ক স্পোর্টস ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৭:৩৩ পিএম, ০৫ জুলাই ২০১৮

শুক্রবার থেকে শুরু হচ্ছে এবারের বিশ্বকাপের কোয়ার্টার ফাইনালের লড়াই। এই শেষ আট থেকে সেরা চার দল খেলবে সেমিফাইনাল বা শেষ চারে। কিন্তু দল হয়তো উঠবে, দলের সেরা তারকারা না-ও উঠতে পারেন সেমিফাইনালের মঞ্চে। কেন? নেইমার, কৌতিনহো, পল পগবার মতো তারকারা যে আছেন নিষেধাজ্ঞার শঙ্কায়!

গায়ের উপর চেপে গেছে হলুদ কার্ড। কোয়ার্টার ফাইনালে আর একটি হলুদ কার্ডই সর্বনাশ করে দিতে পারে নেইমার-পগবাদের। ফিফার নিয়ম অনুযায়ী, কোনো টুর্নামেন্টের সেমিফাইনালের আগে কোনো খেলোয়াড় যদি টানা দুই ম্যাচ হলুদ কার্ড পান, তবে পরের এক ম্যাচে নিষিদ্ধ হবেন।

তারকা হারানোর এই শঙ্কাতে আছে টুর্নামেন্টের হট ফেবারিট ব্রাজিলও। ব্রাজিলের তিন খেলোয়াড় ইতোমধ্যেই হলুদ কার্ড পেয়ে বসে আছেন। তাদের মধ্যে আছেন বড় দুই তারকা নেইমার আর ফিলিপ কৌতিনহো। কোয়ার্টারে তাদের প্রতিপক্ষ বেলজিয়াম। সেই দলে তো হলুদ কার্ড আছে পাঁচ খেলোয়াড়ের। যাদের মধ্যে অন্যতম কেভিন ডি ব্রুইন, থমাস মুনিয়ের আর ইয়ান ভারটোঙ্গেন।

কোয়ার্টারের আরেক ফেবারিট দল ফ্রান্সেরও চারজন পেয়ে আছেন হলুদ কার্ড। যাদের মধ্যে অন্যতম পল পগবা, বেঞ্জামিন পাভার্ড, অলিভার জিরু। শেষ আটে ফ্রান্সের প্রতিপক্ষ উরুগুয়ে দলে অবশ্য অত দুশ্চিন্তা নেই। হলুদ কার্ড কেবল একজনের, রদ্রিগো বেনটাকুর।

ইংল্যান্ড দলে জর্ডান হেন্ডারসন, হেসে লিংগার্ড, কাইল ওয়াকারসহ চারজন পেয়েছেন হলুদ কার্ড। প্রতিপক্ষ সুইডেনে পেয়েছেন ভিক্টর ক্লায়েসন আর আলবিন একদাল।

তবে টুর্নামেন্টের চতুর্থ কোয়ার্টার ফাইনাল ম্যাচটি আছে সবচেয়ে বড় ঝুঁকিতে। ক্রোয়েশিয়ার আট খেলোয়াড় আর রাশিয়ার পাঁচ খেলোয়াড় গত ম্যাচে পেয়েছেন হলুদ কার্ড। মারিও মানজুকিচ, ইভান রাকিতিচ, আন্তে রেবিচ আর সিমে ভ্রাসালজকোর মধ্যে কেউ একজন ছিটকে পড়লে বিপদে পড়তে পারে ক্রোয়েশিয়া। রাশিয়াও চিন্তায় আছে বড় দুই তারকা আলেজান্ডার গলোভিন আর ইলিয়া কোতপোভকে নিয়ে।

ইতোমধ্যেই দুই হলুদ কার্ড পেয়ে বেলজিয়ামের বিপক্ষে কোয়ার্টার ফাইনাল থেকে ছিটকে পড়েছেন ব্রাজিলের কাসিমিরো। এক ম্যাচ নিষিদ্ধ হয়েছেন সুইডেনের মিগুয়েল লাস্টিগ। দল সেমিতে উঠলে হয়তো তারা সুযোগ পাবেন। তবে বিপদ বেশি তাদের, যারা কোয়ার্টার ফাইনালে আরেকটি হলুদ কার্ড পাবেন। শেষ চারের গুরুত্বপূর্ণ লড়াইয়ে আর খেলা হবে না সেই হতভাগাদের।

এমএমআর/জেআইএম

আপনার মতামত লিখুন :