সর্বোচ্চ গোলদাতাদের শীর্ষ দশে বাংলাদেশের মাত্র দুই জন

বিশেষ সংবাদদাতা
বিশেষ সংবাদদাতা বিশেষ সংবাদদাতা
প্রকাশিত: ০৮:৩৮ পিএম, ১৩ জুলাই ২০১৯

বাংলাদেশ প্রিমিয়ার ফুটবল লিগের একাদশ আসরের ৮০ ভাগ খেলা শেষ। বাকি আর ৫ রাউন্ড। ফিকশ্চার অনুযায়ী ১ আগস্ট শেষ হওয়ার কথা লিগ। চ্যাম্পিয়ন হওয়ার লড়াইয়ে এগিয়ে আছে নবাগত দল বসুন্ধরা কিংস। নাটকীয় কিছু না ঘটলে অভিষেকেই শিরোপা জয়ের উৎসব করতে পারবে বসুন্ধরা গ্রুপের পৃষ্ঠপোষকতার দলটি। তাদের পরই আছে আবাহনী। ৬ বারের চ্যাম্পিয়নদের ট্রফি ধরে রাখার সম্ভাবনা দিনদিন কমছে বসুন্ধরা কিংস জয়রথে থাকায়।

কে চ্যাম্পিয়ন হচ্ছে আর কোন দুটি দল নেমে যাচ্ছে-এর বাইরে আরেকটি বিষয় নিয়ে আগ্রহ আছে ফুটবলমোদীদের। কে হচ্ছেন এবারের আসরের সর্বোচ্চ গোলদাতা? আগের আসরগুলোর মতো এবারও যে একজন বিদেশির হাতে উঠছে সর্বোচ্চ গোলদাতার পুরস্কার, তা অনেকটাই পরিস্কার। আবাহনীর নাইজেরিয়ান স্ট্রাইকার সানডে চিজোবা ১৭ গোল নিয়ে আছেন সবার ওপরে। সানডের পেছনে থাকা তারই সতীর্থ নাবিব নেওয়াজ জীবনের গোল ১৩ টি।

বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের শুরু থেকেই চলছে বিদেশিদের দাপট। আগের ১০ আসরে একবার মাত্র বাংলাদেশের কোনো ফুটবলার হতে পেরেছেন সর্বোচ্চ গোলদাতা। প্রিমিয়ার লিগের তৃতীয় আসরে আবাহনীর জার্সি গায়ে ২১ গোল করে গোল্ডেন বুট জিতেছিলেন এনামুল হক। একমাত্র বাংলাদেশি হিসেবে সর্বোচ্চ গোলদাতার পুরস্কার জেতা এনামুলের রয়েছে আরেকটি রেকর্ড। এক আসরে তার করা সবচেয়ে বেশি ২১ গোলের রেকর্ড স্পর্শ করতে পারেননি কেউ।

এবার কী ৯ বছর আগে করা এনামুলের রেকর্ড ভাঙ্গতে পারবেন কেউ? আবাহনীর সানডের সামনে সে সুযোগ আছে। ক্লাবটির খেলা আছে চারটি। এ চার ম্যাচ ৫ গোল করলেই এনামুলকে টপকে যাবেন সানডে। চারটি করলে স্পর্শ করবেন এনামুলের রেকর্ড। কিন্তু বাংলাদেশের কোনো ফুটবলারের সর্বোচ্চ গোলদাতা হওয়ার সম্ভাবনা কম। নাবিব নেওয়াজ জীবন এখনো ৪ গোলে পিছিয়ে সানডের চেয়ে। সানডেকে টপকিয়ে সবার ওপরে থাকতে পারলে জীবনই হবেন তার পূর্বসূরী এনামুলের পর সর্বোচ্চ গোলদাতা বাংলাদেশি ফুটবলার।

প্রিমিয়ার লিগে গোলাদাতাদের শীর্ষ ১০ জনের মধ্যে বাংলাদেশের আছেন মাত্র দুইজন আবাহনীর নাবিব নেওয়াজ জীবন ও বসুন্ধরা কিংসের মতিন মিয়া। তালিকা লম্বা করলে ১৫ জনের মধ্যে আছেন আরামবাগের জাহিদ হোসেন। ৮ গোল নিয়ে মতিন মিয়া ১০ নম্বরে এবং ৬ গোল নিয়ে জাহিদ ১৫ নম্বরে।

শীর্ষ ১০ গোলদাতার মধ্যে তিন নম্বরে বসুন্ধরা কিংসের ব্রাজিলিয়ার ফরোয়ার্ড মার্কোস ভিনিসিয়ুস (১২), শেখ রাসেল ক্রীড়া চক্রের নাইজেরিয়ান ফরোয়ার্ড রাফায়েল (১২), নোফেলের গিনির ফরোয়ার্ড ইসমাইল বাঙ্গুরা (১১), বসুন্ধরা কিংসের কোস্টারিকান ফুটবলার ড্যানিয়েল কলিন্দ্রেস (৯), সাইফ স্পোর্টিং ক্লাবের কলোম্বিয়ান ড্যানিয়েল কর্দোবা (৯), মুক্তিযোদ্ধার আইভরি কোস্টের ফরোয়ার্ড বাল্লো ফামোসা (৯), শেখ জামাল ধানমন্ডি ক্লাবের গাম্বিয়ান ফরোয়ার্ড সলোমন কিং কানফার্ম (৮) এবং বসুন্ধরা কিংসের মতিন মিয়া (৮)।

আরআই/এমএমআর/এমকেএইচ

আপনার মতামত লিখুন :