শিক্ষাপ্রযুক্তির উন্নয়নে ১৩ লাখ ডলার বিনিয়োগ পেল ‘শিখো’

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৫:০১ পিএম, ২৯ জুলাই ২০২১

জাতীয় পাঠ্যক্রম শিক্ষাকে অনলাইনে সহজলভ্য ও সাশ্রয়ী করে তুলতে কাজ করছে বাংলাদেশ ভিত্তিক শিক্ষাপ্রযুক্তি (এডটেক) স্টার্টআপ ‘শিখো’। এবার শিক্ষাপ্রযুক্তির উন্নয়নে ১৩ লাখ মার্কিন ডলার বৈশ্বিক বিনিয়োগ পেয়েছে প্রতিষ্ঠানটি।

এই অর্থ বিনিয়োগ করেছে সিলিকন ভ্যালি ভিত্তিক এডটেক বিনিয়োগ বিশেষজ্ঞ লার্ন ক্যাপিটালের সিড ফান্ড লার্নস্টার্ট এবং প্রাথমিক পর্যায়ের ভেঞ্চার ক্যাপিটাল ফার্ম অ্যাঙ্করলেস বাংলাদেশ। দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া কেন্দ্রিক ভেঞ্চার ক্যাপিটাল ফার্ম ওয়েভমেকার পার্টনার্সের দেশে এটিই প্রথম বিনিয়োগ।

শীর্ষস্থানীয় আমেরিকান এডটেক টিচেবল’র প্রতিষ্ঠাতা ও প্রধান নির্বাহী আঙ্কুর নাগপালও এ রাউন্ডের ফাইনান্সিং এ অংশগ্রহণ করেন। এখন বৈশ্বিক প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের সহায়তার মাধ্যমে ‘শিখো’ পণ্য ও সেবার মান উন্নয়নের পাশাপাশি উচ্চ দক্ষতাসম্পন্ন টিম সম্প্রসারণের পরিকল্পনা করছে।

শিখো’র সহ-প্রতিষ্ঠাতা শাহীর চৌধুরী (সিইও) বলেন, ‘দেশের ১৬ দশমিক ৫ কোটি মানুষের অর্ধেকই ২৫ বছরের নিচে হওয়া সত্ত্বেও শিক্ষার্থী ও তরুণদের জন্য দেশে মানসম্পন্ন শিক্ষার অভাব রয়েছে। বিশ্বমানের আধুনিক শিক্ষার অভিজ্ঞতায় শিক্ষার্থীদের সুযোগ গ্রহণ নিশ্চিত করতে ডিজিটাল লার্নিং ইকোসিস্টেম গড়ে তুলছে শিখো। আমাদের এই নিরলস চেষ্টা আগামী প্রজন্মের ওপর দীর্ঘস্থায়ী ইতিবাচক প্রভাব ফেলবে বলে আমরা মনে করি।’

শিখো’র আরেক সহ-প্রতিষ্ঠাতা ও সিওও জিশান জাকারিয়া বলেন, ‘শিক্ষা প্রদানের ক্ষেত্রে বিশ্বজুড়ে ব্যবহৃত একটি কার্যকর কৌশল হলো ‘মাস্টারি লার্নিং’। আমরাও উক্ত পদ্ধতি অনুসরণ করে টপিক ও সাব-টপিকে ভাগ করে কোর্সগুলো সাজিয়েছি। আমরা জানি, অভিভাবকরা তাদের সন্তানদের শিক্ষার মতো একটি গুরুত্বপূর্ণ ব্যাপারে আমাদের ওপর আস্থা রেখেছেন।’

‘শিখো’র প্রাথমিক পর্যায়ের বিনিয়োগদাতা সিলিকন ভ্যালিভিত্তিক প্রতিষ্ঠান ‘লার্নস্টার্ট এবং এর ম্যানেজিং পার্টনার ডন বার্টন বলেন, ‘আমরা সারা বিশ্বে প্রযুক্তির মাধ্যমে শিক্ষা ক্ষেত্রে পরিবর্তনের সম্ভাবনা প্রত্যক্ষ করেছি এবং বাংলাদেশের জন্য শিখোকে একইভাবে কাজ করতে দেখে আমরা আনন্দিত। শিখোর অত্যন্ত সুদক্ষ টিমকে সার্বিক সহায়তা প্রদানে আমরা আমাদের প্রতিশ্রুতি বজায় রাখব।’

বিনিয়োগকারী প্রতিষ্ঠান অ্যাঙ্করলেস বাংলাদেশের প্রধান নির্বাহী রাহাত আহমেদ বলেন, ‘ভারত ও ইন্দোনেশিয়ার তুলনায় বাংলাদেশের শিক্ষাপ্রযুক্তির উন্নয়নের অনেক সুযোগ রয়েছে। আমরা বিশ্বাস করি, শিখো টিম এই খাতে নেতৃত্ব প্রদানের মাধ্যমে উন্নতি সাধনে সক্ষম হবে।’

আইএইচআর/জেডএইচ/জেআইএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]