প্লে-স্টোরের যে ১০ অ্যাপ নামালেই বিপদ

তথ্যপ্রযুক্তি ডেস্ক
তথ্যপ্রযুক্তি ডেস্ক তথ্যপ্রযুক্তি ডেস্ক
প্রকাশিত: ০২:০৪ পিএম, ০৫ ডিসেম্বর ২০২১

গুগলের প্লে-স্টোরে রয়েছে লাখ লাখ অ্যাপ। অ্যান্ড্রয়েড ফোনের জন্য তৈরি সব অ্যাপের মধ্যে কিন্তু সব অ্যাপ মানসম্মত নয়। সাধারণত বড় বড় ডেভেলপারদের তৈরি অ্যাপগুলো মানের দিক থেকে ভালো হয়, আবার এগুলোর ওপর ভরসাও করা যায়।

গুগল প্লে-স্টোরে গুগলের তৈরি অসংখ্য অ্যাপ আছে। এগুলোর মধ্য থেকে কিছু অ্যাপ পাওয়া গেলো যা ভুয়া বলে দাবি করছেন প্রযুক্তি বিশেষজ্ঞরা। প্লে-স্টোরের বেশ কয়েকটি অ্যাপে আরও একবার দেখা মিলল বিপজ্জনক ম্যালওয়্যারের। সম্প্রতি গুগল প্লে-স্টোরের ১২টি জনপ্রিয় অ্যাপে খোঁজ মিলেছে একাধিক ম্যালওয়্যারের।

থ্রেড ফেব্রিক সংস্থার প্রতিবেদন অনুসারে, এ ভয়াবহ ম্যালওয়্যার ইউজারদের অজান্তেই তাদের ব্যাংক অ্যাকাউন্টের সব ডিটেলস চুরি করে নিতে পারে। এরই মধ্যে এই ১২টি অ্যাপকে প্রায় ৩ লাখ বার ডাউনলোড করা হয়েছে।

থ্রেড ফেব্রিকের প্রতিবেদনে আরও বলা হয়েছে, প্লে-স্টোরের এই ১২টি বিপজ্জনক অ্যাপে রয়েছে অ্যানাস্টা, এলিয়েন, হাইড্রা, এরম্যাক নামক ম্যালওয়্যার। এরা ইউজারদের অনলাইন ব্যাংকিংয়ের পাশাপাশি টু-স্টেপ অথেন্টিকেশনের কোডও চুরি করে নেয়। সেই সঙ্গে ব্যবহারকারীর ফোনে কি টাইপ করা হচ্ছে তার স্ক্রিনশটও নিতে পারে এই ম্যালওয়্যারগুলো।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, প্লে-স্টোরে ভালো রেটিং থাকার ফলেই একাধিক ইউজার নানা কাজে এ অ্যাপগুলো ব্যবহার করেন। একবার কোনো ডিভাইসে ডাউনলোড হলেই এই অ্যাপগুলো থার্ড পার্টি সোর্সের মাধ্যমে বিপজ্জনক কনটেন্ট স্মার্টফোনে ইনপুট করে দেয়।

জেনে নিন গুগল প্লে-স্টোরের কোন কোন জনপ্রিয় অ্যাপে ভয়ানক ম্যালওয়্যারের সন্ধান মিলেছে-
> কিউ আর স্ক্যানার
> কিউ আর স্ক্যানার ২০২১
> পিডিএফ ডকুমেন্ট স্ক্যানার
> টু ফ্যাক্টর অথেন্টিকেশন
> প্রোটেকশন গার্ড
>কিউ আর ক্রিয়েটর স্ক্যানার
> মাস্টার স্ক্যানার লাইভ
> ক্র্যাপ্টো ট্র্যাকার
> জিম এন্ড ফিটনেস ট্রেইনার
> পিডিএফ ডকুমেন্ট স্ক্যানার ফ্রি

তবে এই প্রথম নয়, এর আগেও প্লে-স্টোরের একাধিক অ্যাপে সন্ধান মিলেছে ট্রোজান ম্যালওয়্যারের। এমনও কিছু জনপ্রিয় অ্যাপে ভাইরাসের খোঁজ পাওয়া গেছে যাদের ডাউনলোড করেছে মিলিয়ন ইউজার।

গুগলের তরফ থেকে এই ধরণের বিপজ্জনক অ্যাপকে বারবার ব্যান করা হলেও, নানারকম রূপ নিয়ে নতুন অ্যাপের আড়ালে এরা ফিরে আসছে। ক্ষতি করছে ইউজারদের। আসলে একাধিক অ্যাপের মাধ্যমে ‘ট্রোজন’ জোকার ম্যালওয়্যার অজান্তেই আপনার স্মার্টফোনে প্রবেশ করছে বলে জানিয়েছেন সাইবার বিশেষজ্ঞরা। কখন পাসওয়ার্ড হাতিয়ে আপনার অ্যাকাউন্ট সাফ করে দেবে, আপনি ঘুণাক্ষরেও টের পাবেন না।

কেএসকে/জেআইএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]