নিখোঁজ ব্যবসায়ীর বস্তাবন্দি লাশ পাওয়া গেল খালে

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি নারায়ণগঞ্জ
প্রকাশিত: ০৮:১৩ পিএম, ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৯

নারায়ণগঞ্জের বন্দর উপজেলায় নিখোঁজের দুইদিন পর বালু ব্যবসায়ী খোকনের (৩৫) বস্তাবন্দি মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। শুক্রবার দুপুরে উপজেলার চাপাতলী পিঠাউলনির ব্রিজের নিচ থেকে বস্তাবন্দি ও ভাসমান অবস্থায় তার মরদেহ উদ্ধার করা হয়। এ ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে আল আমিন নামে একজনকে আটক করা হয়েছে।

নিহত বালু ব্যবসায়ী উপজেলার কুঁড়িপাড়া এলাকার সালাউদ্দিন সালু মাদবরের ছেলে। আটককৃত আল আমিনও একই এলাকার বাসিন্দা। তার বাবার নাম আওলাদ হোসেন।

এদিকে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে পুলিশের কাছে খোকন মিয়া হত্যার দায় স্বীকার করেছে আল আমিন। এ সময় তার স্বীকারোক্তি মোতাবেক হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত রক্তমাখা হাতুড়ি ও খোকনের মোবাইল সেট এবং নগদ টাকা উদ্ধার করে পুলিশ।

এলাকাবাসীরা জানান, নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন ২৭ নং ওয়ার্ড কুঁড়িপাড়া এলাকার বাসিন্দা বালু ব্যবসায়ী খোকনের সঙ্গে একই এলাকার আল আমিনের ব্যবসায়ীক দেনা-পাওনা নিয়ে বিরোধ চলছিল। সেই বিরোধের জের ধরে বুধবার আল আমিন ও তার সহযোগীরা খোকনকে হাতুড়ি দিয়ে পিটিয়ে হত্যা করে। পরে মরদেহ বস্তায় ভরে চাপাতলী ব্রিজের নিচে খালে ফেলে দেয়। দুইদিন পর শুক্রবার দুপুরে তার বস্তাবন্দি মরদেহ ভেসে উঠলে এলাকাবাসী থানায় জানায়। পরে পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে বস্তাবন্দী অবস্থায় খোকনের ভাসমান মরদেহ উদ্ধার করে। পরে এলাকাবাসী ও নিহতের পরিবার মৃতদেহটি শনাক্ত করেন। ময়নাতদন্তের জন্য পুলিশ তার মরদেহ নারায়ণগঞ্জ সদর হাসাপাতালের মর্গে পাঠিয়েছে।

বন্দর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) রফিকুল ইসলাম জানান, বালুব্যবসায়ী খোকন হত্যায় জড়িত থাকার অভিযোগে আল আমিনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। প্রাথমিক তদন্তে ধারণা করা হচ্ছে টাকা দেনা-পাওনা নিয়ে বিরোধের জেরে খোকনকে খুন করে আল আমিন। সে এই হত্যাকাণ্ড ঘটিয়েছে বলে স্বীকার করেছে। এ ঘটনায় আরও কয়েকজন জড়িত রয়েছে। মামলার তদন্তের স্বার্থে তাদের নাম প্রকাশ করা সম্ভব হচ্ছে না।

তিনি আরও বলেন, হত্যাকাণ্ডের সময় খোকনের কাছ থেকে ৭০ হাজার টাকা ও একটি মোবাইল ছিনিয়ে নেয় আল আমিন। সেই টাকার মধ্যে ৩০ হাজার ৫০০ টাকা ও হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত রক্তমাখা হাতুড়ি উদ্ধার করা হয়েছে।

মো. শাহাদাত হোসেন/এমএমজেড/এমকেএইচ