নিখোঁজের পর নতুন বেশে মাদরাসা থেকে কলেজছাত্র উদ্ধার

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি ভোলা
প্রকাশিত: ০৯:১০ এএম, ১১ অক্টোবর ২০১৯

নিখোঁজের পাঁচদিন পর ভোলার বোরহানউদ্দিন উপজেলার সরকারি আব্দুল জব্বার কলেজের দ্বাদশ শ্রেণির ছাত্র ফয়সালকে (১৭) উদ্ধার করেছে পুলিশ। এ ঘটনায় মো. হাসনাইন (২৫) নামে এক যুবককে আটক করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় উপজেলার জয়া এলাকার কারিয়ানা মাদরাসা থেকে ফয়সালকে উদ্ধার করা হয়।

ভোলার পুলিশ সুপার সরকার মোহাম্মদ কায়সার জানান, আটক যুবক জঙ্গি সংগঠনের সদস্য বলে ধারণা করা হচ্ছে। শুক্রবার তাকে ভোলা আদালতে হাজির করে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ১০ দিনের রিমান্ড আবেদন করা হবে। রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করলে সে জঙ্গি সংগঠনের সদস্য কি-না তা নিশ্চিত হওয়া যাবে।

পুলিশ ও নিখোঁজ ফয়সালের পরিবার সূত্রে জানা গেছে, ভোলার দৌলতখান উপজেলার দক্ষিণ জয়নগর গ্রামের মো. ফারুক আহম্মেদের ছেলে ফয়সাল গত রোববার (৬ অক্টোবর) সকালে বাড়ি থেকে কলেজের উদ্দেশ্যে বের হয়। এরপর আর তার কোনো খোঁজ মিলেনি।

ফয়সালের বাবা ফারুক আহম্মেদ বলেন, প্রতিদিনের মত ওই দিনও ফয়সাল সকালে কলেজে যায়। দুপুর ২টার মধ্যে বাড়িতে না আসলে তাকে আত্মীয় স্বজনদের বাড়িতে খুঁজতে থাকি। তাকে কোথায়ও খুঁজে পাওয়া যায়নি। এরপর ফয়সাল তার মাকে মোবাইল ফোনে বলে- ‘আমি আল্লাহর কাজে চলে আসছি, আমার জন্য নামাজ পড়ে দোয়া করবেন’। এ কথা বলে মোবাইল ফোনের লাইনটি কেটে দেয়। পরে তার মোবাইলটি বন্ধ পাওয়া যায়। তার কথা শুনে তার মা অজ্ঞান হয়ে যায়। পরে সোমবার (৭ অক্টোবর) বোরহানউদ্দিন থানায় অভিযোগ করি।

বোরহানউদ্দিন থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. এনামুল হক বলেন, নিখোঁজের বাবার অভিযোগের প্রেক্ষিতে আমরা প্রযুক্তির মাধ্যমে ফয়সালের মোবাইল ট্র্যাক করে হাসনাইনের সন্ধান পাই। পরে বৃহস্পতিবার বিকেলে বোরহানউদ্দিন উপজেলার মানিকা ব্যাপারী বাজার এলাকা থেকে হাসনাইনকে আটক করি। তার দেয়া তথ্য মতে সন্ধ্যায় একই উপজেলার জয়া এলাকার কারিয়ানা মাদরাসা থেকে ফয়সালকে উদ্ধার করা হয়।

ওসি বলেন, ফয়সালকে আমরা অন্য রকম অবস্থায় উদ্ধার করি। তার চলাফেরা, কথা ও পোশাক সম্পূর্ণ ব্যতিক্রম ছিল। তবে মামলার তদন্তের স্বার্থে অনেক তথ্য দেয়া সম্ভব নয়।

জুয়েল সাহা বিকাশ/আরএআর/এমএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]