সুদ ব্যবসায়ীর গোপন টর্চার সেল, প্রতিবাদ করায় ফাঁসানো হলো যুবককে

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি ভোলা
প্রকাশিত: ১০:৪৩ এএম, ১৭ নভেম্বর ২০১৯

ভোলার তজুমদ্দিনে সুদ ব্যবসায়ী কাছে ঋণ নেয়া মানুষজনের ওপর অত্যাচার ও নির্যাতনের প্রতিবাদ করায় মো. আয়ুব (২৭) নামে এক যুবককে পরিকল্পিতভাবে মাদক দিয়ে ফাঁসানোর অভিযোগ পাওয়া গেছে। উপজেলার শম্ভুপুর ইউনিয়নের ৯নং ওয়ার্ডের চর কোড়ালমারা গ্রামে এ ঘটনা ঘটেছে।

ভুক্তভোগী আয়ুব ওই গ্রামের আব্দুল জলিলের ছেলে। তিনি ভাড়ায় মোটরসাইকেল চালান।

এ ঘটনায় পুরো এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করছে। ঘটনার প্রতিবাদে এলাকাবাসী প্রায় প্রতিদিনই বিক্ষোভ সমাবেশ ও মানববন্ধন করে যাচ্ছে। অভিযুক্ত সুদ ব্যবসায়ী এমরান ও তার পরিবারের সদস্যদের আইনের আওতায় এনে দৃষ্টান্তরমূলক শাস্তির দাবিও জানিয়েছেন তারা।

Bhola

শনিবার বিকেলেও উপজেলার নতুন বাজার এলাকায় প্রায় ১০ হাজার মানুষ প্রতিবাদ সমাবেশ ও মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করে।

সমাবেশ থেকে বক্তারা জানান, লালমোহন উপজেলার কালমা ইউনিয়নের ৯নং ওয়ার্ডের মো. শাহাবুদ্দিন ও তার ছেলে এমরানসহ তাদের পুরো পরিবার কালমা ইউনিয়সহ ও পার্শ্ববর্তী শম্ভুপুর ইউনিয়নের বিভিন্ন স্থানে ব্যবসায়ী ও স্থানীয়দের দুর্বলতার সুযোগ নিয়ে চড়া সুদে অর্থলগ্নি করে আসছিল। কেউ যদি সময়মতো সুদের টাকা দিতে না পারে তাহলে শাহাবুদ্দিন ও তার ছেলে এমরান ক্যাডার বাহিনী দিয়ে ওই ব্যক্তিকে জোর করে তুলে এনে গোপন টর্চার সেলে নিয়ে অত্যাচার ও নির্যাতন করত। গত ২৭ অক্টোবর আয়ুব তার চাচাতো ভাই ও নতুন বাজারের ব্যবসায়ী কামালের ওপর এমরানদের নির্যাতনের প্রতিবাদ করায় স্থানীয় এক ছাত্রকে দিয়ে তার মোটরসাইকেলে ১৫ গ্রাম গাঁজা রেখে পুলিশকে খবর দেয়। পরিকল্পিতভাবে তাকে ফাঁসিয়ে পুলিশের কাছে তুলে দেয় এমরান ও তার বাবা শাহাবুদ্দিন।

তবে অভিযুক্ত এমরান ও তার পিতা সাহাবুদ্দিন জানান, তারা সুদের ব্যবসা করেন। কিন্তু আয়ুবকে তারা কোনোভাবেই ফাঁসাননি।

তজুমদ্দিন থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. ফারুক আহমেদ জানান, আমরা পুরো ঘটনাটি তদন্ত করছি। যদি কোনো ব্যক্তিকে ফাঁসানো হয়। তবে দ্রুতই এ ঘটনার রহস্য উদঘাটিত হবে এবং জড়িতদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।

জুয়েল সাহা বিকাশ/এমবিআর/পিআর