চিরনিদ্রায় শায়িত হলেন ভাষাসৈনিক রওশন আরা বাচ্চু

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি মৌলভীবাজার
প্রকাশিত: ০৩:৩৭ পিএম, ০৪ ডিসেম্বর ২০১৯

মৌলভীবাজারের কুলাউড়ায় চিরনিদ্রায় শায়িত হলেন ভাষাসৈনিক রওশন আরা বাচ্চু। বুধবার সকাল ১১টায় উপজেলার উছলাপাড়া গ্রামে পৈতৃক বাড়ির পারিবারিক কবরস্থানে তান দাফন সম্পন্ন হয়।

এর আগে সকাল সাড়ে ১০টায় বাড়ির পার্শ্ববর্তী কুলাউড়া নবীন চন্দ্র মডেল সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। জানাজার আগে তার মরদেহে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান মৌলভীবাজারের জেলা প্রশাসক নাজিয়া শিরিন, পুলিশ সুপার ফারুক আহমদ, ভাষা রক্ষা সংগ্রাম পরিষদের সাধারণ সম্পাদক ডা. এম এ মুক্তাদির প্রমুখ। এছাড়া স্থানীয় জনপ্রতিনিধি, রাজনৈতিক ও সামাজিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দসহ কুলাউড়ার সর্বস্তরের মানুষের ভালোবাসায় সিক্ত হন মহীয়সী এই নারী।

ভাষাসৈনিক রওশন আরা বাচ্চু গত ৩ ডিসেম্বর মঙ্গলবার ভোররাতে রাজধানীর অ্যাপোলো হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান। মৃত্যুকালে চার মেয়ে ও আত্মীয় স্বজন ও অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে গেছেন। তিনি ঢাকার পশ্চিম মনিপুর এলাকায় পরিবারের সঙ্গে বসবাস করতেন।

rawshon

ঢাকায় জানাজা, শ্রদ্ধা জ্ঞাপন ও আনুষ্ঠিকতা শেষে বুধবার ভোর ৪টায় তার মরদেহ কুলাউড়াস্থ উছলাপাড়া গ্রামে পৈতৃক বাড়িতে নিয়ে আসা হয়।

রওশন আরা বাচ্চু ১৯৩২ সালের ১৭ ডিসেম্বর মৌলভীবাজারের কুলাউড়া উপজেলার উছলাপাড়া গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। তার বাবা এ এম আশ্রাফ আলী, মা মনিরুন্নেসা খাতুন। রওশন আরা বাচ্চু ১৯৪৭ সালে পিরোজপুর গার্লস স্কুল থেকে ম্যাট্রিক পাস করেন। এরপর বরিশাল বিএম কলেজ থেকে ১৯৪৯ সালে ইন্টারমিডিয়েট পাস করেন। ১৯৪৯ সালে ভর্তি হন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের দর্শন বিভাগে। ১৯৫৩ সালে অনার্স পাস করেন। রওশন আরা বাচ্চু ‘গণতান্ত্রিক প্রগ্রেসিভ ফ্রন্ট’-এ যোগ দিয়ে ছাত্ররাজনীতি শুরু করেন। তিনি সলিমুল্লাহ মুসলিম হল এবং উইমেন স্টুডেন্টস রেসিডেন্সের সদস্য নির্বাচিত হন। রওশন আরা বাচ্চু সর্বশেষ বিএড কলেজে শিক্ষকতা করেছেন। অবসর নেন ২০০২ সালে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের দিনগুলোতেই রওশন আরা গণতান্ত্রিক প্রোগ্রেসিভ ফ্রন্টে যোগ দিয়ে ছাত্র রাজনীতিতে জড়িয়ে পড়েন।

রিপন দে/এমবিআর/পিআর