জীবনের নিরাপত্তা চাইলেন এমপি নাজিম উদ্দিন

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি
প্রকাশিত: ০৩:৩৯ এএম, ০৮ মার্চ ২০২১

ময়মনসিংহ-৩ (গৌরীপুর) আসনের সংসদ সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা নাজিম উদ্দিন আহমেদ সংবাদ সম্মেলন করে নিজের জীবনের নিরাপত্তা চেয়েছেন। এর আগে গত ৩০ জানুয়ারি নিরাপত্তা চেয়ে থানায় সাধারণ ডায়েরি করেছিলেন তিনি।

রোববার (৭ মার্চ) সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে ময়মনসিংহ প্রেসক্লাব মিলনায়তনে সংবাদ সম্মেলন করে নিজের নিরাপত্তা নিশ্চিতের দাবি জানান তিনি।

সংবাদ সম্মেলনে এমপি নাজিম উদ্দিন আহমেদ বলেন, রোববার দুপুর ১২টার দিকে গৌরীপুরে ৭ মার্চের সরকারি ও দলীয় কর্মসূচিতে যোগ দিতে যাওয়ার পথে বাসস্ট্যান্ড এলাকায় পৌঁছলে গৌরীপুরের পৌর মেয়র সৈয়দ রফিকুল ইসলামের নেতৃত্বে একদল সশস্ত্র সন্ত্রাসী আমার গাড়িবহরে হামলা চালায়। এতে আমার সঙ্গে থাকা দলীয় নেতারা আহত হয়। খবর পেয়ে পুলিশ এসে আমাকে উদ্ধার করে উপজেলা পরিষদে নিয়ে যায়।

তিনি অভিযোগ করেন, মেয়র সৈয়দ রফিকুল ইসলাম নির্বাচিত হওয়ার পর থেকেই গৌরীপুরে সন্ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করেছে। গত ৩০ জানুয়ারি মুঠোফোনে মেয়র আমাকে এবং আমার ছেলেকে প্রাণনাশের হুমকি দেয়। ওই দিন রাতেই কোতোয়ালি মডেল থানায় সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেছি। তা আলোর মুখ দেখেনি। মেয়রের বিরুদ্ধে সুনির্দিষ্ট হত্যা মামলা থাকার পরও তাকে গ্রেফতার করা হচ্ছে না।

পুলিশ প্রশাসনের বিরুদ্ধে অভিযোগ করে এমপি বলেন, কোনো অদৃশ্য স্বার্থের কারণেই পুলিশকে অভিযোগ দেয়ার পরও মেয়র রফিক এবং তার সন্ত্রাসী বাহিনীর বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে না। এসময় তিনি এবং তার ছেলে তানজির আহমেদ রাজিবের জীবনের নিরাপত্তা নিশ্চিতের দাবি জানান তিনি।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন গৌরীপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ডা. হেলাল উদ্দিন, তথ্য ও গবষণা সম্পাদক অ্যাডভোকেট জসীম উদ্দিন, অচিন্তপুর ইউপি চেয়ারম্যান শহিদুল ইসলাম, পরাজিত নৌকার প্রতীকের মেয়র প্রার্থী শফিকুল ইসলাম হবি প্রমূখ।

এর আগে রোববার বিকেলে নিজ বাসভবনে সংবাদ সম্মেলন করেন গৌরীপুরের পৌর মেয়র রফিকুল ইসলাম। তিনি বলেন, ৭ মার্চে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে নিজ কার্যালয়ে ফেরার পথে স্থানীয় সংসদ সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা নাজিম উদ্দিনের ছেলে তানজির আহমেদ রাজিবের নেতৃত্বে কয়েকজন তাকে লক্ষ্য করে গুলিবর্ষণ করে। তখন কোনোমতে আমি প্রাণে বাঁচলেও আমার কর্মী গৌরীপুর ৪ নম্বর ওয়ার্ড যুবলীগের সভাপতি দেলোয়ার হোসেনসহ দু’জন আহত হন।

গৌরীপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আব্দুল হালিম সিদ্দিকী বলেন, আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে দু’পক্ষের মধ্যে ইটপাটকেল নিক্ষেপ হয়েছে। পরে পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে এনেছে। তবে গুলির ঘটনা ঘটেনি। সার্বিক বিষয় তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

মঞ্জুরুল ইসলাম/এএএইচ

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]