বাজার ইজারা নিয়ে মুখোমুখি বন বিভাগ-পৌরসভা

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি গাজীপুর
প্রকাশিত: ০১:৩৬ পিএম, ০৫ মে ২০২১

গাজীপুরে বন বিভাগের জমিতে অবৈধভাবে গড়ে ওঠা একটি বাজার ইজারা দিয়েছেন পৌর মেয়র। সরকারি পূর্বানুমোদন ছাড়া বন বিভাগের জমিতে ইজারা দেয়ার ঘটনায় বন বিভাগের কর্মকর্তারা তাদের জমিতে দেয়া বাজারের ইজারা বাতিলের জন্য গত ২৯ এপ্রিল পৌর মেয়রকে চিঠি দিয়েছেন। এ বাজারটির ইজারা নিয়ে বন বিভাগ ও কালিয়াকৈর পৌরসভা মুখোমুখি অবস্থানে রয়েছে।

এলাকাবাসী জানায়, গাজীপুরের কালিয়াকৈর পৌরসভার ৮নং ওয়ার্ডের পূর্ব চান্দরা মৌজায় রেললাইন সংলগ্ন এলাকায় বন বিভাগের কয়েক একর জমিতে অবৈধভাবে বিভিন্ন দোকানপাট ও হাট-বাজার গড়ে উঠেছে। স্থানীয় প্রভাবশালী ব্যক্তিরা ওইসব দোকানপাট থেকে প্রতিদিন বিপুল পরিমাণ চাঁদা তুলতো। কালিয়াকৈর পৌরসভা ওই ওয়ার্ডের বাজারটি স্থানীয় হারুন অর রশিদ নামে একজনের কাছে গত ১৩ এপ্রিল দশ লাখ টাকায় ইজারা প্রদান করেন।

ইজারা প্রাপ্ত হয়ে ওই ইজারাদার বাজারের প্রতিটি দোকান থেকে ৫০ টাকা করে ইজারার টাকা ওঠাতে থাকেন। পরে স্থানীয় প্রভাবশালী ব্যক্তিরা ইজারাদারের লোকজনকে ইজারার টাকা ওঠাতে বাধা দেয়। স্থানীয়রা ইজারার বিষয়টি ওই এলাকার বন বিভাগের কর্মকর্তাদের জানায়।

খবর পেয়ে কালিয়াকৈর রেঞ্জের কর্মকর্তারা গত রোববার ওই বাজারে গিয়ে ইজারাদার কর্তৃক লাগানো ইজারার টোল চার্টটি খুলে নিয়ে যান।

ওই বাজারের লোকজন জানান, বন বিভাগের জমিতে গজারী গাছের নিচে স্থানীয়রা এলাকার নানা প্রকার সবজি, মৌসুমী ফলমূল এবং নিত্য ব্যবহার্য পণ্য বিক্রি করে আসছে দীর্ঘদিন ধরে। এতে ওই এলাকা ছাড়াও আশপাশের লোকজন বাজারটিতে আসতে থাকে। ফলে ওখানে বেশ কিছু দোকানপাট গড়ে উঠেছে। সম্প্রতি কালিয়াকৈর পৌরসভা এ বাজারটি ইজারা দিয়েছে। এতে ইজারাদারের লোকজন প্রতি দোকান থেকে ৫০ টাকা করে নিচ্ছে।

ঢাকা বন বিভাগের কালিয়াকৈর রেঞ্জ কর্মকর্তা মো. আশরাফুল আলম জানান, সরকারি বনভূমিতে যে কোনো প্রকার কার্যক্রমের জন্য বন বিভাগ তথা সরকারের পূর্বানুমতি গ্রহণের বধ্যবাধকতা রয়েছে। অথচ কালিয়াকৈর পৌরসভা কোনো প্রকার নিয়মনীতির তোয়াক্কা না করে ওই বাজারটির ইজারা প্রদান করেছে। বন বিভাগের জমিতে অবৈধভাবে গড়ে ওঠা বাজারটি উচ্ছেদ প্রক্রিয়াধীন আছে। তাই ওই বাজারটির ইজারা বাতিলের জন্য পৌর মেয়রকে অনুরোধ জানিয়ে চিঠি দেয়া হয়েছে। শিগগির ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের নির্দেশে উচ্ছেদ অভিযান চালানো হবে।

এ ব্যাপারে পৌর মেয়র মো. মজিবুর রহমান জানান, পৌর এলাকায় যেকোনো প্রকার জমিতে হাটবাজার বসলে তা ইজারা দেয়ার এখতিয়ার পৌরসভার রয়েছে। আইন মেনেই বাজারটি ইজারা দেয়া হয়েছে। বন বিভাগের জমিতে বাজার না বসলে ইজারাও নেয়া হবে না। দীর্ঘ সময় ওই বাজারটিতে স্থানীয় প্রভাবশালীরা টাকা উঠিয়ে নিজেরা ভোগ করেছে। এতে সরকার রাজস্ব থেকে বঞ্চিত ছিল। তাই এ বছর বাজারটি ইজারা দেয়া হয়েছে।

আমিনুল ইসলাম/এফএ/এমকেএইচ

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]