ইউপি নির্বাচন: ফেনীতে আ’লীগের তৃণমূল ভোটে এগিয়ে পুরোনোরা

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি ফেনী
প্রকাশিত: ০৯:০৮ এএম, ২৮ অক্টোবর ২০২১

ফেনী সদর উপজেলার ১২টি ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে নৌকা প্রতীকের প্রার্থীদের প্রস্তাবনা পাঠানোর জন্য আওয়ামী লীগের তৃণমূল নেতাদের মধ্যে ভোটাভোটি অনুষ্ঠিত হয়েছে।

বুধবার (২৭ অক্টোবর) রাতে ভোটাভোটি শেষে দলীয় নেতাকর্মীদের সামনে ফলাফল ঘোষণা করেন ফেনী জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নিজাম উদ্দিন হাজারী।

ফলাফল ঘোষণার আগে সংক্ষিপ্ত বক্তব্য দেন- ফেনী জেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি অ্যাডভোকেট হাফেজ আহাম্মদ, সিনিয়র সহ সভাপতি ও জেলা আওয়ামী লীগের দলীয় নির্বাচন বোর্ডের আহ্বায়ক মাস্টার আলী হায়দার।

তৃণমূল আওয়ামী লীগের ফলাফল বিশ্লেষণে দেখা যায়, ১২ ইউনিয়নের ১০টি ইউনিয়নে বর্তমান চেয়ারম্যানরাই ভোটাভোটিতে এগিয়ে আছেন।

এরা হলেন- পাঁচগাছিয়া ইউনিয়নে জানে আলম ভূঞা, ধর্মপুর ইউনিয়নে শাহাদাত হোসেন সাকা, কাজিরবাগে কাজী বুলবুল আহমেদ সোহাগ, বালিগাঁওতে মোজাম্মেল হক বাহার, ধলিয়ায় আনোয়ার আহাম্মদ মুন্সি, লেমুয়ায় মোশারফ হোসেন নাছিম, ছনুয়ায় করিম উল্যাহ বিকম, মোটবীতে হারুন অর রশীদ এলএলবি, ফাজিলপুরে মজিবুল হক রিপন ও ফরহাদনগরে মোশাররফ হোসেন টিপু।

এদিকে ফেনী সদর উপজেলার কালিদহ ইউনিয়নে বর্তমান চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক দিদারুল ইসলাম দিদারকে হারিয়ে বিজয়ী হয়েছেন জেলা যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক দেলোয়ার হোসেন ডালিম। তিনি তৃণমূলের ২০ ভোটের মধ্যে ১৪ পেয়েছেন। অন্যদিকে বর্তমান চেয়ারম্যান দিদারুল ইসলাম দিদার মাত্র ৪ ভোট পেয়েছেন।

এছাড়া ফেনী সদর উপজেলা সর্ববৃহৎ পাঁছগাছিয়া ইউনিয়ন। ২২টি গ্রাম নিয়ে গঠিত এ ইউনিয়নের বর্তমান চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আনোয়ার হোসেন মানিক দুবার ইউপি চেয়ারম্যান থাকার পরও তৃণমূলে এসে ধরা খেয়েছেন। এ ইউনিয়নে জেলা পরিষদ সদস্য মাহবুবুল হক লিটন ২০ ভোটের মধ্যে ১৩ ভোট পেয়েছেন। এর বিপরীতে মানিক পেয়েছেন মাত্র ৪ ভোট।

বিস্তারিত ফলাফলে দেখা যায়, ফেনী সদর উপজেলার শর্শদী ইউনিয়নে ৭ ভোট পেয়েছেন বর্তমান চেয়ারম্যান জানে আলম ভূঞা, তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আবুল হাসেম ৬ ভোট, আবদুল আহাদ নয়ন ৫ ও সফিকুর রহমান পাটোয়ারী পেয়েছেন ২ ভোট।

পাঁচগাছিয়া ইউনিয়নে জেলা পরিষদ সদস্য মাহবুবুল হক লিটন সর্বোচ্চ ১৩ ভোট পেয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বর্তমান চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেন মানিক ৪ ভোট, রাশেদুল ইসলাম, মহিউদ্দিন ও আবু সুফিয়ান পেয়েছেন ১ ভোট করে। ধর্মপুর ইউনিয়নে সর্বোচ্চ ১০ ভোট পেয়েছেন বর্তমান চেয়ারম্যান শাহাদাত হোসেন সাকা। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী এম জাফর উল্লাহ ৭ ভোট, ১ ভোট করে পেয়েছেন ফজলুল হক তালুকদার, মফিজ উদ্দিন মুন্না ও আবু বকর ছিদ্দিক সানি।

কাজিরবাগ ইউনিয়নে সর্বাধিক ৯ ভোট পেয়েছেন বর্তমান চেয়ারম্যান বুলবুল আহমেদ সোহাগ। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আবদুর রহমান রউপ ৬ ভোট ও লোকমান হোসেন ৫ ভোট পেয়েছেন।

কালিদহ ইউনিয়নে সর্বাধিক ১৪ ভোট পেয়েছেন জেলা যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক দেলোয়ার হোসেন ডালিম। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বর্তমান চেয়ারম্যান দিদারুল ইসলাম ৬ ভোট, ১ ভোট করে পেয়েছেন মশিউর রহমান ও কামাল মোর্শেদ।

বালিগাঁও ইউনিয়নে এককভাবে বর্তমান চেয়ারম্যান মোজাম্মেল হক বাহারকে বিনাপ্রতিদ্বন্দ্বিতায় তৃণমূলে বিজয়ী ঘোষণা করা হয়।

ধলিয়া ইউনিয়নে বর্তমান চেয়ারম্যান আনোয়ার আহম্মদ মুন্সি সর্বাধিক ১০ ভোট পেয়েছেন। বাকী প্রার্থী মহিউদ্দিন, নুরুল আফছার সবুজ ও জোবায়ের শাহ রিমন পেয়েছেন ১ ভোট করে।

লেমুয়া ইউনিয়নে বর্তমান চেয়ারম্যান মোশাররফ উদ্দিন নাছিম সর্বাধিক ১০ ভোট পেয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী কামরুজ্জামান তালুকদার ৭ ভোট ও শিপন, দাউদ এবং নুরুল আমিন বাটলার ১ ভোট করে পেয়েছেন।

ছনুয়া ইউনিয়নের বর্তমান চেয়ারম্যান করিম উল্যাহ বিকম সর্বোচ্চ ১৭ ভোট পেয়েছেন। তবে জমির উদ্দিন পেয়েছেন ১ ভোট।

মোটবী ইউনিয়নে সর্বোচ্চ ৮ ভোট পেয়েছেন বর্তমান চেয়ারম্যান হারুন অর রশীদ এলএলবি। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী রহিম উদ্দিন ৬ ভোট, মজিবুল হক সেলিম ৫ ভোট ও বেলাল হোসেন ১ ভোট পেয়েছেন।

ফাজিলপুর ইউনিয়নের বর্তমান চেয়ারম্যান মজিবুল হক রিপন সর্বাধিক ১১ ভোট পেয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী সদর উপজেলা যুবলীগের সভাপতি নুরুল আফছার আপন ৮ ভোট ও শাহ আলম পেয়েছেন ১ ভোট।

ফরহাদনগর ইউনিয়নে সর্বাধিক ১৫ ভোট পেয়েছেন বর্তমান চেয়ারম্যান মোশাররফ হোসেন টিপু। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আলাউদ্দিন জনি ৪ ভোট ও আলাউদ্দিন পেয়েছেন ১ ভোট।

নির্বাচন বোর্ডের সদস্য সচিব একে শহীদ উল্যাহ খোন্দকার বলেন, ফেনী সদর উপজেলার ১২টি ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে নৌকা প্রতীকে প্রার্থী হতে ৪৩ জন দলীয় মনোনয়ন বোর্ডের নিকট আবেদন করেছেন। তাদের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে আওয়ামী লীগের স্থানীয় সরকার মনোনয়ন বোর্ডের নিকট প্রস্তাবনা পাঠানোর জন্য বুধবার বিকেল ৩টা থেকে রাত পর্যন্ত তৃণমূল নেতাদের মাধ্যে ভোটাভোটি অনুষ্ঠিত হয়।

তিনি আরও বলেন, প্রতিটি ইউনিয়নে নৌকা প্রতীকে নির্বাচনের জন্য আবেদনকারীদের স্থানীয় ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক গোপনে ভোট দেন। ২০টি ভোটের মাধ্যে সর্বাধিক ভোটে এগিয়ে থাকা ব্যক্তির নামে নৌকা প্রতীক বরাদ্দের জন্য কেন্দ্রের কাছে প্রস্তাবনা পাঠাবে জেলা আওয়ামী লীগ।

নুর উল্লাহ কায়সার/এসজে/এএসএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]