৩০ ডিসেম্বরেই জেএসসি-জেডিসি পরীক্ষার ফল

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৬:৪৮ এএম, ১৮ ডিসেম্বর ২০১৭
ফাইল ছবি

জুনিয়র স্কুল সার্টিফিকেট (জেএসসি) ও জুনিয়র দাখিল সার্টিফিকেট (জেডিসি) পরীক্ষার ফল আগামী ৩০ ডিসেম্বর প্রকাশ করা হবে। পাঠ্যপুস্তক উৎসবে সামনে রেখে ফলাফল ঘোষণার জন্য এ দিন নির্ধারণ করা হয়েছে।

সোমবার ডেমরা মাতুয়াল আনন্দ প্রিন্টিং প্রেস পরিদর্শন শেষে শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ আনুষ্ঠানিকভাবে ফল প্রকাশের এ সময় ঘোষণা করেন। তিনি বলেন, আগামী ৩০ ডিসেম্বর সারাদেশে একযোগে জেএসসি-জেডিসি পরীক্ষার ফল প্রকাশ করা হবে।

এর আগে চলতি বছরের ৩০ ডিসেম্বর জেএসসি-জেডিসি পরীক্ষার ফল প্রকাশ হবে -শিক্ষা মন্ত্রণালয় সূত্রে এমন তথ্য জানানো হয়েছিল। তবে আজ মন্ত্রী নিজেই এ তথ্য নিশ্চিত করলেন।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, সেদিন (৩০ ডিসেম্বর) প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ২০১৮ শিক্ষাবর্ষের পাঠ্যপুস্তক উদ্ভোধন করবেন। পহেলা জানুয়ারিতে সারাদেশে পাঠ্যপুস্তক উৎসব পালিত হবে। সেদিন সকল শিক্ষার্থীদের হাতে নতুন পাঠ্যপুস্তক তুলে দেয়া হবে।

নাহিদ বলেন, এবার আজিমপুর গর্ভমেন্ট গার্লস স্কুল অ্যান্ড কলেজে পাঠ্যপুস্তক উৎসবের আয়োজন করা হবে। সেখানে শিক্ষার্থীরা উপস্থিত হয়ে নতুন পাঠ্যবই নিয়ে বাড়ি ফিরবে। নির্ধারিত সময়ে বিনামূল্যের বই শিক্ষার্থীদের হাতে পৌঁছে দেয়া আমাদের কাছে একটি বড় চ্যালেঞ্জ।

‘সেটিকে সামনে রেখে আমরা পাঠ্যবই তৈরির কাজ শুরু করি। ২০১৮ শিক্ষাবর্ষের জন্য ৩৫ কোটি ৪২ লাখ ১৬২টি পাঠ্যপুস্তক ছাপার কাজ শুরু করা হয়। ইতোমধ্যে সারাদেশে ৯৭ শতাংশ বই পৌঁছে গেছে। চলতি সপ্তাহের মধ্যে বাকি বই পৌঁছে যাবে।’ -বলেন শিক্ষামন্ত্রী।

তিনি বলেন, শিক্ষার্থীদের বইয়ের বোঝা কমানো হচ্ছে। ইতোমধ্যে আমরা সে বিষয়ে কাজ শুরু করেছি। এ বছর নবন-দশম শ্রেণিতে ১২টি সুখপাঠ্য বই দেয়া হবে। সম্পূর্ণ কালারফুল ও উন্নত মানের কাগজে এসব বই তৈরি করা হয়েছে। সেসব বইয়ের ছবি দেখে ও পড়ে শিক্ষার্থীরা আনন্দ পাবে।

এ সময় শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক শাখার অতিরিক্ত সচিব মুফাদ আহমেদ চৌধুরী, জাতীয় পাঠ্যপুস্তক ও পাঠ্যক্রম বোর্ডের চেয়ারম্যান অধ্যাপক নারয়ন চন্দ্র সাহা ও মন্ত্রণালয়ের একাধিক কর্মকর্তা উপস্থিত ছিলেন।

উল্লেখ্য, এবার অষ্টম শ্রেণির শিক্ষার্থীদের সমাপনী পরীক্ষা জুনিয়র স্কুল সার্টিফিকেট (জেএসসি) ও জুনিয়র দাখিল সার্টিফিকেট (জেডিসি) পরীক্ষায় মোট ২৪ লাখ ৬৮ হাজার ৮২০ জন শিক্ষার্থী অংশগ্রহণ করে। গত ১ নভেম্বরে পরীক্ষা শুরু হয়ে শেষ হয় ১৮ নভেম্বর।

এমএইচএম/আরএস/জেআইএম

আপনার মতামত লিখুন :