আইডিয়ালে যৌন হয়রানির বিচার দাবিতে আল্টিমেটাম

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৮:৪৩ পিএম, ২১ জুলাই ২০১৯

আইডিয়াল স্কুল অ্যান্ড কলেজের শিক্ষিকার যৌন হয়রানির বিচারের দাবি জনিয়েছেন অভিভাবকরা। ৭২ ঘণ্টার মধ্যে অভিযুক্ত শিক্ষকের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া না হলে সভাপতির কার্যালয় ঘেরাওয়ের হুঁশিয়ারি দিয়েছেন তারা।

রোববার (২১ জুলাই) আইডিয়াল স্কুলের মুগদা শাখার সামনে অভিভাবকরা মানববন্ধন করে এ হুঁশিয়ারি দেন।

মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, আইডিয়াল স্কুল অ্যান্ড কলেজ মুগদা শাখার শিক্ষক আব্দুস সালাম মিয়া একই প্রতিষ্ঠানের শিক্ষিকাকে কুপ্রস্তাব দেন। ওই শিক্ষিকা তাতে রাজি না হলে নানাভাবে যৌন হয়রানির চেষ্টা করেন আব্দুস সালাম মিয়া। এর বিচার পেতে ওই শিক্ষিকা লিখিতভাবে অধ্যক্ষকে জানান। এ অভিযোগের ভিত্তিতে অভিযুক্ত শিক্ষক আব্দুস সালাম মিয়াকে একই প্রতিষ্ঠানের এক শাখা থেকে অন্য শাখায় বদলি করেন।

অভিভাবকরা বলেন, যৌন হয়রানির বিচার বদলি হতে পারে না। অভিযুক্ত আব্দুস সালাম মিয়ার চাকরিচ্যুতি, গ্রেফতার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দিতে হবে। ৭২ ঘণ্টার মধ্যে তাকে অপসারণ করে পুলিশে হস্তান্তর করা না হলে গভর্নিং বডির সভাপতির কারওয়ানবাজার কার্যালয় ঘেরাওয়ের আল্টিমেটাম দেন তারা।

তারা আরও বলেন, বারবার এ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে যৌন হয়রানির ঘটনা ধামাচাপা দেয়া হচ্ছে। দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি না হওয়ায় যৌন হয়রানির উৎসব চলছে। এর আগে মুগদা শাখার শিক্ষক আক্তারুজ্জামান এক ছাত্রীকে নির্যাতন করলে তাকে শুধু প্রভাতী থেকে দিবা শাখায় বদলি করা হয়।

বক্তারা বলেন, চার বছর আগে চতুর্থ শ্রেণির ছাত্রী বুশরাকে নির্যাতন করায় অভিভাবক ফোরামের আন্দোলনের ফলে শিক্ষক হুমায়ুন কবিরকে অপসারণ করা হয়েছিল। পরবর্তীতে মামলার বাদীকে ভয়ভীতি দেখিয়ে মামলা প্রত্যাহার করতে বাধ্য করা হয়। ওই শিক্ষক হুমায়ুন কবিরকে অবৈধ লেনদেনের মাধ্যমে বনশ্রী শাখায় চাকরিতে পুনর্বহাল করা হয়েছে। ফলে যৌন হয়রানি বৃদ্ধি পেতে থাকে। অবিলম্বে স্কুল থেকে যৌন হয়রানিতে জড়িত শিক্ষকদের চাকরিচ্যুতের দাবি জানান অভিভাবকরা।

এমএইচএম/এএইচ/জেআইএম

আপনার মতামত লিখুন :