সামরিক শক্তির কিছু ক্ষেত্রে সবাইকে ছাড়িয়ে গেছে চীন : পেন্টাগন

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
আন্তর্জাতিক ডেস্ক আন্তর্জাতিক ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৪:৩৮ পিএম, ১৭ জানুয়ারি ২০১৯

পৃথিবীর সব থেকে উন্নত এবং অত্যাধুনিক বেশ কিছু যুদ্ধাস্ত্র বানিয়ে ফেলেছে চীন। সামরিক শক্তির বিচারে সমুদ্র, আকাশ, মহাকাশ এবং আন্তর্জাল, সব ক্ষেত্রেই নিজেদের অন্যতম শক্তিশালী হিসেবে প্রতিষ্ঠা করে ফেলেছে তারা। কোনও কোনও ক্ষেত্রে ইতিমধ্যেই পৃথিবীতে শ্রেষ্ঠ বেইজিং। ভারত মহাসাগর জুড়েও ক্রমাগত নিজেদের আধিপত্য বাড়িয়ে চলেছে দেশটি।

খুব তাড়াতাড়ি নিজেদের অভাবনীয় শক্তির ক্ষমতা প্রদর্শনের জন্য তাইওয়ানের উপর সামরিক অভিযানও চালাতে পারে চীনের সরকারি সেনা অর্থাৎ পিপলস লিবারেশন আর্মি। মার্কিন সামরিক গোয়েন্দাদের এক প্রতিবেদনে চীনকে নিয়ে এই আশঙ্কা প্রকাশ করেছে মার্কিন প্রতিরক্ষা দফতর।

মার্কিন সরকারের ডিফেন্স ইন্টেলিজেন্স অ্যাজেন্সির প্রতিবেদনে বলা হয়, বিভিন্ন ধরনের যুদ্ধাস্ত্র তৈরিতে চীন অবিশ্বাস্য গতিতে এগিয়ে চলছে। শেষ কয়েক দশকে প্রযুক্তির ক্ষেত্রে অভাবনীয় উন্নতি করেছে চীন। মার্কিন গোয়েন্দাদের বক্তব্য, ম্যানুফ্যাকচারিং সেক্টর অর্থাৎ উৎপাদন শিল্পে চীন সারা পৃথিবীর ভরকেন্দ্র হয়ে ওঠা থেকেই এই এগিয়ে যাওয়ার শুরু।

কম খরচে এবং ভাল পরিকাঠামোতে উৎপাদনের আকর্ষণে সারা পৃথিবীর বড় বড় কোম্পানির গন্তব্য এখন চীন। তাতে কোম্পানিগুলোর মুনাফা হলেও চূনের কাছে চলে যাচ্ছে প্রযুক্তি। সেই প্রযুক্তির বলে বলীয়ান হয়েই এখন পৃথিবীর অন্যতম সেরা বিভিন্ন যু্দ্ধাস্ত্রের অধিকারী হয়েছে চীন। বেইজিংয়ের দ্রুত গতিতে সামরিক উত্থানের পেছনে এই যুক্তিই খুঁজে পাচ্ছেন মার্কিন সামরিক গোয়েন্দারা।

যদিও মার্কিন গোয়েন্দাদের সব থেকে বেশি উদ্বেগ ‘হাইপারসনিক’ যুদ্ধাস্ত্র নিয়ে। এই যুদ্ধাস্ত্র শব্দের থেকে কয়েকগুণ বেশি গতিতে নির্দিষ্ট লক্ষ্যবস্তুকে আঘাত হানে। গতি অত্যন্ত বেশি হওয়ায় কোনও রাডার বা সেন্সরে এই যুদ্ধাস্ত্রকে চিহ্নিত করা যায় না।

তাই এই যুদ্ধাস্ত্রের ক্ষেত্রে কাজ করে না অনেক ক্ষেপণাস্ত্র বিধ্বংসী ব্যবস্থাই। উন্নত মানের হাইপারসনিক যুদ্ধাস্ত্র হাতে এলে নিশ্চিতভাবেই নিজেদের ক্ষমতা নিয়ে অনেকটাই আত্মবিশ্বাসী হয়ে পড়বে চীনের সরকারি সেনা বা পিপলস লিবারেশন আর্মি, এমন আশঙ্কা মার্কিন গোয়েন্দাদের।

পেন্টাগনের প্রকাশিত রিপোর্টে বলা হয়েছে, ‘প্রযুক্তিগত উন্নতির কারণে পিপলস লিবারেশন আর্মির হাতে এখন আছে পৃথিবীর অন্যতম সেরা সব যুদ্ধাস্ত্র। কোনও কোনও ক্ষেত্রে চীনই শ্রেষ্ঠ। সমুদ্র, আকাশ, মহাকাশ এবং ইন্টারনেট, সব ক্ষেত্রেই নিজের এলাকায় শ্রেষ্ঠ এখন বেইজিং।’

পাশাপাশি যুদ্ধবিমান বানানোর ক্ষেত্রেও অভাবনীয় উন্নতি করেছে চীন। মাঝারি এবং দূরপাল্লার বোমারু বিমান তৈরিতেও এখন একেবারে প্রথম সারিতে চীন। ২০২৫ সালের মধ্যে বেশ কয়েকটি অত্যাধুনিক যুদ্ধবিমানের সফল উড্ডয়ন সেরে ফেলার লক্ষ্যে এখন কাজ করছেন চীনা প্রযুক্তিবিদরা। সেই লক্ষ্যে সফল হলে আকাশের লড়াইতেও নিজেদের শ্রেষ্ঠত্ব প্রমাণ করে ফেলবে চীন।

আনন্দাবাজারের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, শুধু আকাশ নয়, ভারত মহাসাগরের নিয়ন্ত্রণও নিজের কব্জায় রাখতে দীর্ঘমেয়াদী পরিকল্পনা নিয়েছে দেশটি। সেই নিয়ন্ত্রণের লক্ষ্যে নিজেদের উপকূল ছাড়িয়ে এখন চীনের নজর বিভিন্ন বিদেশি সমুদ্র বন্দরে। পাকিস্তানের গোয়াদার এবং শ্রীলঙ্কার হাম্বানটোটা বন্দর এখন আক্ষরিক অর্থেই চীনা নিয়ন্ত্রণে। বিনিয়োগ ও উন্নয়নের আড়ালে এই বন্দরগুলোতে এখন চীনা প্রাধান্য প্রশ্নাতীত। পাশাপাশি বেইজিং প্রভাব বাড়াচ্ছে আফ্রিকা এবং মধ্যপ্রাচ্যের বিভিন্ন বাণিজ্যিক সমুদ্রবন্দরেও।

মার্কিন সামরিক গোয়েন্দাদের পর্যবেক্ষণ, গত ৪০ বছর ধরে সামরিক ক্ষেত্রে শুধুই অগ্রগতি হয়েছে চীনের। কিন্তু সত্যিকারের যুদ্ধের কোনও অভিজ্ঞতা নেই পিপলস লিবারেশন আর্মির। সেই কথা খুব ভাল করেই জানেন চীনা সামরিক কর্তারা।

যে কারণে সত্যিকারের যুদ্ধের মহড়া হিসেবে তারা বেছে নিতে পারে তাইওয়ানকে। এমন আশঙ্কা মার্কিন গোয়েন্দাদের। কারণ, চীন সাগরে আমেরিকার অন্যতম বন্ধু দেশ তাইওয়ান। দক্ষিন চীন সাগরে নিজেদের উপস্থিতির জন্য তাইওয়ানের উপর নির্ভরশীল মার্কিন নৌ-সেনা। অন্যদিকে পূর্ব আর দক্ষিণ চীন সাগরের মাঝে এই দ্বীপের স্বাধীন অস্তিত্ব মেনে নেয় না বেইজিং।

এই মুহূর্তে তাইওয়ান স্বায়ত্বশাসিত। নিজেদের আলাদা পতাকা, মুদ্রা এবং সরকার থাকলেও তাইওয়ানকে স্বাধীন দেশ বলে মেনে নেয় না জাতিসংঘও। এর আগে বেইজিং প্রকাশ্যেই হুঁশিয়ারি দিয়েছে, তাইওয়ান স্বাধীনতা ঘোষণা করলে তারা যুদ্ধ করতে পিছপা হবে না। তাই নিজেদের সামরিক শক্তির সক্ষমতা যাচাই করতে তাইওয়ানকেই প্রথম যুদ্ধের ক্ষেত্র হিসেবে বেছে নিতে পারে চীন। মার্কিন গোয়েন্দাদের দাবি, পরিস্থিতি যেদিকে এগোচ্ছে, তাতে সেই সময় প্রায় আগত।

এসআইএস/এমকেএইচ

আপনার মতামত লিখুন :