ভারতের যেসব শহর অপরাধের জন্য কুখ্যাত

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
আন্তর্জাতিক ডেস্ক আন্তর্জাতিক ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৬:৪৪ পিএম, ১৪ জানুয়ারি ২০২০

বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহৎ জনসংখ্যার দেশ ভারত। প্রতিদিন দেশটিতে নানারকম অপরাধের খবর পাওয়া যায়। কোথাও না কোথাও এই অপরাধ সংগঠিত হলেও ভারতের বেশ কিছু অংশে কিছু বিশেষ বিশেষ অপরাধের পরিমাণ অনেক বেশি। দেশটির কোন শহরে কোন অপরাধের প্রবণতা বেশি তা নিয়েই এই প্রতিবেদন।

গাড়ি চুরি
ভারতের সবচেয়ে বড় রাজ্য হলো উত্তরপ্রদেশ। রাজ্যটির মীরাট ও মুজফফরনগর জেরার সঙ্গে জড়িত হয়েছে বহু গাড়ি চুরির ঘটনা। শুধু তাই নয়, উত্তর ভারতের অন্যান্য শহরে গাড়ি চুরির ঘটনার তদন্ত থেকে উঠে এসেছে এই দুই শহরের দাগী আসামীদের নাম।

খুন
মোটা অঙ্কের টাকার বিনিময়ে খুনের ক্ষেত্রেও এগিয়ে উত্তরপ্রদেশ। রাজ্যটির ইটাওয়া ও বুলন্দশহর অঞ্চলে এর জন্য কুখ্যাত। বিগত কয়েক বছরে এই দুই শহরের সঙ্গে বিহার রাজ্যের বেগুসারাই শহরেও পাল্লা দিয়ে বেড়েছে খুনের ঘটনা। আর এ তথ্য দিয়েছে ভারতের জাতীয় অপরাধ ব্যুরো।

পরিচয়পত্র জালিয়াতি
ভোটার কার্ড বা (ভারতে যা ‘আধার’ কার্ড) জাতীয় পরিচয়পত্র জালিয়াতির ঘটনা কয়েক বছরে মারাত্মক হারে বেড়েছে ভারতে। দেশটির অপরাধ ব্যুরোর সাইবার অপরাধ বিভাগের দেয়া পরিসংখ্যানে জানানো হয়েছে, এ ধরনের অপরাধের জন্য শীর্ষে দক্ষিণ ভারতের রাজ্য তেলেঙ্গানার প্রাদেশিক রাজধানী শহর হায়দরাবাদ।

লুট ও ডাকাতি
ভারতের মধ্যপ্রদেশ ও রাজস্থান রাজ্যেল বিভিন্ন অঞ্চল লুটপাটের জন্য কুখ্যাত। মহাসড়ক সংলগ্ন বসতিহীন অঞ্চলগুলোই মূলত অপরাধীদের নজরে থাকে। এসব ফাঁকা স্থানে তারা সুযোগ বুঝে লুটতরাজ ও ডাকাতির মতো নৃশংস অপরাধ সংগঠিত করে।

ধর্ষণ
ভারতে ধর্ষণের ঘটনা ক্রমাগত বেড়েই চলেছে। ২০১৮ সালে ভারতে গড়ে প্রতিদিন ৯১টি ধর্ষণের ঘটনা ঘটেছে। একের পর এক ভয়াবহ ধর্ষণের খবর সামনে আসার পর থেকে বলা হচ্ছে যে রাজধানী দিল্লিই ভারতের ‘ধর্ষণ রাজধানী’৷ যদিও এই দাবির সত্যতা যাচাই করার মতো কোনো তথ্য নেই, তবুও দিল্লির গায়ে রয়ে গেছে এই তকমা।

‘আইটি ফ্রড’
ভারতের আইটি বা তথ্যপ্রযুক্তি হাব বলা হয় দেশটির দক্ষিণের রাজ্য কর্ণাটকের রাজধানী বেঙ্গালুরকে। তথ্যপ্রযুক্তির উন্নয়নের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বেড়েছে নতুন ধরনের অপরাধ। বেঙ্গালুরুতে রয়েছে বিশ্বের নামকরা সব তথ্যপ্রযুক্তি সংস্থার দফতর। বর্তমানে ভারতের আইটি ফ্রড বা তথ্যপ্রযুক্তি অপরাধের রাজধানী হলো এই বেঙ্গালুরু৷

গুম বা অপহরণ
বেশ কয়েক দশক ধরে চলে আসা গুমের প্রবণতা এখনও ভারতের বিহার রাজ্যের পিছু ছাড়েনি। রাজনৈতিক প্রতিহিংসাজনিত কারণেই সেখানে বেশির ভাগ গুমের ঘটনা হয় বলে মনে করেন অনেকে। দেশটির সরকারি হিসাব অনুযায়ী উত্তর ভারতের এই রাজ্যেই সবচেয়ে বেশি গুম ও অপহরণের ঘটনা ঘটে।

কয়লা মাফিয়া
ভারতের পশ্চিমবঙ্গ সীমান্ত লাগোয়া একটি রাজ্য হলো ঝাড়খণ্ড। রাজ্যটিতে কয়লা খনির জন্য বেশ বিখ্যাত। কয়লা খনির জন্য বিখ্যাত ঝাড়খণ্ডে সক্রিয় আছে বহু মাফিয়া চক্র। ভারত সরকার নজরদারি বাড়ালেও ঝাঘখণ্ডে কয়লা মাফিয়া চক্রের অবসান ঘটানো যায়নি। শতবছর ধরে সক্রিয় আছে এসব চক্র।

বন্যপ্রাণী চোরাশিকার ও পাচার
ভারতের উত্তরাঞ্চলের একটি রাজ্য হলো উত্তরাখন্ড। হিমালয়, ভাবর ও তরাই অঞ্চলের প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের জন্য এই রাজ্য বিখ্যাত। উত্তরাখন্ডে রয়েছে বন্যপ্রাণীদের জন্য অভয়ারণ্য। বর্তমানে বন্যপ্রাণীদের চোরাশিকার ও পাচারের একাধিক চক্র। বাঘ, চিতাবাঘ ছাড়াও নানা রকমের পাখির চোরাপাচার হয় সেখান থেকে।

মাদক বাজার
ভারতের পাহারবেষ্টিত হিমাচল প্রদেশের কুল্লু ও মানালি অঞ্চলে রয়েছে মাদক-পর্যটনের ব্যাপক প্রচলন। বিশেষ করে বিদেশি পর্যটকদের মধ্যে রয়েছে এই অঞ্চলে আসার ঝোঁক। যার কারণ এই অঞ্চলে ব্যাপকহারে গাঁজা, আফিম ও চরসের উৎপাদন হয়।

নকল
পরীক্ষায় নকল করার জন্য উত্তর ভারতের রাজ্য বিহারের বদনাম রয়েছে গত কয়েক দশক ধরে। এই অপরাধের শেকড় এতটাই গভীরে যে, নকলের ধারা যে বেশ কয়েক বার গোটা রাজ্যে প্রথম হওয়া শিক্ষার্থীদের বিরুদ্ধেও পরীক্ষায় নকল করার অভিযোগ ওঠে এবং সেসব শিক্ষার্থী দোষী সাব্যস্তও হয়।

সূত্র : ডয়েচেভেলে

এসএ/পিআর

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]