হজযাত্রী দম্পতিকে দুই বাড়িতে পাঠালো হজ এজেন্সি

বিশেষ সংবাদদাতা
বিশেষ সংবাদদাতা
প্রকাশিত: ১২:০০ এএম, ২২ জুলাই ২০১৮ | আপডেট: ০৯:০২ এএম, ২২ জুলাই ২০১৮

তোজাম্মেল হক ও শেফালী বেগম দম্পতি গত ১৮ জুলাই পবিত্র হজ পালনে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের (বিজি-৫০২১) ফ্লাইটে সৌদি আরব যান। তারা ‘ক্যাসকেড ট্রাভেলস অ্যান্ড ট্যুরস’ নামক হজ এজেন্সি (লাইসেন্স নম্বর-৭১৩) এর মাধ্যমে মক্কায় পৌঁছান। সেখানে গিয়ে জানতে পারেন- ওই হজ এজেন্সি তাদের পৃথক দুটি বাড়িতে রাখার জন্য বাড়ি ভাড়া করেছে। বিষয়টি সৌদি কর্তৃপক্ষের নজরে এলে তারা কড়া প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছে।

এছাড়া নির্দেশনা অনুসারে হজযাত্রীর পাসপোর্টের পিছনে মোয়াল্লেম ও বাড়ির স্টিকার ছাড়া যাত্রী পাঠানোর কারণে চারটি এজেন্সিকে কারণ দর্শানোর নোটিশ দিয়েছে ধর্ম মন্ত্রণালয়।

শনিবার ধর্ম মন্ত্রণালয়ের সহকারী সচিব (হজ) এস এম মনিরুজ্জামান স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে এ কারণ দর্শাও নোটিশ জারি করা হয়। নোটিশে এজেন্সিগুলোকে আগামী সাতদিনের মধ্যে কারণ দর্শাতে বলা হয়েছে।

জানা গেছে, রাজশাহীর মেসার্স আকবর ওভারসিজ (লাইসেন্স নাম্বার ৬১৬) ১৬ জুলাই সৌদি এয়ারলাইন্সের (এসবি৩৮৫৭) ফ্লাইটে ৮৯ জন, পুরানা পল্টনের মোবস্বেরা ট্রাভেল অ্যান্ড টুরস এজেন্সিও (লাইসেন্স নম্বর১০৫৫) একই দিন এসবি ৩৮২৬ ফ্লাইটে ৪৯ জন হজযাত্রী জেদ্দায় পাঠায়। কিন্তু যাত্রীদের পাসপোর্টের পিছনে মোয়াল্লেম ও বাড়ির স্টিকার ছিল না।

এ কারণে সৌদি মন্ত্রণালয় কড়া প্রতিক্রিয়া জানান। এছাড়া আল সেকান্দার অ্যান্ড ট্রাভেলস (লাইসেন্স নাম্বার ১৪৬৬) গত ১৮ জুলাই ২২২ জন যাত্রী পাঠালেও তাদের মধ্যে ৯০ জন হজযাত্রীর তথ্য সৌদি ই-হজ সিস্টেমে প্রি-অ্যারাইভাল ডাটা আপলোড না করে মদিনায় হজযাত্রী পাঠায়। এতে মদিনাস্থ আদিল্লা কড়া প্রতিক্রিয়া জানায়।

এমইউ/এমবিআর

আপনার মতামত লিখুন :


টাইমলাইন