সিনহা আবুল মনসুর: জীবন এতো ছোট কেন

ডা. বিএম আতিকুজ্জামান
ডা. বিএম আতিকুজ্জামান ডা. বিএম আতিকুজ্জামান
প্রকাশিত: ১১:৩৭ এএম, ১৫ অক্টোবর ২০২১

চিকিৎসক হিসেবে ডা. সিনহা মনসুর প্রায়ই রোগীর মৃত্যু দেখতেন। কোনো মৃত্যু তাঁর কাছে ছিল স্বাভাবিক, কোনটা অস্বাভাবিক। কোনটা সময়ের, কোনটা অসময়ের। এ কথাগুলো তিনি লিখেছিলেন তাঁর একটি বইয়ের ভূমিকাতে। অস্বাভাবিক, অনভিপ্রেত, অসময়ের মৃত্যু নিয়ে তারাশঙ্করের কথা টেনে এনে বলেছিলেন, "জীবন এতো ছোট কেন?"
আমাদের সিনহা ভাই নিজের জীবনের ইতি টানলেন অনেকটা একইভাবে, অস্বাভাবিক , অনভিপ্রেত এবং অসময়ের মৃত্যু। দুদশক ধরে আমেরিকা প্রবাসী সিনহা আবুল মনসুর পেশায় ছিলেন একজন চিকিৎসক। অঙ্গীকারে লেখক, গবেষক, মুক্তচিন্তার আধার, সংগঠক এবং চলচিত্র পরিচালক।

jagonews24

প্রবাসী হলেও বাংলা শিল্প এবং সাহিত্য নিয়ে সিনহা ভাইয়ের আগ্রহ ছিল সীমাহীন। লেখার হাত ছিল প্রাঞ্জল এবং শক্তিশালী। ২০১২ সালে বেরিয়েছিল তাঁর ভ্রমণ কাহিনী 'সেই সব অদ্ভুত ভ্রমণ'। ২০১৩ সালে বেরিয়েছিল " হুমায়ুন : একজন হেমিলনের বাঁশিওয়ালা" । ২০১৪ সালে বেরিয়েছিল "দ্বীপ ও জনপদের গল্প" । এর পর লিখেছেন " জীবনানন্দ : সময়ের নিঃসঙ্গ নাবিক" , "জীবন এতো ছোট কেন ", "এক জন মুক্তিযোদ্ধার না বলা কথা"।

jagonews24

পাঠকপ্রিয়তার জন্য অধিকাংশ বইয়েরই একাধিক সংস্করণ বেরিয়েছে।
" দ্বীপ ও জনপদের গল্প " বইটির জন্য সিনহা ভাই পেয়েছেন "বাংলাদেশ রাইটার্স ফাউন্ডেশন " পুরস্কার। "জীবননান্দ : সময়ের নিসঃঙ্গ নাবিলাকে" বইটির জন্য পেয়েছেন কলকাতা থেকে " আন্তর্জাতিক রূপসী বাংলা সাহিত্য পুরস্কার"। একজন চিকিৎসক হিসেবে তিনি সমাদৃত ছিলেন। ২০১১ সালে আমেরিকা থেকে তার চিকিৎসা বিজ্ঞানের বই " Essential Topics and Cases for Anesthesia Oral Board" প্রকাশিত হয়েছে। বেশ ক বছর ধরে তিনি " Leading Physician of the World" তালিকাতে স্থান করে নিয়েছেন।

jagonews24

বাংলা ভাষার নানা লেখক, গীতিকার, পরিচালকদের জীবন এবং কাজ নিয়ে তাঁর গবেষণাধর্মী লেখাগুলো ব্যাপকভাবে সমাদৃত হয়েছে। সিনহা ভাইয়ের সবচে বড়ো গুণ ছিল তাঁর সারল্য, উদার এবং অকৃত্তিম মনোভাব। তিনি সর্বমহলে ব্যাপক জনপ্রিয় ছিলেন। প্রবাসের বাংলা শিল্প সাহিত্যের জগতে তিনি খুব সহজে তাঁর জায়গা করে নিয়েছিলেন। তাঁর সংগঠক হিসেবে ভালো পরিচিতি ছিল।

ব্যক্তিগত জীবনে সিনহা ভাই ছিলেন পরোপকারী নিবেদিত প্রাণ একজন মানুষ। সবাইকে আপ্যায়ন করতে পছন্দ করতেন। অকৃপণভাবে সবার প্রশংসা করতেন তিনি। আমাকে প্রায়ই বলতেন লেখবার জন্য। অন্যদের লেখার জন্য , পড়ার জন্য উৎসাহিত করার ব্যাপারে তিনি ছিলেন অকৃপণ।

jagonews24

সিনহা ভাইয়ের সুযোগ্য জীবন সঙ্গিনী ডা. ফেরদৌসী শিল্পীর জন্য আমার গভীর সমবেদনা। তাঁরা দুজনেই ছিলেন নিউ ইয়র্কের বাঙালিদের একটি আস্থার স্থান। সিনহা ভাই একজন অসাধারণ প্রতিভাবান মানুষ ছিলেন। এতো বড়ো মাপের একজন মানুষ এতো তাড়াতাড়ি চলে গেলেন ভাবতেই মনটা বিষণ্ণ হয়ে যাচ্ছে।
পরম করুণাময় আল্লার কাছে কাছে তাঁর বিদেহী আত্মার শান্তি কামনা করি। তিনি যেন তাঁর পরিবার পরিজন বন্ধু-বান্ধবকে এ শোক সহ্য করবার সামর্থ্য দেন।

এইচআর/জিকেএস

বাংলা ভাষার নানা লেখক, গীতিকার, পরিচালকদের জীবন এবং কাজ নিয়ে তাঁর গবেষণাধর্মী লেখাগুলো ব্যাপকভাবে সমাদৃত হয়েছে। সিনহা ভাইয়ের সবচে বড়ো গুণ ছিল তাঁর সারল্য, উদার এবং অকৃত্তিম মনোভাব। তিনি সর্বমহলে ব্যাপক জনপ্রিয় ছিলেন। প্রবাসের বাংলা শিল্প সাহিত্যের জগতে তিনি খুব সহজে তাঁর জায়গা করে নিয়েছিলেন।

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]