শারজায় তিনদিনের প্রবাসী উৎসব

মুহাম্মাদ ইছমাইল
মুহাম্মাদ ইছমাইল মুহাম্মাদ ইছমাইল , আরব আমিরাত প্রতিনিধি
প্রকাশিত: ১২:৪০ পিএম, ০৫ অক্টোবর ২০২২

প্রবাসী বাংলাদেশিদের বৈধপথে রেমিট্যান্স পাঠাতে উৎসাহিত করতে তিন দিনব্যাপী ‘রেমিট্যান্স ফেস্টিভ্যাল’ আয়োজন করছে আইডিয়া গ্যালারি। চলতি মাসের ১৪-১৫-১৬ অক্টোবর আমিরাতে শারজা এক্সপো সেন্টারে পঞ্চমবারের মতো এ মেলার আয়োজন করা হবে।

মেলা উদ্বোধন করবেন পরিকল্পনামন্ত্রী এমএ মান্নান। আয়োজকরা জানিয়েছেন, তিন দিনের এই মেলায় সরকারের মন্ত্রী, বাংলাদেশ ব্যাংকের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা, অ্যাসোসিয়েশন অব ব্যাংকার্স বাংলাদেশের (এবিবি) চেয়ারম্যানসহ বাংলাদেশ ব্যাংকের অন্তত ২০ জন উচ্চপদস্থ কর্মকর্তা যোগ দেওয়ার কথা রয়েছে।

তিনদিনের এ মেলায় প্রবাসীদের স্বতঃস্ফূর্ত উপস্থিতি নিশ্চিত করতে এরই মধ্যে নানামুখী পদক্ষেপ নিয়েছেন আয়োজকরা। মেলায় প্রবেশাধিকার সবার জন্য উন্মুক্ত রাখার পাশাপাশি আকর্ষণ বাড়াতে আমিরাতে বসবাসরত শিশু-কিশোরদের জন্য চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতা, মহিলা সমিতির পিঠা উৎসব ও সাংস্কৃতিক আয়োজন করা হয়েছে।

মেলার আয়োজক জর্জ খান জানান, এবারের মেলায় বৈধপথে রেমিট্যান্স বাংলাদেশকে কীভাবে লাভবান করছে- এ বিষয়ের ওপর প্রচারণামূলক কার্যক্রম রাখা হয়েছে। মেলায় প্রতিবার সিআইপি ও সেরা রেমিটার হিসেবে প্রবাসীদের সম্মাননা দেওয়া হলেও এবার সর্বোচ্চ রেমিট্যান্স গ্রহণকারী ব্যাংক, আমিরাতের সাতটি প্রদেশে থাকা এক্সচেঞ্জ হাউসের মধ্যে সেরা ব্রাঞ্চ ও এক্সচেঞ্জ হাউসকে সম্মাননার তালিকায় নিয়ে আসা হচ্ছে।

তিনি বলেন, সরকারের ২ দশমিক ৫ শতাংশ রেমিট্যান্স প্রণোদনার বাইরেও আমরা একটি প্রোগ্রাম চালুর ব্যাপারে কাজ শুরু করেছি। শিগগির এটি প্রবাসীদের হাতে পৌঁছে দিতে চাই। প্রবাসীরা অ্যাপ বা কার্ড ব্যবহারের মাধ্যমে নির্ধারিত এক্সেচেঞ্জ হাউস থেকে টাকা পাঠালে পয়েন্ট যোগ হবে। পরে ওই পয়েন্ট দিয়ে তারা সুবিধা নিতে পারবেন।

আয়োজক সদস্য মামুনুর রশীদ জানান, চলতি মাসের ১ থেকে ১৬ তারিখ পর্যন্ত রেমিট্যান্স পাঠানো প্রবাসীদের কুয়াকাটায় পাঁচতারকা হোটেলের মালিকানা শেয়ার জেতার সুযোগ দিচ্ছে মেলার রেমিট্যান্স পার্টনার আল ফারদান এক্সচেঞ্জ। মেলা চলাকালীন তাদের পাঠানো রেমিট্যান্স রশিদ নিয়ে আসতে হবে।

ড্রয়ের মাধ্যমে বিজয়ীকে গোল্ড সেন্ডস হোটেল অ্যান্ড রিসোর্টের সৌজন্যে ওই পাঁচতারকা হোটেলের মালিকানা শেয়ার দেওয়া হবে। এছাড়া মেলা চলাকালে যে কেউ সহজে দেশে রেমিট্যান্স পাঠাতে পারবেন।

এমআরএম/এএসএম

প্রবাস জীবনের অভিজ্ঞতা, ভ্রমণ, গল্প-আড্ডা, আনন্দ-বেদনা, অনুভূতি, স্বদেশের স্মৃতিচারণ, রাজনৈতিক ও সাংস্কৃতিক লেখা পাঠাতে পারেন। ছবিসহ লেখা পাঠানোর ঠিকানা - [email protected]