হতাশার একটি দিন কাটলো বোলারদের

ক্রীড়া প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৫:১৯ পিএম, ০২ ফেব্রুয়ারি ২০১৮

করুনারত্নেকে কোনো রান করার আগেই ফিরিয়ে দিয়ে যে ইঙ্গিত দিয়েছিলেন মেহেদী হাসান মিরাজ, সেটা শেষ পর্যন্ত আর থাকলো না। চট্টগ্রাম টেস্টের দ্বিতীয় দিনও শেষ হলো লঙ্কান ব্যাটসম্যানদের আধিপত্য দিয়ে। এর অর্থ, আরও একটি হতাশার দিন কাটলো বাংলাদেশের বোলারদের। ৩ উইকেটে ৫০৪ রান নিয়ে তৃতীয় দিন শেষ করলো শ্রীলঙ্কা। সারা দিনে মাত্র ২টি উইকেটের পতন ঘটিয়েছেন মোস্তাফিজুর রহমান এবং তাইজুল ইসলাম।

বাংলাদেশের করা ৫১৩ রানের জবাব দিতে নেমেছিল দ্বিতীয় দিন লাঞ্চের কিছুক্ষণ পরই। এরপর প্রায় দেড় সেশন ব্যাট করেছে সফরকারীরা। লঙ্কান ব্যাটসম্যানদের, বিশেষ করে কুশল মেন্ডিস আর ধনঞ্জয়া ডি সিলভার দৃঢ়তা বিন্দুমাত্র আছড় কাটতে পারেনি বাংলাদেশের বোলাররা।

ইনিংসের শুরুতেই লঙ্কানদের রানের খাতা খোলার আগেই করুনারত্নেকে ইমরুল কায়েসের ক্যাচে পরিণত করেন মেহেদী হাসান মিরাজ। সারাদিনে এটাই ছিল বাংলাদেশের বোলারদের একমাত্র সাফল্য। এরপর ১৮৭ রানের জুটি গড়ে দ্বিতীয় দিন শেষ করেন মেন্ডিস আর ধনঞ্জয়া।

তৃতীয় দিনের শুরুতে উইকেটের আকাঙ্খা ছিল বাংলাদেশের বোলারদের; কিন্তু মেন্ডিস আর ধনঞ্জয়া মিলে যেন চীনের মহাপ্রাচীর তৈরি করেছেন মিরাজ, সানজামুল এবং মোস্তাফিজদের সামনে। ৩০৮ রানের বিশাল জুটি গড়ার পর দারুণ এক ডাবল সেঞ্চুরির দিকে এগিয়ে যাচ্ছিলেন ধনঞ্জয়া ডি সিলভা, তখন তার ওপর আক্রমণটা হানতে সক্ষম হন মোস্তাফিজুর রহমান।

নতুন বলে কোনাকুনি ডেলিভারি দেন মোস্তাফিজ। ব্যাটসম্যান ভেবেছিলেন পুল করবেন। কিন্তু বল ব্যাটের উপরের প্রান্ত ছুঁয়ে গিয়ে জমা পড়ে উইকেটরক্ষক লিটন দাসের হাতে। ভাঙে বিশাল এক জুটি। ১৭৩ রান করে ফিরে যান ধনঞ্জয়া ডি সিলভা।

ধনঞ্জয়া আউট হলেও রোশেন সিলভাকে নিয়ে ১০৭ রানের জুটি গড়েন কুশল মেন্ডিস। তিনি দাঁড়িয়ে একেবারে ডাবল সেঞ্চুরির দ্বারপ্রান্তে; কিন্তু দুর্ভাগ্য তার। নিজের জন্মদিনটাকে ডাবল সেঞ্চুরি দিয়ে রাঙাতে পারেননি। ১৯৬ রানে দাঁড়িয়ে এ সময় কুশল মেন্ডিস। তাইজুল ইসলামের আউটসাইড অফের বলটিকে ফ্লিক করতে চাইলেন মিডউইকেটের ওপর দিয়ে। ক্যাচ উঠে গেলো। ফিল্ডার মুশফিকুর রহীম দারুণ এক ডাইভে ক্যাচটি তালুবন্দী করে নিলেন।

পরিসমাপ্তি ঘটলো ১৯৬ রানের এপিক ইনিংসের। গত বছর গলে বাংলাদেশের বিপক্ষেই ১৯৪ রান করে আউট হয়েছিলেন মেন্ডিস। এবারও তিনি কাটা পড়লেন নার্ভাস নাইনটিজে।

সারাদিনে সাফল্য বলতে শুধুমাত্র এই দুটি উইকেটই। বোলারদের এরপর ছিল শুধুই হতাশার সময়। মোট সাতজন বোলার ব্যবহার করেছেন অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। মোস্তাফিজ, মেহেদী হাসান মিরাজ, তাইজুল ইসলাম, সানজামুল ইসলাম, মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত, মুমিনুল হক কিংবা রিয়াদ নিজে- কেউই আর সাফল্যের দেখা পেলেন না। দিনের শেষ অংশটা ৮৯ রানের জুটি গড়ে কাটিয়ে দিয়েছেন রোশেনা সিলভা এবং দিনেশ চান্ডিমাল। ৮৭ রানে ব্যাট করছেন রোশেনা সিলভা এবং ৩৭ রান নিয়ে ব্যাট করছেন চান্ডিমাল। বাংলাদেশ থেকে লঙ্কানরা পিছিয়ে রয়েছে আর মাত্র ১১ রান।

আইএইচএস/পিআর