বড় মঞ্চে ভালো খেলার মূল উপাদান কী? জানালেন সাকিব

আরিফুর রহমান বাবু
আরিফুর রহমান বাবু আরিফুর রহমান বাবু , বিশেষ সংবাদদাতা টনটন থেকে
প্রকাশিত: ০২:৪৭ এএম, ১৮ জুন ২০১৯

তার পারফরমেন্স নজরকাড়া, সবার সেরা। তিনিই সন্দেহাতীতভাবে বাংলাদেশের সর্বকালের সেরা অলরাউন্ডারম পারফরমার। বিশ্বসেরা অলরাউন্ডারের তকমাটাও বেশ অনেকদিন তার গায়ে আাঁটা। সে কারণে সবার প্রশংসাও পান বেশি। তাকে নিয়ে কথাবার্তাও হয় বেশি। ইতিবাচকের পাশাপাশি নেতিবাচক কথাও হয় প্রচুর।

‘সাকিব এমন’, ‘সাকিব তেমন’। আইপিএল, বিগব্যাশ সহ নানা ফ্র্যাঞ্চাইজি লিগ খেলতে চলে যান যখন তখন। সাকিব দলের সঙ্গে প্র্যাকটিস করেন কম, এমন তীর্যক কথাবার্তাও হয়। এবার বিশ্বকাপ খেলতে যাবার আগেও তাকে নিয়ে কত কথাবার্তা, সমালোচনার ঝড়।

দেশে যখন বিশ্বকাপ প্রস্তুতি শুরু হয়, তখন তিনি ছিলেন আইপিএল খেলায় ব্যস্ত। আইপিএলে নিয়মিত ম্যাচ খেললে হয়ত কথা কম হতো। কিন্তু বেশিরভাগ ম্যাচে একাদশে জায়গা না পেয়েও সাকিব টিমের বিশ্বকাপ প্রস্তুতি ক্যাম্পে অংশ নেননি।

জাতীয় দলের নতুন জার্সি পরে অফিসিয়াল ফটোসেশনে না থেকে সাকিব আরেক দফা হয়েছিলেন নিন্দিত, সমালোচিত। পুরো দল ছিল ফটোসেশনে। সাকিব আইপিএল খেলে দেশে ফিরেও তাতে অংশ নেননি। বিসিবি সভাপতির ফোন পাবার পরও শেরে বাংলার ফটোসেশনে অংশ না নিয়ে নানা কথা শোনেন।

অবশ্য এর মধ্যে সাকিব একটি কাজ ঠিক করেছেন, তা হলো তার গুরু, মেন্টর মোহাম্মদ সালাউদ্দীনকে নিজ গরজ ও খরচে হায়দ্রাবাদ নিয়ে যান। সেখানে আইপিএলে নিজ দল সানরাইজার্স হায়দরাবাদের টিম প্র্যাকটিস ছাড়াও গুরু-মেন্টর সালাউদ্দীনের সাথে একান্তে দিন দশেক অনুশীলন করেন। ব্যাটিং-বোলিং নিয়ে বাড়তি ঘাম ঝরান। ফিজিক্যাল ট্রেনিং করে ওজন কমিয়ে হয়ে ওঠেন ঝরঝরে।

শেষ পর্যন্ত বিশ্বকাপের মাঠে নেমে সাকিব জানান দিলেন, দেখিয়ে দিলেন। সমালোচকের আর সমালোচনার ভাষা নেই। কারণ এবার সাকিব ছাড়িয়ে গেলেন নিজেকে। বিশ্বকাপে সেঞ্চুরি ছিল না। এবার পরপর দুই ম্যাচে ইংল্যান্ড আর ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে শতরান করে মাহমুদউল্লাহ রিয়াদকে ছুঁয়ে ফেললেন।

সেই সাথে কিছু প্রশ্নের উত্তরও দিলেন। আসলে দলের সাথে বেশি সময় ধরে প্র্যাকটিস, ঘরোয়া ক্রিকেট নিয়মিত খেলা এবং দীর্ঘদিনের অনুশীলন ক্যাম্প করলেই শুধু মাঠে ভাল খেলা যায় না। বড় মঞ্চে, বিশ্ব আসরে ভাল খেলার জন্য দরকার বাড়তি কিছু। যা শুধু অনুশীলন করে আর ফিজিক্যাল ট্রেনিংয়ে অর্জন করা সম্ভব নয়। তার জন্য চাই অতিরিক্ত কিছু।

সাকিব মনে করেন, বিশ্ব আসরে ভাল খেলার জন্য সবার আগে দরকার মানসিক প্রস্ততি। তাই তো মুখে এমন কথা, ‘বড় মঞ্চে ভাল করার, দল জেতানোর দৃঢ় সংকল্পটাই আসল।’ ম্যাচ জেতানো ব্যাটিংয়ের পর কথা প্রসঙ্গে সাকিব বলে ওঠেন ভাল খেলার পূর্ব ও প্রধান শর্ত হলো মানসিক প্রস্তুতি।

তার ভাষায়, ‘মাইন্ড সেটটা খুব জরুরী। সবসময় সেরা ছন্দে এবং ফর্মের চুড়োয় থাকলেও, সেরা পারফরমেন্সটা হয় না। আসল কথা হচ্ছে, মাইন্ডসেটটা খুব জরুরী। ফিটনেস ভাল খেলতে সাহায্য করে, কিন্তু ভালো খেলতে সবচেয়ে বড় কার্যকর উপাদান হচ্ছে মানসিক প্রস্তুতি। ভালো খেলার বাসনা ও দৃঢ়সংকল্পটাও সাফল্যের জন্য খুব জরুরী।’

এআরবি/এসএএস

আপনার মতামত লিখুন :