মাঠভর্তি দর্শক নিয়ে আইপিএলের বাকি অংশ ইংল্যান্ডে!

স্পোর্টস ডেস্ক
স্পোর্টস ডেস্ক স্পোর্টস ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৮:৫৫ পিএম, ০৬ মে ২০২১ | আপডেট: ০৯:০০ পিএম, ০৬ মে ২০২১

ভারতে করোনা পরিস্থিতি ভয়াবহ আকার ধারণ করেছে। তারপরও আইপিএলটা শেষ করতে চেয়েছিল আয়োজকরা। কিন্তু করোনা রেহাই দেয়নি বায়ো-বাবলকেও। একের পর এক ক্রিকেটার, স্টাফ আক্রান্ত হওয়ার পর মঙ্গলবার বাধ্য হয়েই স্থগিত করা হয়েছে আইপিএলের এবারের আসরটি।

২৯টি ম্যাচ খেলা হয়েছে। প্লে-অফসহ বাকি আরও ৩১ ম্যাচ। অর্থাৎ টুর্নামেন্টের অর্ধেকই এখনও বাকি। এত টাকার টুর্নামেন্ট কি এভাবেই শেষ হবে? না, ভারতীয় ক্রিকেট কন্ট্রোল বোর্ডের (বিসিসিআই) পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, সময় বের করে যত দ্রুত সম্ভব তারা বাকি অংশটা আয়োজন করতে চান।

এমতাবস্থায় দারুণ এক প্রস্তাব এলো ইংল্যান্ড থেকে। সে দেশের একাধিক কাউন্টি ক্লাব তাদের ভেন্যুতে আইপিএলের ম্যাচ আয়োজন করার আগ্রহ প্রকাশ করেছে। সেটা তারা চায় চলতি বছরের সেপ্টেম্বরে করতে।

এমসিসি, সারে, ওয়ারউইকশায়ার এবং ল্যাঙ্কাশায়ার-এই চার কাউন্টি দল নিজেদের মাঠে আইপিএল আয়োজন করতে ইচ্ছুক। তাদের ঘরের মাঠ হল যথাক্রমে লর্ডস, কিয়া ওভাল, এজবাস্টন এবং ওল্ড ট্র্যাফোর্ড। প্রতিটি কাউন্টির পক্ষ থেকেই ইংল্যান্ড ক্রিকেট বোর্ডকে চিঠি পাঠিয়ে অনুরোধ করা হয়েছে বিসিসিআইয়ের সঙ্গে কথা বলার জন্য।

কাউন্টিগুলোর পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, টি২০ বিশ্বকাপের আগে এই প্রতিযোগিতা ইংল্যান্ডে করা হলে ক্রিকেটারদের আত্মবিশ্বাস বেড়ে যাবে। এর পেছনে প্রচ্ছন্নভাবে জড়িয়ে রয়েছে বাণিজ্যিক ভাবনাও। আইপিএলের জনপ্রিয়তাকে কাজে লাগিয়ে ইংল্যান্ডের বাজার ধরতেও আগ্রহী কিছু সংস্থা। এমনকি বলা হয়েছে, ভরা স্টেডিয়ামেই খেলা হতে পারে।

সেক্ষেত্রে দর্শকদের শোরগোলের মধ্যে আইপিএলের প্রাণ ফিরবে। দুই পক্ষের মধ্যে আলোচনা ফলপ্রসূ হলে প্রথমবারের মতো ইংল্যান্ডের মাটিতে দেখা যেতে পারে বিশ্বের সবচেয়ে বড় ফ্র্যাঞ্চাইজি ক্রিকেট আসরটি।

এমএমআর/জিকেএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]