সাংবাদিক শিমুল হত্যা মামলার পুনঃতদন্ত দাবি আসামিদের

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি সিরাজগঞ্জ
প্রকাশিত: ১১:০৮ এএম, ২৬ নভেম্বর ২০১৭ | আপডেট: ১১:১৭ এএম, ২৬ নভেম্বর ২০১৭

নিজেদের নির্দোষ দাবি করে প্রকৃত খুনিদের চিহ্নিত করার জন্য মামলাটির পুনঃতদন্ত দাবি করেছেন দৈনিক সমকালের সাংবাদিক আব্দুল হাকিম শিমুল হত্যা মামলার ২৯ জন চার্জশিটভুক্ত আসামি।

একই সঙ্গে রাজনৈতিক ষড়যন্ত্রমূলক মামলা উল্লেখ করে প্রধান আসামি পৌর মেয়র জেলা আওয়ামী লীগের বহিষ্কৃত সাংগঠনিক সম্পাদক হালিমুল হক মিরুর মুক্তিও দাবি করেন।

চাঞ্চল্যকর সাংবাদিক শিমুল হত্যার ঘটনার প্রায় ১০ মাস পর রোববার বেলা ১১টায় সিরাজগঞ্জ প্রেস ক্লাব হলরুমে অনুষ্ঠিত সাংবাদিক সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করে এ দাবি করেন শাহজাদপুর মুক্তিযোদ্ধা প্রজন্মলীগের সভাপতি ও শিমুল হত্যা মামলার ১৬নং আসামি শীতিকণ্ঠ ঘোষ শিমুল।

লিখিত বক্তব্যে তিনি বলেন, ঘটনার দিন আওয়ামী লীগের বহিষ্কৃত নেতা আব্দুর রহিমের নেতৃত্বে দুই শতাধিক অবৈধ অস্ত্রধারী মেয়র মিরুর বাড়িতে হামলা করে।

এ সময় মেয়র মিরুর কতিপয় কর্মী ও এলাকাবাসী হামলাকারীদের ধাওয়া করলে তারা গুলিবর্ষণ করে। এ সময় হামলাকারীদের গুলিতেই আহত হন কর্তব্যরত সাংবাদিক আব্দুল হাকিম শিমুলসহ মেয়র মিরুর চার কর্মী।

গুরুতর আহত শিমুলকে বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল থেকে ঢাকায় নেয়ার জন্য তার আত্মীয় স্বজনের সঙ্গে যোগাযোগ করেন মেয়র মিরু। কিন্তু ঢাকায় যাওয়ার পথে তার মৃত্যু হলে একটি মহল সাংবাদিক শিমুলের স্ত্রীকে ভুল বুঝিয়ে মেয়র মিরু ও তার কর্মীদের নামে মিথ্যা মামলা দেয়।

সংবাদ সম্মেলনে বক্তারা আরও বলেন, ঘটনার দিন কর্তব্যরত সাংবাদিক শিমুল আহত হওয়ার পর তার ব্যবহৃত ক্যামেরাটি এখনও উদ্ধার করেনি পুলিশ।

সংবাদ সম্মেলনে আরও বক্তব্য রাখেন, মামলার ৪নং আসামি কে এম নাসির উদ্দিন, ৫নং আসামি ও শাহজাদপুর উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মোস্তাফিজুর রহমান পিযুষ, উপজেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগের যুগ্ম-আহ্বায়ক হুমায়ুন কবির ও হাফিজুল হক পিন্টু।

প্রসঙ্গত, গত ২ ফেব্রুয়ারি মেয়র গ্রুপ ও ছাত্রলীগের একাংশের সংঘর্ষ চলাকালে পেশাগত দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে গুলিবিদ্ধ হন সাংবাদিক আব্দুল হাকিম শিমুল।

পরদিন ৩ ফেব্রুয়ারি বগুড়া থেকে ঢাকায় নেয়ার পথে তিনি মারা যান। এ ঘটনায় মেয়র হালিমুল হক মিরু, তার ভাই মিন্টুসহ ১৮ জনের নাম উল্লেখ করে এবং অজ্ঞাত আরও ২৫ জনকে আসামি করে শাহজাদপুর থানায় হত্যা মামলা করেন শিমুলের স্ত্রী নুরুন্নাহার খাতুন।

মামলাটির তদন্ত শেষে গত ২ মে মঙ্গলবার বিকেলে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা শাহজাদপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (তদন্ত) মনিরুল ইসলাম শাহজাদপুর সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট হাসিবুল হকের আদালতে ৩৮ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দেন।

অভিযুক্তদের মধ্যে ১৮ জন এজাহারনামীয় ও ভিডিও ফুটেজ দেখে আরও ২০ জনের নাম অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। এ ঘটনায় দায়ের হওয়া মামলার ৩৮ আসামির মধ্যে ২৯ জন জামিনে থাকলেও বহিষ্কৃত মেয়র মিরু এখনও জেলহাজতে রয়েছেন।

ইউসুফ দেওয়ান রাজু/এএম/আইআই

আপনার মতামত লিখুন :