ভালোবেসে বিয়ে, অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রীকে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ

উপজেলা প্রতিনিধি উপজেলা প্রতিনিধি কালীগঞ্জ (গাজীপুর)
প্রকাশিত: ১২:৪৫ পিএম, ০২ ফেব্রুয়ারি ২০১৮

কালীগঞ্জ উপজেলার জাঙ্গালীয়া এলাকায় স্বামী মোবারক হোসেনের (২৬) বিরুদ্ধে চার মাসের অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রী আম্বিয়া খাতুনকে (২০) পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ উঠেছে। শুক্রবার সকালে নিহত গৃহবধূর পরিবার এ অভিযোগ করেন।

ওই গৃহবধূ উপজেলার জাঙ্গালীয়া ইউনিয়নের বিনিরাইল গ্রামের শামসুদ্দিনের মেয়ে। আর অভিযুক্ত স্বামী জাঙ্গালিয়া এলাকার আব্দুল বাতেনের ছেলে। নিহত আম্বিয়ার মরদেহ হাসপাতালে রেখে স্বামীসহ শ্বশুরবাড়ির লোকজন পলাতক রয়েছে।

নিহতের চাচাতো ভাই আব্দুল মান্নান জানান, তিন বছর আগে প্রেম করে আম্বিয়াকে বিয়ে করেন মোবারক। তাদের একটি এক বছরের কন্যা সন্তান রয়েছে। বৃহস্পতিবার বিকেলে পারিবারিক কলহের জেরে স্বামীসহ শ্বশুরবাড়ির লোকজন আম্বিয়াকে পিটিয়ে গুরুতর আহত করে। পরে হাসপাতালে নেওয়ার পথে তার মৃত্যু হলে স্বামী হাসপাতালে স্ত্রীর মরদেহটি রেখে কৌশলে পালিয়ে যায়। আম্বিয়া চার মাসের অন্তঃসত্ত্বা ছিলেন।

তিনি আরো জানান, হত্যার বিষয়টি ধামাচাপা দিতে একটি মহল উঠেপড়ে লেগেছে। তারা এখন হত্যাকে আত্মহত্যা বলে প্রচার করছে।

কালীগঞ্জ থানার পরিদর্শক মো. তরিকুল ইসলাম জানান, বাপের বাড়িতে বেড়াতে যাওয়ার আগে জুতা না কিনে দেয়াকে কেন্দ্র করে আম্বিয়ার সঙ্গে তার স্বামীর ঝগড়া হয়। পরে স্বামী কাজে চলে গেলে ভেতর থেকে দরজা আটকে ঘরের আড়ার সঙ্গে আম্বিয়া ফাঁস দেয়। বাড়ির লোকজন আম্বিয়াকে উদ্ধার করে সন্ধ্যায় হাসপাতালে নেয়। ঘটনার পর থেকে তার শ্বশুরবাড়ির লোকজন পালিয়ে গেছে।

গাজীপুর শহীদ তাজউদ্দীন আহমেদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসক প্রণয়ভূষণ দাস জানান, সন্ধ্যায় আম্বিয়াকে মৃত অবস্থায় হাসপাতালে আনা হয়। তার মরদেহ মর্গে রয়েছে। ময়নাতদন্তের পর মৃত্যুর প্রকৃত কারণ বলা যাবে।

কালীগঞ্জ থানার ওসি মো. আলম চাঁদ বলেন, এটা আত্মহত্যা। পিটিয়ে মারার কোনো লক্ষণ দেখা যায়নি।

আব্দুর রহমান আরমান/এফএ/পিআর

আপনার মতামত লিখুন :