গাজীপুরে বাড়িছাড়া বিএনপি নেতা-কর্মীরা

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি গাজীপুর
প্রকাশিত: ১০:২০ এএম, ০৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৮

গাজীপুরে পুলিশের গ্রেফতার আতঙ্কে বাড়িছাড়া রয়েছেন বিএনপি নেতাকর্মীরা। অনেকে আত্মগোপন করেছেন আবার অনেকে ও পালিয়ে বেড়াচ্ছেন। ফলে বিএনপি নেতাশূন্য হয়ে পড়েছে গাজীপুর। গত কয়েকদিন ধরে শহরের রাজবাড়ী সড়কে অবস্থিত দলীয় জেলা কার্যালয়ে নেতা-কর্মীদের তেমন আসা যাওয়া লক্ষ্য করা যাচ্ছে না। অফিস সহকারী রজব আলী অফিস খুললেও গ্রেফতার আতঙ্কে কোনো নেতাকর্মী কার্যালয়ে প্রবেশ করছেন না।

৮ ফেব্রুয়ারি বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার একটি দুর্নীতি মামলার রায় ঘোষণাকে কেন্দ্র করে গাজীপুরে যেকোনো ধরনের নাশকতা ও বিশৃঙ্খলা প্রতিরোধে পুলিশ সতর্ক অবস্থায় রয়েছে। গত ২৮ জানুয়ারি গাজীপুর শহরে দলের যৌথ কর্মীসভায় পুলিশের লাঠিচার্জের পর জেলা, মহানগর, উপজেলা, পৌরসভা ও ইউনিয়ন পর্যায়ের বিএনপি ও এর অঙ্গ সংগঠনের ৩৪৭ জনের বিরুদ্ধে বিশেষ ক্ষমতা আইনে মামলার পর এ অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে।

গাজীপুর জেলা বিএনপির স্বনির্ভর বিষয়ক সম্পাদক সাবেক ভিপি জয়নাল আবেদীন তালুকদার জানান, গত ২৮ জানুয়ারি জেলা শহরের ট্রাস্ট কমিউনিটি সেন্টারে দলের যৌথ কর্মীসভা ছিল। সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন সাবেক বিরোধী দলীয় চিফ হুইপ জয়নাল আবেদীন ফারুক। সভা শুরু হলে পুলিশ কমিউনিটি সেন্টার চারদিক থেকে ঘিরে কর্মীদের উপর বেপরোয়া লাঠিচার্জ করে। ১৭ জনকে ঘটনাস্থল থেকে আটক করে ১৪৭ জনের নাম উল্লেখ করে এবং অজ্ঞাত আরো দেড় থেকে দুইশ জনের নামে পুলিশ বাদী হয়ে মামলা করে।

মামলায় জয়নাল আবেদীন ফারুক, জেলা বিএনপির সভাপতি সাবেক এমপি ফজলুল হক মিলন ও সাধারণ সম্পাদক কাজী ছাইয়েদুল আলম বাবুলসহ জেলা, মহানগর, উপজেলা, পৌরসভা এবং ইউনিয়ন পর্যায়ের বিএনপি ও এর অঙ্গ সংগঠনের শীর্ষ নেতাদের আসামি করা হয়। মামলার পর অনেকের বাড়িতে অভিযান চালায় পুলিশ। গ্রেফতার এড়াতে মামলার আসামি ছাড়াও অন্য নেতাকর্মীরা এলাকা ছেড়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছেন।

তাদের অভিযোগ, ৮ ফেব্রুয়ারি বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার মামলার রায়কে কেন্দ্র করে বিএনপিকে চাপে রাখতেই মিথ্যা অভিযোগ তুলে তাদের বিরুদ্ধে মামলা দিয়ে এলাকাছাড়া করেছে পুলিশ।

নেতারা জানান, প্রতিদিনই পুলিশ নেতাকর্মীদের বাড়িতে বাড়িতে অভিযান চালাচ্ছে। বুধবার রাতেও পুলিশ বিএনপির কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য ডা. মাজাহারুল আলম, জেলা বিএনপির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সাখাওয়াত হোসেন সবুজ ও বিলুপ্ত পৌর বিএনপির সভাপতি মীর হালিমুজ্জামান ননীর বাড়িতে অভিযান চালিয়েছে। বাসায় না থাকায় পুলিশ তাদের পায়নি।

এভাবে প্রায় সকল নেতাদের বাড়িতে অভিযান চালাচ্ছে পুলিশ। গ্রেফতার ও নির্যাতনের ভয়ে তারা বাড়িতে এমনকি এলাকায় থাকতে পারছেন না। ওইদিন তাদের শান্তিপূর্ণ কর্মসূচি ছিল। নির্দয় লাঠিপেটা করে পুলিশ উল্টো তাদের নামেই মামলা দিয়েছে। বাড়িতে বাড়িতে অভিযান চালাচ্ছে।

এসব বিষয়ে পুলিশের এক কর্মকর্তা জানান, রাজনৈতিক কর্মসূচির নামে কোনো প্রকার নাশকতামূলক কর্মকাণ্ডের চেষ্টা করা হলে তা কঠোর হস্তে দমন করা হবে।

আমিনুল ইসলাম/এফএ/এমএস

আপনার মতামত লিখুন :