নরসিংদীতে বেগুনের কেজি ২ টাকা

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি নরসিংদী
প্রকাশিত: ০৬:২৫ পিএম, ০৩ এপ্রিল ২০১৮ | আপডেট: ০৬:৩৯ পিএম, ০৩ এপ্রিল ২০১৮
নরসিংদীতে বেগুনের কেজি ২ টাকা

বেগুনের অতিরিক্ত ফলন এখন নরসিংদীর কৃষকের বোঝা হয়েছে দাঁড়িয়েছে। কৃষকের মুখে হাসির বদলে, কান্নার কারণ হচ্ছে । বেগুনের বাজার দরে ধস নামায় কৃষকেরে এখন দিশেহারা। নরসিংদীর পাইকারী বাজারগুলোতে এখন প্রতি কেজি বেগুন বিক্রি হচ্ছে ২ টাকা দরে। মন বিক্রি হচ্ছে ৮০ থেকে ১১০ টাকায়। লাভতো দূরের কথা, বাজারে নেয়ার পরিবহন খরচও তুলতে পাড়ছেনা কৃষকরা। তারউপর ঋনের টাকার উপর চড়া সুদ। এর সুবিদা নিচ্ছে মধ্যস্বত্যভোগীরা।

কৃষি বিভাগ বলছে, এ বছর অনাবৃষ্টি, বেগুনের বাম্পার ফলন এবং আবাদি জমির পরিমাণ বৃদ্ধি কারণে সবজির উৎপাদন বেড়েছে। ফলে বেগুনের দাম কমে গেছে। তবে শিগগিরই বেগুনের দাম বাড়বে বলে আশাবাদী কৃষি কর্মকর্তারা।

Narsingdi-Sabji

কৃষকরা জানান, বিগত এক মাস ধরে জেলার পাইকারি বাজার বেলাবো উপজেলার বারৈচা, নারায়ণপুর, রায়পুরার জঙ্গী শিবপুর, শিবপুর উপজেলা সদর, সিএন্ডবি বাজার, পালপাড়া বাজারসহ সবজির সব পাইকারি বাজারে ন্যায্য দাম পাওয়া যাচ্ছে না। মৌসুমের শুরুতে প্রতি কেজি বেগুন ১৫ থেকে ২০ টাকা কেজিতে বিক্রি করতে পারলেও গত এক মাস ধরে বেগুনের দরপতন ঘটেছে। প্রতি কেজি বেগুন ২ থেকে ৩ টাকায় অর্থাৎ মণপ্রতি ৮০ থেকে ১২০ টাকায় বিক্রি করতে হচ্ছে। সার, কীটনাশক ও শ্রমিক খরচসহ প্রতি কেজি বেগুনের উৎপাদন মূল্য দাঁড়ায় ১০ থেকে ১৫ টাকা। এছাড়া এসব বেগুন বাজারে আনতে পরিবহন খরচও যুক্ত হয়। এক মাস ধরে বেগুনের ন্যায্য দাম না পাওয়ায় উৎপাদন খরচ দূরে থাক, পরিবহন খরচও উঠাতে পারছেন না কৃষকরা।

Narsingdi-Sabji

সবজির পাইকারী বাজার থেকে জানা যায়, কেউ ভ্যানগাড়ি, কেউ ইজিবাইক, কেউবা পিকআপ ভ্যানে ভরে বেগুন নিয়ে হাজির হয়েছেন বাজারে। বেগুনের পর্যাপ্ত সরবরাহ থাকলেও পাইকারি ক্রেতাদের মধ্যে এসব বেগুন কেনায় উৎসাহ ছিল কম। কদর না থাকায় কৃষকরা অনেকটা হতাশ হয়েই পাইকারি ক্রেতার অপেক্ষায় বসে আছেন।

বেগুন চাষি মো. করিম মিয়া বলেন, বেগুন ক্ষেতে নিয়মিত সার, কীটনাশক প্রয়োগ করতে হয়, যা অনেক ব্যয়বহুল। দাম বাড়ার আশায় এক মাস ধরে নিয়মিত জমির পরিচর্যা করতে গিয়ে ঋণগ্রস্থ হয়ে পড়েছি।

নরসিংদীর কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের উপ-পরিচালক মো. লতাফত হোসেন বলেন, এ বছর বেগুনের বাম্পার ফলন হয়েছে। তার উপর আবাদি জমির পরিমাণ বৃদ্ধি পেয়েছে। তাই লক্ষ মাত্রার চেয়েও বেগুনের ফলন বেশি এসেছে। ফলে বেগুনের দাম কমে গেছে। তবে ঈদের প্রাককালে পুনরায় বেগুনের দাম বেড়ে যাবে।

সঞ্জিত সাহা/আরএ/এমএস