গাজীপুর সিটি নির্বাচন : মনোনয়ন জমা দিলেন প্রার্থীরা

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি গাজীপুর
প্রকাশিত: ০৯:১৮ পিএম, ১২ এপ্রিল ২০১৮

উৎসবমুখর পরিবেশে গাজীপুর সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন মেয়র, সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর ও সাধারণ ওয়ার্ড কাউন্সিলর প্রার্থীরা।

বৃহস্পতিবার সকাল থেকে দুই মেয়র প্রার্থী বিএনপি মনোনীত হাসান উদ্দিন সরকার ও আওয়ামী লীগ মনোনীত মো. জাহাঙ্গীর আলম দলীয় নেতাকর্মীদের নিয়ে শহরে নিজ নিজ দলীয় কার্যালয়ে এসে হাজির হন। সেখানে সিটি কর্পোরেশনে বিভিন্ন এলাকা থেকে দলীয় নেতাকর্মীরা এসে জড়ো হন। তারা দলীয় প্রতীকের পক্ষে বিভিন্ন স্লোগান দেন।

দুই বড় রাজনৈতিক দলের দলীয় কার্যালয় জেলা শহরের প্রাণ কেন্দ্র রাজবাড়ি রোডে অবস্থিত থাকায় নেতাকর্মী ও সমর্থকদের ভিড়ে গাজীপুর কার্যত অচল হয়ে যায়। বিপুল সংখ্যক নেতাকর্মীদের ভিড় সামলাতে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের হিমশিম খেতে হয়েছে।

আওয়ামী লীগ-বিএনপির নেতাকর্মী ও সমর্থক ছাড়াও বিপুল সংখ্যক কাউন্সিলর প্রার্থীদের সমর্থকদের ভিড়ে গাজীপুরের প্রধান সড়কগুলো অবরুদ্ধ হয়ে যায়। তীব্র যানজটে থমকে যায় গাজীপুর শহর। এতে চরম ভোগান্তিতে পড়ে সাধারণ মানুষ। তারপরও নির্বাচন উপলক্ষে জেলা শহরে একটি উৎসবমুখর পরিবেশ বজায় থাকায় সাধারণ মানুষ তাদের এ ভোগান্তি মেনে নিয়েছে।

বেলা ১১টার দিকে জেলা শহরের দলীয় কার্যালয়ে মোনাজাত শেষে ৫ জনের একটি প্রতিনিধি দল নিয়ে শহরের বঙ্গতাজ অডিটরিয়ামে স্থাপিত রিটার্নিং অফিসারের কার্যালয়ে মনোনয়নপত্র জমা দিতে যান ধানের শীষের প্রার্থী বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতা সাবেক এমপি মুক্তিযোদ্ধা হাসান উদ্দিন সরকার। বেলা সোয়া ১১টার দিকে তিনি রিটার্নিং অফিসারের হাতে তিনি তার মনোনয়পত্র তুলে দেন। এ সময় তার সঙ্গে গাজীপুর জেলা বিএনপির সভাপতি ফজলুল হক মিলন, সাধারণ সম্পাদক কাজী ছাইয়েদুল আলম বাবুল, কেন্দ্রীয় সদস্য ডা. মাজহারুল আলম, সহ-সভাপতি সালাহ উদ্দিন সরকার, সিনিয়র যুগ্ম সম্পাদক শিল্পপতি মো. সোহরাব উদ্দিন, মীর হালীমুজ্জামান ননী প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

মনোনয়নপত্র জমাদানের পর অপেক্ষমান সাংবাদিকদের হাসান উদ্দিন বলেন, দেশের এ ক্রান্তিকালে সাধারণ মানুষ গাজীপুর সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনের দিকে তাকিয়ে আছে। দেশপ্রেমিক গাজীপুরবাসীও এ নির্বাচনে বিএনপিকে সহযোগিতা করবে। এখন পর্যন্ত নির্বাচনের পরিবেশ সন্তোষজনক। ইসির কথা-কাজে মিল থাকলে নির্বাচনী পরিবেশ সুষ্ঠু থাকবে।

মেয়র অধ্যাপক আবদুল মান্নান প্রসঙ্গে হাসান উদ্দিন সরকার বলেন, বর্তমান মেয়র অধ্যাপক আবদুল মান্নানকে কাজ করার সুযোগ দেয়া হয়নি। তিনি বিভিন্ন মামলায় দীর্ঘদিন কারাগারে ছিলেন।

এদিকে বৃহস্পতিবার সকাল থেকেই শহরে আওয়ামী লীগের দলীয় কার্যালয়ে নেতাকর্মীরা ভিড় করতে থাকেন। সেখানে মেয়র প্রার্থী ও মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মো. জাহাঙ্গীর আলম দলীয় নেতাকর্মীদের নিয়ে কার্যালয়ে আসেন। সেখানে নেতাকর্মীদের সঙ্গে কথা বলে দুপুর সোয়া ১টার দিকে রিটার্নিং অফিসারের কাছে তাঁর মনোনয়নপত্র জমা দেন। এ সময় উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের গাজীপুর মহানগর কমিটির সভাপতি অ্যাডভোকেট আজমত উল্লাহ খান, জেলা আওয়ামী লীগের সাধাধারণ সম্পাদক ইকবাল হোসেন সবুজ, আওয়ামী লীগ নেতা কাজী আলিম উদ্দিন বুদ্দিন, আব্দুল হাদী শামীম, অ্যাডভোকেট আমানত হোসেন খান প্রমুখ।

Gazipur-BNP

পরে আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকার প্রার্থী জাহাঙ্গীর আলম সাংবাদিকদের জানান, আমরা আওয়ামী লীগ ঐক্যবদ্ধ আছি। সবাইকে নিয়ে নির্বাচন করতে চাই। আমরা সারাদেশকে দেখিয়ে দিতে চাই গাজীপুরের মানুষ সকলেই ঐক্যবদ্ধ আছি।

তিনি বলেন, গাজীপুরকে একটি আধুনিক শহর হিসেবে গড়ে তুলতে আমরা কেন্দ্রীয় সরকার ও স্থানীয় সরকার পরিকল্পনা গ্রহণ করছি। সকলের সঙ্গে পরামর্শ করে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে উন্নয়ন কাজ করা হবে।

উল্লেখ্য, ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী আগামী ১৫ মে গাজীপুর সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। নির্বাচনে অংশগ্রহণকারী প্রার্থীদের মনোনয়ন জমাদানের শেষ তারিখ ছিল আগামী ১২ এপ্রিল। মনোনয়ন যাচাই-বাচাই করা হবে ১৫ ও ১৬ এপ্রিল। প্রার্থিতা প্রত্যাহার ২৩ এপ্রিল এবং পরদিন ২৪ এপ্রিল প্রার্থিদের মধ্যে প্রতীক বরাদ্দ করা হবে।

৫৭টি সাধারণ ওয়ার্ড এবং ১৯টি সংরক্ষিত ওয়ার্ড নিয়ে গাজীপুর সিটি কর্পোরেশন। এর আয়তন ৩২৯ দশমিক ৫৩ বর্গ কিলোমিটার। এখানকার ভোটার সংখ্যা ১১ লাখ ৬৪ হাজার ৪২৫ জন। তার মধ্যে পুরুষ ৫ লাখ ৯১ হাজার ১০৭ জন। মহিলা ৫ লাখ ৭৩ হাজার ৩১৮ জন। মোট ভোট কেন্দ্র ৩৯২টি।

আমিনুল ইসলাম/আরএআর/পিআর

আপনার মতামত লিখুন :