বন্ধুকে দিয়ে স্ত্রীকে ধর্ষণের পর ন্যাড়া করে দেয়া স্বামী গ্রেফতার

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক বগুড়া
প্রকাশিত: ০৯:৫৭ পিএম, ১৬ ফেব্রুয়ারি ২০২০

বগুড়ার শাজাহানপুরে বন্ধুকে দিয়ে ধর্ষণের পর স্ত্রীকে পুড়িয়ে মারা চেষ্টার ঘটনায় দায়ের করা মামলার প্রধান আসামি স্বামী রফিকুল ইসলামকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। রোববার দুপুরে বগুড়া শহরের ঠনঠনিয়া এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতারকৃত আসামি রফিকুল ইসলাম বগুড়ার গাবতলী উপজেলার মালিয়ান ডাংগা গ্রামের তোজাম্মেল হকের ছেলে।

এর আগে ভুক্তভোগী ওই নারীর বাবা আলম মন্ডল বাদী হয়ে মেয়ের স্বামী রফিকুল ইসলাম ও স্বামীর অজ্ঞাতনামা বন্ধুকে আসামি করে রোববার সকালে শাজাহানপুর থানায় মামলা করেন।

বাদী তার এজাহারে উল্লেখ করেন, বগুড়ার গাবতলী উপজেলার মালিয়ান ডাংগা গ্রামের তোজাম্মেল হকের ছেলে রফিকুল ইসলামের সঙ্গে তার মেয়েকে বিয়ে দেন। বিয়ের পর থেকেই বগুড়া শহরের বিভিন্নস্থানে তারা বাসা ভাড়া নিয়ে বসবাস করতো। সংসার করাকালে তাদের মধ্যে বিভিন্ন কারণে মনোমালিন্য সৃষ্টি হয়। এ নিয়ে প্রায়ই তার মেয়েকে মারধর করতো। এ ঘটনায় ২০১৮ সালে তার মেয়ে আদালতে নারী নির্যাতনের মামলা দায়ের করেন। বর্তমানে তার মেয়ে কলোনী চকলোকমান এলাকায় ভাড়া বাসায় ৭ বছর বয়সি মেয়েকে নিয়ে বসবাস করে আসছে। এমতাবস্থায় শনিবার দুপুরে মেয়ের স্বামী রফিকুল ইসলাম ও তার এক বন্ধুকে নিয়ে প্রাচীর টপকে বাসার ভেতরে ঢুকে প্রথমে হাত ও মুখ বেধে মারপিট করে। এরপর বন্ধুকে দিয়ে ধর্ষণ করায়। এক পর্যায়ে মাথার এক পাশে ন্যাড়া করে দিয়ে শরীরে আগুন ধরিয়ে পুড়িয়ে মারা চেষ্টা করে।

থানা পুলিশের ওসি আজিম উদ্দীন মামলা দায়েরের বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, মামলার প্রধান আসামি রফিকুল ইসলামকে গ্রেফতার করা হয়েছে। মেয়েটির ডাক্তারি পরীক্ষার রিপোর্ট হাতে পৌঁছায়নি। রিপোর্ট হাতে পেলে ধর্ষণের বিষয়টি নিশ্চিত হওয়া যাবে।

এমএএস/এমকেএইচ