বাড়ছে পদ্মার পানি

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি রাজবাড়ী
প্রকাশিত: ১১:৪৩ এএম, ১৬ জুলাই ২০২০

রাজবাড়ীর তিনটি গেজ স্টেশন পয়েন্টের মধ্যে পাংশার সেনগ্রাম ও গোয়ালন্দের দৌলতদিয়া পয়েন্টে পদ্মার পানি বিপৎসীমার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। গত ২৪ ঘণ্টায় সেনগ্রাম পয়েন্টে ২৭ সেন্টিমিটার বৃদ্ধি পেয়ে ২৮ সেন্টিমিটার ও দৌলতদিয়া পয়েন্টে ২৫ সেন্টিমিটার বৃদ্ধি পেয়ে বিপৎসীমার ৮৩ সেন্টিমিটার ওপর রয়েছে পদ্মার পানি। এছাড়া সদর উপজেলা মহেন্দ্রপুর গেজ স্টেশন পয়েন্টে পদ্মার পানি বিপৎসীমা ছুঁই ছুঁই করছে।

বৃহস্পতিবার সকালে রাজবাড়ী পানি উন্নয়ন বোর্ডের ডাটা এন্ট্রি অপারেটর মো. ইউছুফ আলী খান এ তথ্য জানান।

জানা গেছে, জেলার পাংশার হাবাসপুর, বাহাদুরপর, কালুখালীর কালিকাপুর, রতনদিয়া, সদরের মিজানপুর, বরাট ও গোয়ালন্দের ছোট ভাকলা, দেবগ্রাম ও দৌলতদিয়া ইউনিয়নের হাজার হাজার মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েছেন। এছাড়া পানিতে তলিয়ে গেছে নদী তীরবর্তী বিস্তীর্ণ এলাকার ফসলি জমিসহ নিচু এলাকার রাস্তা-ঘাট। কোথাও কোথাও বসতবাড়িতেও পানি উঠেছে।

বিস্তীর্ণ এলাকা তলিয়ে যাওয়ায় দেখা দিয়েছে গবাদি পশুর খাদ্য সংকট এবং নষ্ট হয়েছে বীজতলাসহ বিভিন্ন ফসল ও সবজি খেত। এছাড়া খাওয়া-দাওয়া ও চলাচলসহ নানান সমস্যায় পড়ছেন এসব এলাকার বাসিন্দারা।

রাজবাড়ীর জেলা প্রশাসক দিলসাদ বেগম বলেন, এখন পর্যন্ত পানিবন্দিদের তালিকা প্রস্তুত হয়নি। তবে বন্যা পরিস্থিতি মোকাবেলায় সরকারে দেয়া ১৫০ মেট্রিক টন চাল, নগদ আড়াই লাখ টাকা, গোখাদ্য, শিশু খাদ্যসহ শুকনো খাবার মজুদ রয়েছে। শুখনো খাবার, শিশু খাদ্য, গোখাদ্য উপজেলা পর্যায়ে বন্টন করেছেন। এছাড়া গোয়ালন্দের ৮শ পরিবারকে ইতোমধ্যে ত্রাণ সহায়তা দিয়েছেন এবং পর্যায়ক্রমে তালিকা করে ক্ষতিগ্রস্তদের সহায়তা দেবেন।

রুবেলুর রহমান/এফএ/পিআর

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]