বাদামবিক্রেতার ছেলের মেডিকেলে পড়ার দায়িত্ব নিলেন সাবেক এমপি

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি ফরিদপুর
প্রকাশিত: ০৫:৫০ পিএম, ১৫ এপ্রিল ২০২১

ফরিদপুর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল কলেজে ভর্তির সুযোগ পেয়েছেন বাদাম বিক্রেতার ছেলে ভুপেন্দ্র অধিকারী। কিন্তু অর্থাভাবে তার মেডিকেল কলেজে ভর্তিতে দেখা দেয় চরম অনিশ্চয়তা। তার স্বপ্ন পূরণে এগিয়ে এসেছেন ফরিদপুর-১ আসনের সাবেক সংসদ সদস্য আব্দুর রহমান। তিনি ভুপেন্দ্রের মেডিকেলে পড়াশোনার যাবতীয় দায়িত্বভার গ্রহণ করেন।

আওয়ামী লীগ নেতা আব্দুর রহমান বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

jagonews24

নীলফামারীর ডিমলা উপজেলার খালিশা চাপানী ইউনিয়নের দিঘির পাড় গ্রামের মতিলাল অধিকারী ও বাসন্তী অধিকারীর সাত সন্তানের মধ্যে ভুপেন্দ্র পঞ্চম। বড় দুই ভাই রিকশা চালান। ভুপেন্দ্রর বাবা মতিলাল অধিকারী একজন বাদাম বিক্রেতা এবং মা গৃহিণী। এতোদিন তার বাবা বাদাম বিক্রি করে ভূপেন্দ্রর পড়াশোনার খরচ চালিয়েছেন। এখন বয়স হওয়ায় বাদামের ব্যবসা করার সক্ষমতাও তার আর নেই। বিষয়টি গণমাধ্যম ও স্থানীয় ছাত্রলীগ সূত্রে জানতে পারেন সাবেক এমপি আব্দুর রহমান। তিনি বৃহস্পতিবার (১৫ এপ্রিল) ভিডিও কলের মাধ্যমে ভুপেন্দ্র ও তার পরিবারের সঙ্গে কথা বলে তার মেডিকেলে ভর্তির দায়িত্ব নেন।

আব্দুর রহমান ভুপেন্দ্রের বাবা মতিলাল অধিকারীকে বলেন, ‘আপনাদের অনেক কষ্টের বিনিময়ে আপনাদের ছেলে মেডিকেল চান্স পেয়েছে। এজন্য আপনাদের অভিনন্দন এবং শ্রদ্ধা জানাই। আপনারা ভাববেন না, ওর মেডিকেলে পড়াশোনার যাবতীয় দায়িত্ব জননেত্রী শেখ হাসিনার পক্ষে আমি নিলাম। শুধু তাকে নিয়মিত পড়াশোনাটা করতে বলবেন।’

jagonews24

ভুপেন্দ্রের মা বাসন্তী অধিকারীকে তিনি বলেন, ‘অর্থনৈতিক সমস্যা এটা কোনো সমস্যাই না। আমি তার সঙ্গে আছি। সে পড়াশোনা করে আপনাদের স্বপ্ন পূরণ করবে এবং দেশের মানুষের জন্য কাজ করবে, এটাই আমি চাই।’

ভুপেন্দ্র অধিকারী এসময় তার পড়াশোনার যাবতীয় দায়িত্ব নেয়ার জন্য আওয়ামী লীগের নেতা আব্দুর রহমানের কাছে তিনি তার চিরকৃতজ্ঞতার কথা জানান। তখন আব্দুর রহমান বলেন, ‘তুমি কোনো কিছু নিয়ে ভাববে না। যখন যা লাগবে তখন তোমার জন্য তা ব্যবস্থা করা হবে। নিয়মিত পড়াশোনা করে মা-বাবার স্বপ্ন পূরণের জন্য তোমাকে এগিয়ে যেতে হবে। এসময় তিনি তার সঙ্গে যোগাযোগের জন্য ভুপেন্দ্রে অধিকারীকে তার ব্যক্তিগত ফোন নম্বরও দেন।

এসআর/জিকেএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]