গণতন্ত্র রক্ষা করুন : বিদায়ী ভাষণে ওবামা


প্রকাশিত: ১২:৩১ পিএম, ১১ জানুয়ারি ২০১৭
গণতন্ত্র রক্ষা করুন : বিদায়ী ভাষণে ওবামা

দীর্ঘ আট বছরের ক্ষমতার অবসান হলো। নিজে কাঁদলেন, দেশবাসীকেও কাঁদালেন। জাতির উদ্দেশে বিদায়ী মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামার ভাষণে যেন এক আবেগঘন পরিবেশ তৈরি হলো।

সব সময়ই গণতন্ত্রকে রক্ষার তাগিদ দেখিয়েছেন তিনি। বিদায় বেলাতেও এর ব্যাতিক্রম ঘটেনি। শেষ ভাষণেও মার্কিন জনগণকে গণতন্ত্র রক্ষার আহ্বান জানালেন তিনি। গণতন্ত্র বার বার হুমকির মুখে পড়েছে বলেও সবাইকে সতর্ক করলেন বিদায়ী প্রেসিডেন্ট।

ভেদাভেদ ভুলে সবাইকে একত্রে কাজ করার আহ্বান জানান ওবামা। পরস্পরের মতামতকে শ্রদ্ধা ও সম্মান করে এক সঙ্গে চলার আহ্বান জানিয়ে ওবামা বলেন, ‘অন্যদের প্রতি আমাদের মনোযোগী হতে হবে। নিজের কথা না ভেবে অন্যদের বিষয়েও ভাবতে হবে। অন্যদের কথাও শুনতে হবে।’

obama

বাংলাদেশ সময় বুধবার সকালে মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা শিকাগোতে তার বিদায়ী ভাষণ দেন। ভাষণ দেওয়ার জন্য শিকাগোকে বেছে নেয়ার কারণ হিসেবে ওবামা জানিয়েছেন, তিনি যেখান থেকে শুরু করেছিলেন সেখানেই শেষ করতে চেয়েছেন।

বর্ণবাদ সমস্যা নিরসনে মার্কিন প্রশাসনকে আরো বেশি দায়িত্বশীল হওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন ওবামা। শিকাগোতে হাজার হাজার সমর্থকের উদ্দেশে তিনি বলেন, প্রায় সব বিবেচনাতেই আট বছর আগের তুলনায় আমেরিকা এখন ভাল ও শক্তিশালী দেশ।

ওবামার বিদায়ী ভাষণ শুনতে শিকাগোতে অসংখ্য মানুষ জড়ো হন। শীতের তীব্রতা উপেক্ষা করে প্রিয় প্রেসিডেন্টের বক্তব্য শোনেন আমেরিকানরা।

obama

শেষ ভাষণে মিশেলকে উদ্দেশ্য করে ওবামা বলেন, তুমি শুধু আমার সহধর্মিণী নও, আমার একজন ভাল বন্ধুও। যাকে সুখে-দুঃখে সব সময় পাশে পেয়েছি। তোমার কাজ আমাকে যেমন গর্বিত করেছে, তেমনি দেশকেও গর্বিত করেছে। হোয়াইট হাউজে থাকা অবস্থায় মিশেলকে কোনো কাজের জন্য কখনো বলতে হয়নি। সব সময় নিজ দায়িত্বে যত্ন নিয়ে সব কাজ করেছেন তিনি।

ওবামা জনগণকে তার পাশে থাকার জন্য ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, ‘আমি আপনাদের কাছ থেকেই শিখেছি। আপনারা আমাকে একজন ভালো প্রেসিডেন্ট হতে সাহায্য করেছেন। আপনারা পাশে ছিলেন বলেই আমি একজন ভালো মানুষে পরিণত হয়েছি।’

মুসলিম হোক কিংবা মেক্সিকান, অভিবাসীরা যুক্তরাষ্ট্রকে প্রতিনিয়ত সমৃদ্ধ করছে। তাদের প্রতি অবহেলা-বৈষম্যের বিন্দুমাত্র সুযোগ নেই বলে উল্লেখ করেছেন ওবামা। প্রায় বিশ হাজারের বেশি দর্শক সরাসরি সামনে বসেই ওবামার ভাষণ শুনেছেন।

টিটিএন/পিআর