স্কুল ভবন ধসে প্রাণ গেল ৭ শিশুর, আহত ৫৭

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
আন্তর্জাতিক ডেস্ক আন্তর্জাতিক ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৩:৫৪ পিএম, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯

কেনিয়ার রাজধানী নাইরোবিতে একটি স্কুল ভবনের ছাদ ধসে অন্তত সাত শিশু শিক্ষার্থী প্রাণ হারিয়েছে। শ্রেণিকক্ষের ছাদ ধসে পড়ার ওই ঘটনায় আরও অর্ধশতাধিক শিশু শিক্ষার্থী আহত হয়ে চিকিৎসাধীন। দেশটির জরুরি সেবা বিভাগের বরাতে এ খবর জানিয়েছে কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আলজাজিরা।

আলজাজিরার প্রতিবেদন অনুযায়ী, দ্বিতল ভবনের ওই স্কুলটির নাম প্রিসিয়াস ট্যালেন্ট টপ স্কুল। স্থানীয় সময় সোমবার সকাল সাতটায় ক্লাস শুরু হওয়ার কয়েক মিনিট পর শ্রেণিকক্ষের ছাদ ধসে পড়লে এই হতাহতের ঘটনা ঘটে।

আন্তর্জাতিক দাতব্য সংস্থা রেডক্রসের কেনিয়া শাখার জনসংযোগ ও যোগাযোগ বিষয়ক ব্যবস্থাপক পিটার আবো আলজাজিরাকে বলেন, ‘আমরা এখন পর্যন্ত যা জানতে পেরেছি তাতে সাত শিক্ষার্থী নিহত হওয়ার ব্যাপারে আমরা নিশ্চিত হয়েছি। আহত হয়েছে আরও ৫৭ জন।’

কেনিয়া রেডক্রস জানিয়েছে, উদ্ধার অভিযান অব্যাহত রয়েছে। জানা গেছে, ভবনের ভেতরে এখনো অনেকে আটকা রয়েছে। আবো বলেন, ‘যখন ভবন ধসের ঘটনা ঘটে তখন উপর তলাতেও অনেক শিক্ষার্থী ছিল। আমরা সব শিক্ষার্থীকে নিরাপদে বের করে আনার চেষ্টা করছি।’

পিটার আবো বলেন, কর্মকর্তাদের দেয়া তথ্য অনুযায়ী ওই স্কুলটিতে মোট শিক্ষার্থীর সংখ্যা প্রায় ৮০০ জন। যাদের বয়স ১৪ বছরের কম। স্থানীয় একজন আইনপ্রণেতা রাজধানী ভিত্তিক জাতীয় টেলিভিশন এনটিভিকে বলেন, ‘স্কুলভবনের উপরের তলা ধসে পড়ায় নীচে অনেক শিক্ষার্থী আটকা পড়েছে।’

তবে কী কারণে ভবন ধসের ঘটনাটি ঘটলো তা এখনো জানা যায়নি। কিন্তু কর্তৃপক্ষ এর আগে জানিয়েছিল, রাজধানী নাইরোবিতে ৩০ থেকে ৪০ হাজার ঝুঁকিপূর্ণ ভবন রয়েছে। যেগুলো কর্তৃপক্ষের কোনো ধরনের অনুমোদন ছাড়াই নির্মাণ করা হয়েছে।

কেনিয়া সরকারের মুখপাত্র সাইরাস ওগুয়া ভবন ধসে সাতজন নিহত হওয়ার খবর নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলছেন, ভবনের ভেতর আটকাদের নিরাপদে বের করে আনার চেষ্টা করছে কর্তৃপক্ষ। এছাড়া আহত হয়ে যারা হাসপাতালে রয়েছেন তাদের যথাযথ চিকিৎসার নির্দেশ দিয়েছে সরকার।

এসএ/জেআইএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]