দিল্লির সহিংসতা বিজেপির পরিকল্পিত গণহত্যা: মমতা

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
আন্তর্জাতিক ডেস্ক আন্তর্জাতিক ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৫:২২ পিএম, ০২ মার্চ ২০২০

দিল্লির রক্তাক্ত সহিংসতার ঘটনায় ভারতের ক্ষমতাসীন রাজনৈতিক দল ভারতীয় জনতা পার্টির (বিজেপি) তীব্র সমালোচনা করেছেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। রাজধানী নয়াদিল্লির সাম্প্রদায়িক সহিংসতাকে বিজেপির ‘পরিকল্পিত গণহত্যা’ বলে অভিহিত করেছেন তিনি।

আজ সোমবার তৃণমূল কংগ্রেসের এই নেত্রী বলেন, এটি একটি পরিকল্পিত গণহত্যা। কিন্তু বিজেপি এজন্য এখনও ক্ষমা চায়নি। এবং তারা নির্লজ্জের মতো পশ্চিমবঙ্গে এসে বলছে, তারা বাংলা দখল করতে চায়।

মমতা বলেন, ‘চলুন আজ একটি অঙ্গীকার করি। এই স্বৈরাচারী সরকারকে উৎখাত না করা পর্যন্ত আমরা থামবো না।’

এর আগে রোববার দেশটির কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ পশ্চিমবঙ্গে গিয়ে এক সমাবেশে তৃণমূল কংগ্রেস নেত্রীর তীব্র সমালোচনা করেন। এই রাজ্যে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় দাঙ্গা উসকে দিচ্ছেন বলে অভিযোগ করেন অমিত শাহ। এই অভিযোগের পরদিন মমতা দিল্লির সহিংসতা নিয়ে বিজেপিকে আক্রমণ করলেন।

রোববার অমিত শাহর সমাবেশে দিল্লি দাঙ্গার সঙ্গে এক হয়ে যাওয়া ‘বিশ্বাসঘাতকদের গুলি করে মারো’ স্লোগান দেন বিজেপির কর্মী-সমর্থকরা। এ ব্যাপারে মমতা বলেন, আমি জানি গতকাল বিজেপির সমাবেশে আসা কিছু মানুষ গুলি মারো স্লোগান দিয়েছেন। এটা বেআইনি। এবং আমি আশ্বস্ত করেছি, যারা এ ধরনের ভাষা ব্যবহার করবেন; তারা বিচারের মুখোমুখি হবেন।

তৃণমূল কংগ্রেসের এই নেত্রী বলেন, দিল্লিতে বিজেপির যে নেতারা উসকানিমূলক স্লোগান দিয়েছেন, তাদের এখনও গ্রেফতার করা হয়নি। কিন্তু কলকাতায় গুলি মারো স্লোগান দেয়ার কারণে বিজেপির তিন কর্মীকে রোববার রাতে গ্রেফতার করা হয়েছে।

উসকানিমূলক স্লোগান দেয়ার পরও বিজেপির নেতাদের কেন গ্রেফতার করা হচ্ছে না, সেই প্রশ্ন তোলেন মমতা। তিনি বলেন, অনেক মানুষের প্রাণহানি সত্ত্বেও কেন ভয়াবহ উসকানিদাতা বিজেপি নেতাদের এখনও গ্রেফতার করা হলো না।

গত রোববার নয়াদিল্লির উত্তর-পূর্বাঞ্চলের একাধিক এলাকায় দেশটির কট্টর হিন্দুত্ববাদীদের সঙ্গে নাগরিকত্ব সংশোধনী আইনবিরোধীদের সংঘাত শুরু হয়। টানা চারদিন চলা এ সংঘাতের লক্ষ্যবস্তুতে পরিণত হয় সংখ্যালঘু মুসলিমদের বাড়ি-ঘর, দোকানপাট, মসজিদ ও অন্যান্য প্রতিষ্ঠান।

মুসলিমদের বাড়িঘর, দোকানপাটে অগ্নিসংযোগ ও লুটপাট চালায় উগ্র হিন্দুত্ববাদী সংগঠন রাষ্ট্রীয় স্বয়ংসেবক (আরএসএস) ও বিজেপির কর্মী-সমর্থকরা। ভয়াবহ এই সংঘাতে এখন পর্যন্ত ৪৬ জনের প্রাণহানি ঘটেছে। দিল্লির বিভিন্ন নর্দমায় এখনও মানুষের মরদেহ মিলছে। রোববার সন্ধ্যার দিকে দিল্লির দুটি নর্দমা থেকে তিনজনের মরদেহ উদ্ধার করা হয়।

দিল্লির এই সহিংসতার ঘটনায় পুলিশ শতাধিক এফআইআর দায়ের করেছে। এছাড়া গ্রেফতার করা হয়েছে ছয় শতাধিক মানুষকে। কিন্তু দিল্লি সহিংসতার মূল উসকানিদাতা বিজেপির স্থানীয় নেতা কপিল মিশ্র এখনও রয়েছেন ধরা ছোঁয়ার বাইরে।

সূত্র : ইন্ডিয়া ট্যুডে।

এসআইএস/এমকেএইচ

টাইমলাইন  

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]