EN
  1. Home/
  2. আন্তর্জাতিক

করোনাভাইরাস : চীনে বন্য প্রাণী কেনা-বেচায় নিষেধাজ্ঞা

আন্তর্জাতিক ডেস্ক | প্রকাশিত: ০২:১৯ পিএম, ২৬ জানুয়ারি ২০২০

সময়ের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে চীনে করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ছে। ইতোমধ্যেই সেখানে ৫৬ জনের মৃত্যু হয়েছে। এদিকে এই ভাইরাসের প্রকোপ ঠেকাতে ইতোমধ্যেই বন্যপ্রাণী কেনা-বেচায় নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে চীন।

দেশের বাজার নজরদারি, কৃষি মন্ত্রণালয় এবং বন্যপ্রাণী বিষয়ক ব্যুরো এক যৌথ বিবৃতিতে জানিয়েছে, দেশের মার্কেট, সুপার মার্কেট, রেস্টুরেন্ট এবং ই-কমার্স সাইটে বন্যপ্রাণী কেনা-বেচা নিষিদ্ধ করা হয়েছে।

রোববার থেকেই এই নিষেধাজ্ঞা কার্যকর হয়েছে। গত ডিসেম্বরে চীনের উহান শহরেই প্রথম এই ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব ঘটে। তারপর থেকেই চীনের বিভিন্ন শহরে এই ভাইরাস ছড়িয়ে পড়েছে। একটি সামুদ্রিক বাজার থেকেই ওই ভাইরাস ছড়িয়ে পড়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। এখন পর্যন্ত এই ভাইরাসে ৫৬ জনের মৃত্যু হয়েছে। এর মধ্যে অধিকাংশই উহানের বাসিন্দা।

উহানে এক কোটি ১০ লাখ মানুষের বাস। সেখান থেকে এই ভাইরাস খুব দ্রুত ছড়িয়ে পড়ছে। তবে সরকার যতটা বলছে তার চেয়েও পরিস্থিতি আরও ভয়াবহ হয়ে পড়েছে। এখন পর্যন্ত সেখানে প্রায় এক লাখ মানুষ করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন বলে এক চিকিৎসা কর্মী দাবি করেছেন। উহান থেকে এই ভাইরাসের বিস্তার রোধ করতে গণপরিবহন, বিমান চলাচল ও রেল সেবা বাতিল করা হয়েছে।

উহান শহরের হাসপাতালে কর্মরত এক নার্সের দাবি, সেখানে ইতোমধ্যেই এক লাখ মানুষ করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। মাস্ক পরে হাসপাতালে রোগীদের চিকিৎসায় নিয়োজিত রয়েছেন ওই নার্স। তিনি বলছেন, সরকারিভাবে যে সংখ্যা বলা হচ্ছে প্রকৃতপক্ষে আক্রান্তের সংখ্যা আরও কয়েক গুণ বেশি।

চীনে প্রাদুর্ভাব ঘটলেও বর্তমানে অস্ট্রেলিয়া, নেপাল, মালয়েশিয়া, ভিয়েতনাম, সিঙ্গাপুর, জাপান, দক্ষিণ কোরিয়া, তাইওয়ান, থাইল্যান্ড, ফ্রান্স এবং যুক্তরাষ্ট্রেও লোকজন এই ভাইরাসে আক্রান্ত হচ্ছে। সম্প্রতি ইসরায়েলে এক ব্যক্তি এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন বলে সন্দেহ করছে কর্তৃপক্ষ।

যে প্রাণীর শরীরে বাসা বাঁধার পর ভাইরাস ছড়াচ্ছে তা নির্ণয় করা গেলে সমস্যার সমাধান অনেকটাই সহজ হয়ে যায়। নতুন করোনাভাইরাসের ক্ষেত্রে এর উৎস হচ্ছে উহান শহরে সামুদ্রিক খাবারের পাইকারি বাজার। ধারণা করা হচ্ছে, বেলুগা তিমির মতো সমুদ্রগামী কিছু স্তন্যপায়ী প্রাণী এই ভাইরাস বয়ে এনেছে। তবে বাজারে অহরহ বিচরণ করা মুরগি, বাদুর, খরগোশ, সাপের মতো প্রাণীগুলোও সন্দেহের বাইরে নয়। আর সে কারণেই কর্তৃপক্ষ সব ধরনের বন্যপ্রাণী কেনা-বেচায় নিষেধাজ্ঞা এনেছে।

করোনা ভাইরাস আক্রান্ত হওয়ার লক্ষণ কী?
এ ভাইরাসে আক্রান্ত হলে শুরুতে জ্বর ও শুষ্ক কাশি হতে পারে। এর সপ্তাহখানেক পর শ্বাসকষ্টও দেখা দেয়। অনেক সময় নিউমোনিয়াও হতে পারে। কিছু কিছু ক্ষেত্রে রোগীর অবস্থা বেশি খারাপ হওয়ায় তাদের হাসপাতালে ভর্তি করা লাগে। তবে এসব লক্ষণ মূলত রোগীরা হাসপাতালে ভর্তি হওয়ার পরই জানা গেছে।

সেক্ষেত্রে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার একদম প্রাথমিক লক্ষণ কী বা আদৌ তা বোঝা যায় কি-না তা এখনো অজানা। তবে নতুন এই করোনাভাইরাস যথেষ্ট বিপজ্জনক। সাধারণ ঠান্ডা-জ্বরের লক্ষণ থেকে এটি মৃত্যুর দুয়ার পর্যন্তও নিয়ে যেতে পারে।

টিটিএন/এমএস