মালয়েশিয়া থেকে তরুণীর আর্তনাদ

আমাকে দেশে ফেরানোর ব্যবস্থা করো, খারাপ কাজে বাধ্য করছে

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৩:৫১ পিএম, ২২ সেপ্টেম্বর ২০২৩
ফাইল ছবি

‘আমাকে এখানে নির্যাতন করা হচ্ছে। খারাপ কাজে বাধ্য করা হচ্ছে। আমাকে দেশে ফেরানোর ব্যবস্থা করো। আমাকে বাঁচাও।’— মালয়েশিয়া থেকে মোবাইলে পরিবারের কাছে এভাবেই সেখানে হওয়া নির্যাতনের বর্ণনা দেন মালয়েশিয়ায় পাচারের শিকার হওয়া এক নারী।

তাকে যে রুমে আটকে রাখা হয়েছে, সেখান থেকে গোপনে একটি ভিডিও ধারণ করে পরিবারের কাছে পাঠিয়েছেন তিনি। নিজেকে বাঁচানোর আকুতি জানান পরিবারের কাছে। তবে পাচারকারীরা দেশে ফেরত পাঠাতে ৬ লাখ টাকা দাবি করেন। অন্যথায় তাকে অন্য জায়গায় বিক্রি করে দেওয়া হবে। এ ঘটনায় পল্লবী এলাকায় অভিযান চালিয়ে মো. রুবেল (২৯) নামে এক পাচারকারীকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব-৪)।

শুক্রবার (২২ সেপ্টেম্বর) র‌্যাব-৪ এর সহকারী পরিচালক সিনিয়র এএসপি (মিডিয়া) মাজহারুল ইসলাম জাগো নিউজকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তদন্ত কর্মকর্তারা জানান, গত ২৭ আগস্ট ৫০ হাজার টাকা বেতনে চাকরি দেওয়ার কথা বলে মালয়েশিয়ায় নিয়ে যাওয়া হয় রাজধানীর পল্লবীর ওই নারীকে। এক টাকাও খরচ লাগবে না এমন প্রলোভনে নিজের অজান্তেই পাচারকারীদের ফাঁদে পড়ে যান তিনি। মেয়ে অতিরিক্ত অর্থ উপার্জন করবে এমন লোভে মালয়েশিয়ায় পাঠাতে রাজি হয় পরিবারও। সেখানে নেওয়ার পর বিভিন্ন অনৈতিক কাজে বাধ্য করা হচ্ছে।

বোনের এমন আকুতি দেখে ভুক্তভোগী নারীর ভাই বাদী হয়ে রাজধানীর পল্লবী থানায় আসামিদের বিরুদ্ধে মানবপাচার আইনে একটি মামলা দায়ের করেন। মামলার পর পল্লবী এলাকায় অভিযান চালিয়ে চক্রের চিহ্নিত আসামি মো. রুবেলকে (২৯) গ্রেফতার করেছে র্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়নের (র‌্যাব-৪)।

সিনিয়র এএসপি মাজহারুল ইসলাম জানান, গ্রেফতার রুবেলসহ অন্যান্য সহযোগীরা এক বছর আগে ভুক্তভোগী নারীকে বিদেশে একটি শপিংমলের দোকানে উচ্চ বেতনে চাকরি দেওয়ার প্রলোভন দেখায়। এমন প্রস্তাবে ভুক্তভোগী রাজি হলে তাকে গত ২৭ আগস্ট বিদেশে পাঠিয়ে দেয়। বিদেশে নিয়ে ভুক্তভোগীকে শপিংমলের দোকানে চাকরি না দিয়ে অজ্ঞাতনামা একটি বাসায় আটকে রেখে অসামাজিক কাজ করতে বাধ্য করে তারা।

ভুক্তভোগী বিষয়টি তার পরিবারকে জানালে আসামিদের কাছে তাকে দেশে ফেরত আনার কথা জানান তারা। এসময় পাচারকারীদের পক্ষ থেকে জানানো হয় ৬ লাখ টাকার বিনিময়ে দেশে পাঠানোর ব্যবস্থা করা যাবে। দাবি করা টাকা আসামিদের না দিলে ভুক্তভোগীকে অন্যত্র বিক্রি করে দেওয়া হবে বলে পরিবারকে বিভিন্নভাবে চাপ সৃষ্টি করাসহ ভয়ভীতি ও হুমকি দেয়। পরবর্তীতে ভুক্তভোগীর ভাই বাদী হয়ে পল্লবী থানায় মানবপাচার আইনে মামলা দায়ের করেন।

তিনি আরও জানান, এরই ধারাবাহিকতায় র‌্যাব-৪ এর একটি আভিযানিক দল বৃহস্পতিবার রাতে পল্লবী এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে পাচারকারী চক্রের সদস্য রুবেলকে গ্রেফতার করে। গ্রেফতার আসামির বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় আইনানুগ কার্যক্রম প্রক্রিয়াধীন এবং এ নারী পাচারকারী চক্রের সঙ্গে জড়িত অন্যান্য পলাতকদের গ্রেফতারে র‌্যাবের জোড়ালো অভিযান অব্যাহত থাকবে।

টিটি/এমএএইচ/এএসএম

পাঠকপ্রিয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল জাগোনিউজ২৪.কমে লিখতে পারেন আপনিও। লেখার বিষয় ফিচার, ভ্রমণ, লাইফস্টাইল, ক্যারিয়ার, তথ্যপ্রযুক্তি, কৃষি ও প্রকৃতি। আজই আপনার লেখাটি পাঠিয়ে দিন [email protected] ঠিকানায়।