প্রস্তাবিত বাজেট প্রত্যাখ্যান করে মান্নার বিবৃতি

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৫:৫১ পিএম, ০৩ জুন ২০২১
ফাইল ছবি

জাতীয় সংসদের প্রস্তাবিত বাজেট প্রত্যাখ্যান করে গণমাধ্যমে বিবৃতি দিয়েছেন নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না।

তিনি বলেন, ঋণ নির্ভর ছয় লাখ তিন হাজার ৬৮১ কোটি টাকার বাজেট দিয়েছে সরকার। করোনা মহামারির এই মহাসংকট মোকাবিলা করতে যে ধরনের বাজেট প্রত্যাশা করেছিলাম, তার কোনো ছায়া খুঁজে পাইনি এই গতানুগতিক ধারার বাজেটে। বরাবরের মতো উন্নয়ন বাজেটে অতিরিক্ত বরাদ্দ রেখে সামাজিক সুরক্ষার ব্যাপারে সরকারের অনীহা প্রকাশ পেয়েছে।

মান্না বলেন, করোনা মোকাবিলায় কোনো ধরনের কার্যকর উদ্যোগ গ্রহণের নির্দেশনা নেই। উপরন্তু বেসরকারি চিকিৎসা খাতকে কর মওকুফসহ বিভিন্নভাবে প্রণোদনা দেয়া হয়েছে। এতে নিম্নবিত্ত, নিম্ন-মধ্যবিত্ত এমনকি মধ্যবিত্তদের চিকিৎসা সুবিধা পাওয়ার সুযোগ আরও সীমিত করা হলো। অথচ এই মহামারির মধ্যে একটি গণমুখী স্বাস্থ্যব্যবস্থা গড়ে তোলা প্রয়োজন। সরকার জনগণের স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করার বিষয়টি সচেতনভাবেই এড়িয়ে গেছে।

তিনি বলেন, অভ্যন্তরীণ উৎস বিশেষ করে দেশীয় ব্যাংক থেকে ঋণ গ্রহণের যে লক্ষ্যমাত্রা নিয়েছে সরকার, তাতে দেশের ব্যাংকিং খাতে তারল্য সংকট দেখা দেবে। বেসরকারি খাতে বিনিয়োগ কমে যাবে। নতুন কর্মসংস্থান সৃষ্টি তো হবেই না বরং অনেক মানুষ কর্মহীন হয়ে পড়বে। করোনায় ক্ষতিগ্রস্ত নিম্নআয়ের মানুষদের বাঁচানোর কোনো উদ্যোগ নেই বাজেটে। করোনায় নতুন করে দারিদ্রসীমার নিচে নেমে যাওয়া মানুষদের বাঁচানোর ব্যাপারে কোনো দিক-নির্দেশনা নেই। গত ১৩ বছর ধরে সরকার দুর্নীতির যে মহোৎসব চালাচ্ছে, তা অব্যাহত রাখার সকল আয়োজন আছে এই বাজেটে।

নাগরিক ঐক্যের এই নেতা আরও বলেন, আমরা আগেই বলেছিলাম- করোনা সংকটের মধ্যে মানুষ বাঁচানোর চেয়ে বড় কোনো উন্নয়ন হতে পারে না। কিন্তু সরকার সেই পথে হাঁটেনি। এই বাজেট জনগণের বাজেট নয়। আমি ও আমার দল নাগরিক ঐক্য প্রস্তাবিত বাজেটকে প্রত্যাখ্যান করছি।

মান্না বলেন, আগামী ৫ জুন সকাল সাড়ে ১১টায় তোপখানা রোডে শিশু কল্যাণ পরিষদ মিলনায়তনে সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে নাগরিক ঐক্য প্রস্তাবিত বাজেটের ওপর বিস্তারিত আলোচনা এবং সংশোধনের প্রস্তাব উত্থাপন করবে। দেশের মানুষের জীবন-জীবিকার সুরক্ষা নিশ্চিত করতে প্রস্তাবিত বাজেট অবশ্যই সংশোধন করতে হবে। কেননা এই বাজেট বাস্তবায়িত হলে করোনা মহামারির এই সংকট থেকে দেশের মানুষকে, দেশের অর্থনীতিকে বাঁচানো যাবে না।

কেএইচ/এআরএ/জিকেএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]