আরাফাত সানি এত কৃপণ!

ক্রীড়া প্রতিবেদক ক্রীড়া প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৮:০০ পিএম, ১৬ জানুয়ারি ২০১৯

এবারের বিপিএলকে কি ব্যাটসম্যানদের টুর্নামেন্ট বলা যায়? পরিসংখ্যানের বিচার করতে গেলে এবারের টুর্নামেন্টকে অনেকেই বোলারদের টুর্নামেন্ট বলতে দ্বীধা করবেন না। কারণ, প্রতিটি দলের বোলাররাই কিন্তু সবচেয়ে বেশি প্রভাব বিস্তার করছে এই টুর্নামেন্টে। দু’একটি ম্যাচে হয়তো বা ব্যাটসম্যানরা বোলারদের ছাপিয়ে যাচ্ছেন; কিন্তু সেটা খুবই নগণ্য।

রান দেয়ার দিক থেকে এবার সবচেয়ে কৃপণ বোলাররা। এক ইনিংসে ৪ রানের নিচে ইকনোমি রেটে রান দিয়েছেন- এমন বোলারের সংখ্যা প্রায় ২০ জন। অথচ, টুর্নামেন্টের অর্ধেকও পার হয়নি এখনও।

রাজশাহী কিংসের আরাফাত সানি আজ ঢাকা ডায়নামাইটসের বিপক্ষে যা করে দেখালেন, সেটা তো রীতিমত বিস্ময়। ঢাকাকে প্রথম পরাজয়ের স্বাদ দেয়া রাজশাহীর জয়ের নায়ক আরাফাত সানি। একাই তিনি ঢাকাকে থামিয়ে দিলেন। ৪ ওভার বল করে নিলেন একটি মেডেন। রান দিলেন মাত্র ৮টি। উইকেট নিলেন ৩টি।

আরাফাত সানি এতটাই কৃপণ হলেন যে, রাজশাহীর করা ১৩৬ রানের জবাব দিতে গিয়ে মাত্র ১১৬ রানে থেমে যেতে হয়েছে শক্তিশালী ঢাকা ডায়নামাইটসকে। তার করা এই ৪ ওভারই পেছনে ঠেলে দিয়েছে সাকিব আল হাসানদের। ইকনোমি রেট মাত্র ২।

তবে বিপিএলের ইতিহাসে (এবার নিয়ে সব আসর মিলে) সবচেয়ে কৃপণ বোলারটির নামও আরাফাত সানি। কোনো বোলারের নামের পাশে এক ইনিংসে যদি ইকনোমি রেট লেখা থাকে ০.০০, তাহলে এর চেয়ে আর কম ইকনোমি রেট কি আর কারও হতে পারে। এমন অবিশ্বাস্য ইকনোমি রেটের মালিক এবার রাজশাহীতে খেলা আরাফাত সানিই।

২০১৬ সালের বিপিএলে রংপুর রাইডার্সের হয়ে খুলনা টাইটান্সের বিপক্ষে ২.৪ ওভার (১৬ বল) বোলিং করেছিলেন আরাফাত সানি। সেবার কোনো রানই দেননি তিনি। উইকেট নিয়েছেন ৩টি। যদিও ওই ম্যাচে ৩ ওভার বোলিং করে ১২ রান দিয়ে ৪ উইকেট নিয়েছিলেন আফ্রিদি। আরাফাত সানি আর আফ্রিদি মিলে খুলনা টাইটান্সকে মাত্র ৪৪ রানে অলআউট করে দিয়েছিল রংপুর রাইডার্স। শেষ পর্যন্ত রংপুর জিতেছিল ৯ উইকেটের ব্যবধানে।

বিপিএলে আরাফাত সানির পর ইকনোমি রেট ১.০০ রয়েছে আফগান বোলার মোহাম্মদ নবির। ২০১৬ সালেই চিটাগং ভাইকিংসের হয়ে ঢাকা ডায়নামাইটসের বিপক্ষে ২ ওভারে ২ রান দিয়ে ১ উইকেট নিয়েছিলেন তিনি। ১.২৫ ইকনোমি রেটে ২০১৫ সালে বোলিং করেছিলেন আফ্রিদি। সেবার সিলেট সুপার স্টারসের হয়ে বরিশাল বুলসের বিপক্ষে ৪ ওভারে ৫ রান দিয়ে ২ উইকেট নিয়েছিলেন তিনি।

এবারের আসরে আরাফাত সানির চেয়েও কৃপণ বোলার আছেন অবশ্য। তিনি লিয়াম ডসন। কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সের হয়ে গতকালই সিলেট সিক্সার্সের বিপক্ষে ৩ ওভারে ১ মেডেন এবং ৩ রান দিয়ে ২ উইকেট নিয়েছেন ইংল্যান্ডের এই তারকা ক্রিকেটার। ইকনোমি রেট ১.৩৩ করে। এরপরই দ্বিতীয় সেরা ইকনোমি রেট আরাফাত সানির। ২.০০ করে। রংপুরের বোলার বেনি হাওয়েলের ইনকোমি রেটও ২.০০ করে। কুমিল্লার বিপক্ষে ৩ ওভারে ৬ রান দিয়েছিলেন তিনি।

ঢাকার বোলার রুবেল হোসেন চিটাগং কিংসের বিপক্ষে ৩ ওভার বোলিং করে দিয়েছিলেন ৭ রান। উইকেট নিয়েছিলেন ৩টি। ইকনোমি ২.৩৩ করে। এই আসরে ৪ ওভারে সর্বোচ্চ ১০ রান দেয়ার রেকর্ড চিটাগংয়ের নাঈম হাসান, কুমিল্লার শহিদ আফ্রিদি এবং খুলনা টাইটান্সের তাইজুল ইসলামের।

যদিও এখনও পর্যন্ত এক ইনিংসে আসরের সেরা বোলিং রংপুর রাইডার্সের অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজার। কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সের বিপক্ষে ৪ ওভারে মাত্র ১১ রান দিয়ে তিনি নিয়েছিলেন ৪ উইকেট। মেডেন নিয়েছিলেন ১টি। এক ইনিংসে ৪ উইকেট নিয়েছেন রবি ফ্রাইলিংকও। রংপুর রাইডার্সের বিপক্ষে তিনি ৪ ওভারে দিয়েছিলেন ১৪ রান।

আইএইচএস/পিআর

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]