বার্সার সামনে জুভেন্টাসের টিকে থাকার লড়াই

স্পোর্টস ডেস্ক
স্পোর্টস ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৯:৩৯ পিএম, ২১ নভেম্বর ২০১৭ | আপডেট: ১২:০১ পিএম, ২২ নভেম্বর ২০১৭
বার্সার সামনে জুভেন্টাসের টিকে থাকার লড়াই

চ্যাম্পিয়ন্স লিগে কাল (বুধবার) স্প্যানিশ জায়ান্ট বার্সেলোনার মুখোমুখি হচ্ছে ইতালির দল জুভেন্টাস। বার্সার জন্য যে ম্যাচটি গ্রুপের শীর্ষস্থান নিশ্চিত করার। আর জুভিদের জন্য চ্যাম্পিয়ন্স লিগে টিকে থাকার লড়াই।

বার্সার বিপক্ষে এই ম্যাচটি জিতলে চ্যাম্পিয়ন্স লিগের শেষ ষোলোতে নাম লেখাবে জুভেন্টাস। হারলে থাকবে নকআউটের আগেই বাদ পড়ার ঝুঁকিতে। গ্রুপের অন্য ম্যাচে যদি অলিম্পিয়াকোসকে হারিয়ে দেয় স্পোর্টিং সিপি, তবে নকআউট স্বপ্ন ভেঙে যাবে ম্যাসিমিলিয়ানো অ্যালেগ্রির দলের।

এই ম্যাচটি অবশ্য জুভেন্টাসের জন্য ঘরের মাঠে প্রতিশোধ নেয়ার ম্যাচও। বার্সার বিপক্ষে নু্য ক্যাম্পে তারা মুখোমুখি হয়েছিল গত সেপ্টেম্বরে। সেই লড়াইয়ে ৩-০ ব্যবধানে হেরে গিয়েছিল ইতালির দলটি। এবার সে ম্যাচের প্রতিশোধ নেয়ার সুযোগ জুভিদের।

তবে দুর্দান্ত ছন্দে থাকা বার্সার বিপক্ষে কাজটা খুব সহজ হবে না জুভেন্টাসের। কাতালান দৈত্যরা চলতি মৌসুমে মাত্র একটি গোল হজম করেছে। গত ম্যাচে অবশ্য তারা ড্র করেছে অলিম্পিয়াকোসের বিপক্ষে।

ওই ম্যাচে বার্সা মিস করেছে জেরার্ড পিকে। স্প্যানিশ সেন্টার ব্যাক এক ম্যাচের নিষেধাজ্ঞায় থাকায় অলিম্পিয়াকোসের বিপক্ষে মাঠে নামতে পারেননি। কাল তিনি খেলবেন। জুভেন্টাসের জন্য বিষয়টা চিন্তারই!

এমনিতেও অবশ্য গত ম্যাচে বড়সড় ধাক্কা খেয়েছে জুভেন্টাস। সাম্পদোরিয়ার মত দলের কাছে ৩-২ গোলে হেরেছে তারা। বার্সেলোনার বিপক্ষে সেই ধাক্কা কাটিয়ে ঘুরে দাঁড়ানোই হবে জুভিদের বড় চ্যালেঞ্জ।

অপরদিকে আরনেস্তো ভালভার্দের বার্সেলোনা লা লিগায় এখন শীর্ষস্থানে। লিগানেসের বিপক্ষে সর্বশেষ ম্যাচেও ৩-০ ব্যবধানে জিতেছে তারা। ছন্দে ফিরে জোড়া গোল করেছেন লুইস সুয়ারেজ।

জুভেন্টাসেরও অবশ্য এই জায়গাটায় স্বস্তি আছে। গঞ্জালো হিগুয়েন দারুণ ছন্দে আছেন। সর্বশেষ পাঁচ ম্যাচে ৬টি গোল পেয়েছেন আর্জেন্টাইন স্ট্রাইকার। আরেক আর্জেন্টাইন পাওলো দিবালাও তিন ম্যাচ পর জালের দেখা পেয়েছেন সাম্পদোরিয়ার বিপক্ষে। চ্যাম্পিয়ন্স লিগে ৩৫৩ মিনিট গোলের দেখা না পাওয়া দিবালা বার্সার বিপক্ষে আক্ষেপ ঘুচানোর অপেক্ষায় থাকবেন।

এই ম্যাচটিকে তাই বলা যায়, মেসি-দিবালা আর সুয়ারেজ-হিগুয়েনের লড়াই। দেখা যাক, কারা এই লড়াইয়ে শেষ হাসি হাসেন!

এমএমআর/জেআইএম