ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে আটক ছাত্র শিক্ষকের মুক্তি দাবি

বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক
বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়
প্রকাশিত: ১১:৫৭ পিএম, ২৬ জুন ২০২০

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক-ছাত্রসহ বিভিন্ন পেশার মানুষকে আটকের ঘটনায় গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করে প্রতিবাদ জানিয়েছে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের নিপীড়ন বিরোধী ছাত্র-শিক্ষক ঐক্য। শুক্রবার (২৬ জুন) এক বিবৃতিতে আটককৃতদের অবিলম্বে মুক্তির দাবিও জানিয়েছেন তারা।

বিবৃতিতে তারা বলেন, দুঃখের সঙ্গে লক্ষ্য করলাম, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে কিছু মন্তব্যকে কেন্দ্র করে বিশ্ববিদ্যালয়ের একাধিক শিক্ষক, ছাত্র, কার্টুনিস্ট, সংবাদকর্মী, রাজনীতিবিদ, এমনকি ১৫ বছর বয়সী এক কিশোরকে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে আটক করা হয়েছে। আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমে কোন কোন ঘটনা প্রকাশিত হয়েছে। এটি বাংলাদেশের মর্যাদা বিশ্ববাসীর চোখে ক্ষুণ্ণ করেছে।

বিবৃতিতে বলা হয়েছে, একটি বহুমাত্রিক, উদার গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রের আকাঙ্ক্ষা আমাদের মুক্তিযুদ্ধের মূল চেতনা। স্বাধীন বাংলাদেশের সকল নাগরিক তাদের গণতান্ত্রিক অধিকার নির্বিঘ্নে চর্চা করবেন, রাষ্ট্র সকল নাগরিক অধিকার নিশ্চিত করবে এই আমাদের চাওয়া। কিন্তু আজ গভীর উদ্বেগের সঙ্গে আমরা লক্ষ্য করছি, নির্দ্বিধায় মত প্রকাশের নাগরিক অধিকার সংকুচিত হয়ে পড়ছে। ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের লাগামহীন ব্যবহার এবং অনেক ক্ষেত্রে ব্যক্তিগত আক্রোশ চরিতার্থ করতে এই আইনের অপব্যবহার এক ভীতির পরিবেশ সৃষ্টি করেছে।

বিবৃতিতে স্বাক্ষর কারী শিক্ষকবৃন্দের মধ্যে রয়েছেন- অধ্যাপক ড. সালেহ হাসান নকীব, অধ্যাপক ড. আফরীনা মামুন, অধ্যাপক ড. মো. আক্তার আলী, অধ্যাপক ড. দিল আরা হোসেন, অধ্যাপক ড. এফ নজরুল ইসলাম, অধ্যাপক ড. ইফতিখারুল আলম মাসউদ, অধ্যাপক ড. আহমেদ ইমতিয়াজ, অধ্যাপক ড. মো. শামসুজ্জোহা এছামী, অধ্যাপক ড.সৈয়দ সরওয়ার জাহান লিটন, অধ্যাপক ড. আকতার বানু আল্পনা, অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ আলী, অধ্যাপক মো. ছাইফুল ইসলাম শামীম, অধ্যাপক ড. মো. আতিকুর রহমান পাটোয়ারী, ড. মো. আখতার হোসেন মজুমদার, ড. মোহা. মনিরুল হক, অধ্যাপক মোহাম্মদ হাবিবুল ইসলাম, ড. মো. ছামিউল ইসলাম সরকার, অধ্যাপক মোহাম্মদ আব্দুস ছালাম, অধ্যাপক মো. সাইফুর রহমান, অধ্যাপক মো. রিজু খন্দকার প্রমূখ।

এফআর/এমএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]