২০ ঘণ্টা পর ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কে যান চলাচল স্বাভাবিক

উপজেলা প্রতিনিধি মির্জাপুর (টাঙ্গাইল)
প্রকাশিত: ১২:৩৩ পিএম, ২১ ডিসেম্বর ২০১৭

ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কে প্রায় ২০ ঘণ্টা পর যান চলাচল স্বাভাবিক হয়েছে। বুধবার রাত ৯টা থেকে বৃহস্পতিবার বিকেল ৫টা পর্যন্ত মহাসড়কে যানজট অব্যাহত লেগে থাকে।

এতে দিনভর মহাসড়কের চন্দ্রা থেকে টাঙ্গাইলের এলেঙ্গা পর্যন্ত প্রায় ৬০ কিলোমিটার এলাকায় যানজট লাগে। যানজটে আটকা পড়ে যাত্রী ও শ্রমিকদের দুর্ভোগ পোহাতে হয়। বুধবার রাত ৯টা থেকে মহাসড়কে যানজটের শুরু হয়।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, বুধবার রাতে ঘন কুয়াশা থাকায় গাড়ি চালকরা ধীর গতিতে যান চালাতে থাকে। পাশাপাশি মহাসড়ক চার লেনে উন্নিতকরণ কাজের কারণে বিভিন্ন স্থানে খানাখন্দ এবং রাস্তা সরু হওয়ার যানজট লাগে।

বুধবার রাত ৯টা থেকে যানজট শুরু হয় বলে গাড়ির চালকরা জানিয়েছেন। বৃহস্পতিবার সকাল ১১টার পর থেকে মহাসড়কের টাঙ্গাইলের দিকে ধীর গতিতে যান চলাচল করলেও থেমে থেমে চলে ঢাকার দিকে। এতে যাত্রী, যানবাহনের স্টাফ ও সাধারণ মানুষকে চরম দুর্ভোগ পোহাতে হয়। যনজট একপর্যায়ে মহাসড়কের উভয় পাশে কমপক্ষে ৬০ কিলোমিটার স্থায়ী হয়।

বৃহস্পতিবার বিকেল ৫টার পর মহাসড়কে যান চলাচল স্বাভাবিক হয় বলে মির্জাপুর বাসস্ট্যান্ডে কর্মরত ট্রাফিক পুলিশের টিআই মো. সেলিম হোসেন জানিয়েছেন।

কুষ্টিয়া থেকে ছেড়ে আসা ঢাকাগামী তুলাভর্তি ট্রাকচালক আল আমিন বলেন, রাত ৯টার দিকে বঙ্গবন্ধু যমুনা সেতুর পশ্চিম পাড়ে যানজটে আটকা পড়ি। দীর্ঘ ১৪ ঘণ্টা পর এখন মির্জাপুর বাইপাস পর্যন্ত এসেছি।

টাঙ্গাইল থেকে ছেড়ে আসা ঢাকাগামী মালভর্তি ট্রাকের হেলপার সজিব হোসেন ও গোপালপুর থেকে ছেড়ে আসা বাসের সুপারভাইজার আলহাজ মিয়া বলেন, টাঙ্গাইল বাইপাস থেকে তিন ঘণ্টায় মির্জাপুরের দেওহাটায় আসলাম।

ঢাকা থেকে ছেড়ে আসা উত্তরবঙ্গগামী খালেক এন্টার প্রাইজের সুপারভাইজার মিজানুর রহমান জাহিদ বলেন, সকাল সাড়ে ৬টায় চন্দ্রা এলাকায় যানজটে আটকা পড়ি। চন্দ্রা থেকে মির্জাপুর পর্যন্ত আসতে ৫ ঘণ্টা সময় লেগেছে।

মির্জাপুর বাইপাস স্টেশনে কর্তব্যরত টিআই মো. ইত্তেখার বলেন, একদিকে ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়ক চার লেন উন্নিতকরণ কাজ চলছে। অপরদিকে বুধবার রাতে ঘন কুয়াশা থাকায় যানবাহনের চালকরা ধীর গতিতে যান চালাতে থাকে। এ কারণে যানজটের সৃষ্টি হয়। বিকেল ৫টার পর মহাসড়কে যান চলাচল স্বাভাবিক হয় বলেও জানান তিনি।

এস এম এরশাদ/এএম/আইআই

আপনার মতামত লিখুন :