বিএনপির প্রার্থী মিলনের মুক্তি চাইলেন স্ত্রী

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি গাজীপুর
প্রকাশিত: ০৬:১৯ পিএম, ১৬ ডিসেম্বর ২০১৮

একাদশ সংসদ নির্বাচনে গাজীপুর-৫ আসনে বিএনপির ধানের শীষ প্রতীকের প্রার্থী গাজীপুর জেলা বিএনপির সভাপতি একেএ ফজলুল হক মিলনকে অবিলম্বে মুক্তি দিয়ে নির্বাচনী প্রচারণায় অংশগ্রহণের জোর দাবি জানিয়েছেন তার স্ত্রী সম্পা হক। রোববার বিকেলে কালীগঞ্জের বর্তুল গ্রামে তার বাস ভবনে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এ দাবি জানান তিনি।

সংবাদ সম্মেলনে সম্পা হক বলেন, ফজলুল হক মিলন নিশ্চিত বিজয়ী হবেন। এ কথা জেনে সরকার তাকে পুলিশ দিয়ে হয়রানি ও নির্যাতন করছে। তিনি সব ক’টি মামলায় জামিনে ছিলেন। ১৩ ডিসেম্বর বিকেলে বাড়িতে ফজলুল হক মিলন কর্মী সভা করছিলেন। এতে ৫-৬’শ নেতাকর্মী উপস্থিত ছিলেন। হঠাৎ গাজীপুর ডিবি পুলিশ চারদিক থেকে ঘিরে ধরে ফিল্মি কায়দায় তাকে গ্রেফতার করে। এ সময় পুলিশ আতঙ্ক ছড়ানোর জন্য ফাঁকা গুলি বর্ষণ এবং নেতাকর্মীদের মারধর ও গাড়ি ভাঙচুর চালায়। একজন সাবেক এমপি এবং বর্তমান প্রার্থীকে এভাবে তুলে নিয়ে নির্বাচনে সমান সুযোগে বৈষম্য সৃষ্টি করা হয়েছে। তাকে গ্রেফতার করে নিয়ে যাওয়ার পর পুলিশকে জামিনের কাগজপত্র দেখিয়েছি। পুলিশ তা আমলে নেয়নি।

তিনি বলেন, কালীগঞ্জের আওয়ামী লীগের প্রার্থী মনে করছেন ফজলুল হক মিলন নিশ্চিত বিজয় হবেন। এ জন্য আমাদের নির্বাচন থেকে সরে যাওয়ার জন্য এসব করা হচ্ছে। ফজলুল হক মিলনকে ঢাকার রমনা থানার একটি নাশকতার মামলায় অজ্ঞাত আসামি হিসেবে গ্রেফতার দেখিয়ে কারাগারে পাঠানো হয়।

ইসি বলেছিল আগের কোনো মামলা এবং গ্রেফতারি পরোয়ানা না থাকলে নতুন করে কোনো মামলায় নেতাকর্মীকে গ্রেফতার ও হয়রানি করা হবে না। মিলনকে গ্রেফতারের মাধ্যমে ইসির এ নির্দেশ অমান্য করেছে পুলিশ। অন্যায় এ গ্রেফতারের ধিক্কার জানিয়ে অবিলম্বে ফজলুল হক মিলনের নিঃশর্ত মুক্তি চাই।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন- জেলা বিএনপির সহ-সভাপতি হুমায়ূন কবীর মাস্টার, মনিরুজ্জামান খান লাভলু, বিএনপি নেতা ফজলুল হক নয়ন বাগমার, ফরিদ আহমেদ মৃধা, সিরাজুল ইসলাম, জাহাঙ্গীর আলম, মো. জাহাঙ্গীর কবীর, হারুন অর রশীদ, জয়নাল আবেদীন ও নাজমা বেগম প্রমুখ।

মো. আমিনুল ইসলাম/এএম/আরআইপি

আপনার মতামত লিখুন :