ইউপি নির্বাচনকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষ, আ.লীগ নেতাসহ আহত ১৫

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি ফরিদপুর
প্রকাশিত: ০৭:৪৫ পিএম, ৩০ নভেম্বর ২০২০

ফরিদপুরের সালথা উপজেলায় ইউপি নির্বাচনকে কেন্দ্র করে দু’পক্ষের সংঘর্ষে যদুনন্দী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি ও জেলা পরিষদের সদস্য আব্দুর রব মোল্যাসহ ১৫ জন আহত হয়েছেন। আহতদের হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। সোমবার (৩০ ডিসেম্বর) দুপুরে উপজেলার যদুনন্দী ইউনিয়নের বৌবাজার এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

স্থানীয়রা জানায়, আসন্ন ইউপি নির্বাচনকে কেন্দ্র করে যদুনন্দী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুর রব মোল্যার সঙ্গে কাইয়ুম মোল্যার দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলছে। তারা দুজন ইউনিয়নের সম্ভাব্য চেয়ারম্যান প্রার্থী। বিরোধের জেরে সোমবার দুপুরে বৌবাজারে রব মোল্যার সমর্থক আক্কাস মোল্যাকে গালাগালি করেন কাইয়ুম মোল্যার সমর্থকরা।

খবর পেয়ে কয়েকজন লোক নিয়ে ওই এলাকায় যান রব মোল্যা। এ সময় প্রতিপক্ষ কাইয়ুম মোল্যা ও যুবলীগ নেতা খন্দকার সাজ্জাদ হোসেনের নেতৃত্বে রব মোল্যা ও তার সঙ্গে থাকা লোকজনের ওপর হামলা চালান বলে অভিযোগ করেন রব মোল্যার ছেলে লিপন মোল্যা। এতে রব মোল্যাসহ ১৫ জন আহত হন। আহতদের ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল ও নগরকান্দা উপজেলা স্বাস্থ্যকেন্দ্রে ভর্তি করা হয়েছে।

হামলার অভিযোগ অস্বীকার করে কাইয়ুম মোল্যা বলেন, আমার নেতৃত্বে রব মোল্যার ওপর হামলা করা হয়নি। সাধারণ জনগণ তাকে যেভাবে ঘিরে ধরেছিল তাতে আমি যদি না ঠেকাতাম তাহলে কুপিয়ে মেরে ফেলত। আমি ইউপি নির্বাচনে নিজেকে চেয়ারম্যান প্রার্থী হওয়ার ঘোষণা দেয়ার পর থেকে ক্ষিপ্ত রব মোল্যা।

ঘটনার সময় তিনি লোকজন নিয়ে আমার সমর্থক সানোয়ারের ওপর হামলা করতে আসে এবং কুপিয়ে জখম করে। খবর পেয়ে স্থানীয়রা তাকে ও তার লোকজনকে ঘেরাও করে। এ সময় ইটপাটকেলের আঘাতে তিনি ও তার লোকজন আহত হন।

সালথা থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মাদ আলী জিন্নাহ বলেন, খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনা হয়। ওই এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। পরিবেশ এখন শান্ত।

বি কে সিকদার সজল/এএম/এমএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]