সুন্দরবনের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের ঈদের ছুটি বাতিল

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক খুলনা
প্রকাশিত: ০৮:৫০ পিএম, ০৭ মে ২০২১
ফাইল ছবি

পবিত্র ঈদুল ফিতরকে সামনে রেখে সুন্দরবন পশ্চিম বিভাগের খুলনা রেঞ্জের বনজ সম্পদ রক্ষায় নেয়া হয়েছে কঠোর নিরাপত্তা। ইতিমধ্যে বনবিভাগ থেকে বিভিন্ন স্টেশন ও টহল ফাঁড়িতে কর্মরত সব কর্মকর্তা-কর্মচারীর ছুটি বাতিল করা হয়েছে। এছাড়া বনজ সম্পদ রক্ষায় পুরো সুন্দরবনে রেড অ্যালার্ট জারি করা হয়েছে।

বনবিভাগ সূত্র জানায়, সুন্দরবনের হরিণ শিকার, অবৈধভাবে গাছ কাটা এবং বিষ দিয়ে মাছ শিকার বন্ধে বৃহস্পতিবার (৬ মে) খুলনা রেঞ্জ কর্মকর্তার কার্যালয়ে (নলিয়ানে) জরুরি সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় বিশেষ বিশেষ টিম গঠন করে টহল জোরদারসহ প্রত্যেক স্টেশন কর্মকর্তার সমন্বয়ে টহল কার্যক্রম অব্যাহত রাখার সিদ্ধান্ত হয়।

খুলনা রেঞ্জের এসিএফ মো. সলেহের সভাপতিত্বে সভায় উপস্থিত ছিলেন রেঞ্জ সহযোগী কাজী মাহফুজুল হক, বানিয়াখালি স্টেশন কর্মকর্তা নির্মল কুমার মণ্ডল, কাশিয়াবাদ স্টেশন কর্মকর্তা আ. হাকিম, কালাবগি স্টেশন কর্মকর্তা মনির হোসেন, নলিয়ান স্টেশন কর্মকর্তা মো. ইসমাইল হোসেন, সুতারখালি স্টেশন কর্মকর্তা প্রেমানন্দ মণ্ডল, নীলকোমল বিশেষ টহল ফাঁড়ির ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. কামরুল হাসান, হড্ডা টহল ফাঁড়ির ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা জহিরুল ইসলাম সহ বিভিন্ন টহল ফাঁড়িতে দায়িত্বরত কর্মকর্তারা।

সভায় জানানো হয় ঈদকে সামনে রেখে সুন্দরবনে এক শ্রেণির চোরাকারবারী বনের কাঠ লুট করে। এছাড়া অসাধু চক্র মায়াবী হরিণ নিধন যজ্ঞে মেতে ওঠে। অন্যদিকে সুযোগ বুঝে বিষ প্রয়োগে মাছও শিকার করে। এ বছর যাতে এ সুযোগ তারা না পায় সে লক্ষ্যে নেয়া হয়েছে কঠোর নিরাপত্তার বলয়।

খুলনা রেঞ্জের সহকারী বন সংরক্ষক (এসিএফ) মো. আবু সালেহ বলেন, ইতিমধ্যে বিভিন্ন স্টেশন ও টহল ফাঁড়িতে কর্মরত বন বিভাগের স্টাফদের ছুটি বাতিল করা হয়েছে। এছাড়া র্স্মাট টিমের পাশাপাশি রাত-দিন বিভিন্ন স্টেশন ও টহল ফাঁড়ির সমন্বয়ে গঠিত টিম সুন্দরবনের বিভিন্ন এলাকায় টহল কার্যক্রম অব্যাহত রাখবে।

পশ্চিম সুন্দরবনের বিভাগীয় বন কর্মকর্তা (ডিএফও) ড. মো. আবু নাসের মোহসিন হেসেন বলেন, ঈদ উপলক্ষে সুন্দরবনের পুরো এলাকায় রেড অ্যালার্ট জারি করা হয়েছে।

আলমগীর হান্নান/এএইচ/এএসএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]