রাজশাহীতে চলছে লকডাউন, আম বাজারে কমছে ক্রেতা

ফয়সাল আহমেদ ফয়সাল আহমেদ , রাজশাহী রাজশাহী
প্রকাশিত: ০৪:২৮ পিএম, ১২ জুন ২০২১

বর্তমানে রাজশাহীতে আমের ভরা মৌসুম। এখন বাজারে পাওয়া যাচ্ছে গোপালভোগ, হিমসাগর (খিরসাপাত), ল্যাংড়া ও গুটিজাতের আম। তবে করোনা সংক্রমণ ঠেকাতে শুক্রবার (১১ জুন) বিকেল ৫টা থেকে সাত দিনের লকডাউন ঘোষণা করে জেলা প্রশাসন।

এছাড়া জেলায় থেমে থেমে বৃষ্টি হচ্ছে। এতে ক্রেতা সঙ্কটে ভুগছেন রাজশাহীর আম ব্যবসায়ীরা। ফলে দুশ্চিন্তায় পড়েছেন তারা।

চলমান লকডাউনে রাজশাহীর কয়েকটি বাজার ঘুরে দেখা গেছে, আমারে বাজারগুলোতে শুধু ক্রেতা সঙ্কটই নয়, কমেছে আমের মূল্যও। প্রতি মণে ২০০ থেকে ২৫০ টাকা কমেছে। উত্তরের দ্বিতীয় বৃহৎ আমের হাট বানেশ্বর, রাজশাহীর সাহেব বাজার, শালবাগান, রাজশাহী বাসস্ট্যান্ড আমের বাজারেও এমন অবস্থা চলছে বলে জানিয়েছেন ব্যবসায়ীরা।

jagonews24

বিক্রেতারা ভাষ্য- হাটে প্রচুর আম আমদানি হচ্ছে। সেই তুলনায় ক্রেতা কম। তাই আম বিক্রি করতে হচ্ছে অল্প দামে। এতে চাষি ও বাগান ব্যবসায়ীরা ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন।

পুঠিয়া ঝলমলিয়ার আম বাগান ব্যবসায়ী মিনহাজ সাকিল। গাছের পাতা ও মুকুল দেখে কিনেছিলেন ১০ বিঘা আমের বাগান। আমের ফলনও হয়েছে ভালো। তবে ক্রেতা সঙ্কটে পাচ্ছেন না আমের দাম।

সাকিল বলেন, ‘লকডাউন ঘোষণার আগে টুকটাক ক্রেতা পাওয়া যাচ্ছিল। কিন্তু লকডাউন ঘোষণায় বানেশ্বর হাটে একেবারেই ক্রেতাশূন্য হয়ে পড়েছে। গত তিনদিন আগে ল্যাংড়া আম বিক্রি হয়েছে ১৪০০ থেকে ১৭০০ টাকা মণ দরে। এছাড়া খিরসাপাত ১৬০০ থেকে ১৮০০ টাকা মণ ও গোপালভোগ ১৫০০ থেকে ২২০০ টাকা মণ দরে বিক্রি হয়েছে। বর্তমান তা বিক্রি হচ্ছে ২০০ থেকে ৩০০ টাকা কম দামে। কারণ, এখন আমের ভরা মৌসুম। তাই হাটে এখন প্রচুর আম আমদানি হচ্ছে। কিন্তু সেই তুলনায় ক্রেতা তেমন নেই।’

এদিকে, বানেশ্বরে ক্রেতা সঙ্কট থাকলেও রাজশাহীর অন্যসব আমের বাজারগুলো তুলনামূলক বেচাকেনা ভালো ছিল। কিন্তু লকডাউনের কারণে নগরীর আম বাজারগুলোতে বিক্রি নেই বলে জানিয়েছেন ব্যবসায়ীরা।

jagonews24

আমের দাম কমার বিষয়ে মো. রহমত আলী নামের বিক্রেতা বলেন, ‘আগে ৩০ থেকে ৫০ মণ আম আমরা নিয়ে আসতাম। বর্তমানে ১০ থেকে ২০ মণ আম বিক্রির জন্য হাটে নিয়ে আসা হয়। কারণ, ক্রেতা কম থাকায় সব আম বিক্রি সম্ভব হয় না। তখন আবার মণ প্রতি ২০০ থেকে ২৫০ টাকা লসে বিক্রি করতে হয়।’

রাজশাহীর অন্যতম আমের বাজার নগরীর শিরোইল বাসস্ট্যান্ডে। প্রতিবছরই এখানে নগরীর আশপাশ থেকে আশা আমের ব্যবসায়ীরা আসেন তাদের বাগানের রসালো আম নিয়ে। পাশেই রেলস্টেশন ও বাসটার্মিনাল হওয়ায় বেচাকেনাও বেশ ভালো হয়। তবে হুট করে লকডাউন জারি হওয়ায় ব্যবসায়িক ক্ষতির মধ্যে পড়েছেন তারা।

এই চত্বরের আম ব্যবসায়ী আফসার আলী বলেন, ‘রাজশাহীর সবচেয়ে জমজমাট জায়গা এই বাসস্ট্যান্ড আম বাজার। প্রতিবছরই আমি এখানে আমার বাগানের আম এনে বিক্রি করি। বাস টার্মিনাল ও রেল স্টেশনের পাশে হওয়ায় অনেক যাত্রীরা এখান থেকে ঢাকা যাওয়ার পথে আম কেনেন। এতে ব্যবসাও বেশ ভালো হয়। তবে গতকালের লকডাউনের পর থেকে ক্রেতা নাই। এখন আম নিয়ে বিপদে আছি।’

হরিয়াণের আম ব্যবসায়ী সাজ্জাত হোসেন। রাজশাহীতে ভ্যানে করে ঘুরে আম বেচেন তিনি। এবারের আম ব্যবসার বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘বানেশ্বর বাজার থেকে আম কিনে রাজশাহীর বিভিন্ন বাজার ও এলাকা ঘুরে আম বিক্রি করি। লকডাউনের কারণে খুব সমস্যা হয়ে গেছে। বাজারে মানুষ কম আবার করোনার কারণে মানুষ বাড়ি থেকে বেরও হচ্ছে না। তাই ব্যবসাও খুব খারাপ যাচ্ছে।’

jagonews24

রাজশাহীর চারঘাটের আম বাগান চাষি সোমেন মন্ডল। গত কয়েক বছর ধরে ‘অনিমা আম বাজার’ নামে অনলাইনেই বিক্রি করছেন তার বাগানের আম। অনলাইনে আম বিক্রির বিষয়ে তিনি বলেন, ‘ধরা বাধা কয়েকটা কাস্টমার আছে আমার। তারা এক চালানে দু একশ মণ আম কুরিয়ারে অর্ডার নেয়। বাইরের জেলা ছাড়াও রাজশাহীতেই আমার অনেক খুচরা ক্রেতা ছিল। কিন্তু হঠাৎ করে অর্ডার পাচ্ছি কম। কোনো কোনো দিন ফাঁকাও যাচ্ছে।’

কম অর্ডারের কারণ হিসেবে তিনি বলেন, ‘রাজশাহীর বাজারে প্রচুর আম উঠেছে। কিন্তু ক্রেতা নেই। আর বাইরের জেলার আম ব্যাপারীরা না আসায় ফড়িয়া বা মধ্যস্বত্বভোগীরা আম কমদামে কিনে বাইরের জেলায় বেশী দামে বিক্রি করছেন। এতে ক্রেতা কমে গেছে। আবার রাজশাহীর বাজারে ক্রেতা না থাকায় গ্রামের অনেক আম ব্যবসায়ীই এখন ভ্যানে করে শহরে কম দামে আম বিক্রি করছেন। এতে করে অনলাইনে অর্ডার নেই।’

আমের ট্রিপ নিয়ে যাওয়া ট্রাক চালক মোস্তাক হোসেন জাগো নিউজকে বলেন, ‘আমের ট্রিপ চট্টগ্রাম, বরিশাল, সিলেটে নিয়ে যাই। করোনার আগে সপ্তাহে ৪-৫ টা করে ট্রিপ হতো। এ বছর সপ্তায় একটি করে ট্রিপ হচ্ছে। ব্যবসায়ীরা আম কম পাঠাচ্ছেন।’

বানেশ্বর হাটের ইজারাদার ওসমান আলী বলেন, ‘করোনায় সবচেয়ে বেশি ক্ষতি হয়েছে আম চাষি ও ব্যবসায়ীদের। এবার হাটে আমের ক্রেতা অনেক কম, কিন্তু উৎপাদন অনেক বেশি। সেই তুলনায় খরচ অনুযায়ী পোষাচ্ছে না তাদের।’

তিনি আরও বলেন, ‘দাম কমে যাওয়ায় চাষিরা এবার বিশাল ক্ষতির সম্মুখীন হতে পারে। তবে রাজশাহীতে যদি আম সংরক্ষণের ব্যবস্থা করা যেত তবে আম ব্যবসায় পুষিয়ে নিতে পারতেন ব্যবসায়ীরা।’

jagonews24

এদিকে কৃষি বিশেষজ্ঞরা বলছেন, বাগানে আমের পর্যাপ্ত উৎপাদন হয়েছে। মূলত, করোনার কারণে আমের ক্রেতা বাজারে নেই। আবার কুরিয়ার সার্ভিস খোলা থাকলেও জেলা প্রশাসন ঘোষিত লকডাউনের কারণে যাতায়াত ব্যবস্থার ঘাটতি এবং লকডাউনের কঠোরতায় দূরবর্তী স্থানে আম পাঠানোতেও সমস্যায় পড়তে হচ্ছে আম চাষি ও ব্যবসায়ীদের।

অন্যদিকে, আমের তৈরি জ্যাম, জেলি, আচার কিংবা বড় বড় কোম্পানি কর্তৃক ফ্রুট জুস সংরক্ষণের ব্যবস্থা থাকলেও আস্ত আম সংরক্ষণের ক্ষেত্রে আমাদের দেশে তেমন কোনো ব্যবস্থা নেই। যার কারণে এবার আমের দাম ও ক্রেতা উভয়ের সঙ্কট রয়েছে বাজারগুলোতে। বিকল্প ব্যবস্থা গ্রহণে সরকার ও কৃষি মন্ত্রণালয়কে এগিয়ে আসতে হবে তবেই কৃষিতে স্বনির্ভরতা বৃদ্ধি পাবে।

মৌসুমি ফল আমের সংরক্ষণের কোনো উপায় আছে কি-না বা ভবিষ্যতে এ ধরনের কোনো পদক্ষেপ নেয়া যায় কি-না এ বিষয়ে রাজশাহী ফল গবেষণা কেন্দ্রের বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. জি এম মোরশেদুল বারি ডলার বলেন, ‘আপাতত কুল হাউস সিস্টেম বা ফ্রিজআপ করার তেমন কোনো ব্যবস্থা নেই। তবে বারোমাসি জাতের আম চাষ করলে বছরের বিভিন্ন সময়ে আমের সরবরাহ অব্যাহত রাখা সম্ভব হবে। এ ধরনের ভ্যারাইটি এরইমধ্যে ফল গবেষণা কেন্দ্রে আছে। আরও দু-একটি উচ্চ ফলনশীল আমের বারোমাসি জাত অবমুক্তির অপেক্ষায় রয়েছে। এতে কৃষকরা আম সংরক্ষণের অভাবের সাময়িক ক্ষতি কিছুটা পুষিয়ে নিতে পারবেন ও আর্থিকভাবে লাভবান হবেন।’

ফয়সাল আহমেদ/এসজে/এমকেএইচ

করোনা ভাইরাস - লাইভ আপডেট

১৯,৭৬,৪২,৯২৬
আক্রান্ত

৪২,১৯,১১১
মৃত

১৭,৮৭,১৫,৫৭৭
সুস্থ

# দেশ আক্রান্ত মৃত সুস্থ
বাংলাদেশ ১২,৪০,১১৫ ২০,৪৬৭ ১০,৬৪,১৯৫
মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ৩,৫৫,৮৮,৩১৪ ৬,২৮,৫১৩ ২,৯৬,২৬,৮৯১
ভারত ৩,১৫,৭৯,৬৫১ ৪,২৩,৪০৩ ৩,০৭,৪৩,৯৭২
ব্রাজিল ১,৯৮,৩৯,৩৬৯ ৫,৫৪,৬২৬ ১,৮৫,৬৯,৯৯১
রাশিয়া ৬২,৪২,০৬৬ ১,৫৭,৭৭১ ৫৫,৮৮,৮৪৮
ফ্রান্স ৬০,৭৯,২৩৯ ১,১১,৭৬৪ ৫৬,৯১,৯৫২
যুক্তরাজ্য ৫৮,৩০,৭৭৪ ১,২৯,৫৮৩ ৪৪,৯৮,০৮৯
তুরস্ক ৫৬,৮২,৬৩০ ৫১,১৮৪ ৫৪,৪৩,৫০১
আর্জেন্টিনা ৪৯,০৫,৯২৫ ১,০৫,১১৩ ৪৫,৪২,৯০৪
১০ কলম্বিয়া ৪৭,৬৬,৮২৯ ১,২০,১২৬ ৪৫,৫৭,৮২৯
১১ স্পেন ৪৪,২২,২৯১ ৮১,৪৪২ ৩৭,০৭,৯১৪
১২ ইতালি ৪৩,৪৩,৫১৯ ১,২৮,০৪৭ ৪১,৩২,৫১০
১৩ ইরান ৩৮,৫১,১৬২ ৯০,৩৪৪ ৩৩,৪৮,৩৬৩
১৪ জার্মানি ৩৭,৭৪,০১৩ ৯২,১৪৮ ৩৬,৫০,৯০০
১৫ ইন্দোনেশিয়া ৩৩,৭২,৩৭৪ ৯২,৩১১ ২৭,৩০,৭২০
১৬ পোল্যান্ড ২৮,৮২,৭৮৬ ৭৫,২৫৯ ২৬,৫৩,৬০৮
১৭ মেক্সিকো ২৮,১০,০৯৭ ২,৩৯,৯৯৭ ২১,৯২,৪৭৭
১৮ দক্ষিণ আফ্রিকা ২৪,২২,১৫১ ৭১,৪৩১ ২১,৯৪,৭৬২
১৯ ইউক্রেন ২২,৫১,৮৬৯ ৫২,৯৩০ ২১,৮৬,৩৫৩
২০ পেরু ২১,০৮,৫৯৫ ১,৯৬,২১৪ ১৭,২০,৬৬৫
২১ নেদারল্যান্ডস ১৮,৬২,৫৮৬ ১৭,৮২১ ১৬,৬৭,১৮৫
২২ চেক প্রজাতন্ত্র ১৬,৭৩,৪২৯ ৩০,৩৬৩ ১৬,৪০,০০৮
২৩ ইরাক ১৬,১৬,৩৮৪ ১৮,৫৯৫ ১৪,৫৫,৬৫৯
২৪ চিলি ১৬,১৪,৬২৯ ৩৫,৩৬৬ ১৫,৬৮,৯৮১
২৫ ফিলিপাইন ১৫,৮০,৮২৪ ২৭,৭২২ ১৪,৯১,১৮২
২৬ কানাডা ১৪,২৯,৫৭৯ ২৬,৫৭৫ ১৩,৯৭,০৩৭
২৭ বেলজিয়াম ১১,২২,৯৫১ ২৫,২৩৫ ১০,৫৮,০৭২
২৮ সুইডেন ১১,০০,০৪০ ১৪,৬১৮ ১০,৭৬,০২৯
২৯ মালয়েশিয়া ১০,৯৫,৪৮৬ ৮,৮৫৯ ৯,০২,৯২১
৩০ রোমানিয়া ১০,৮৩,০৩৩ ৩৪,২৭৮ ১০,৪৭,৬৮২
৩১ পাকিস্তান ১০,২৪,৮৬১ ২৩,২৯৫ ৯,৩৮,৮৪৩
৩২ পর্তুগাল ৯,৬৬,০৪১ ১৭,৩৪৪ ৮,৯৭,৮৮৬
৩৩ জাপান ৯,০২,৭১৮ ১৫,১৭৩ ৮,৩১,০৮৭
৩৪ ইসরায়েল ৮,৭১,৩৪৩ ৬,৪৬৯ ৮,৪৮,৪৭৪
৩৫ হাঙ্গেরি ৮,০৯,৪৯১ ৩০,০২৬ ৭,৪৮,১৫৭
৩৬ জর্ডান ৭,৭০,১৫০ ১০,০২০ ৭,৫০,১৪১
৩৭ সার্বিয়া ৭,২১,৬২০ ৭,১১২ ৭,১০,৪৩৯
৩৮ সুইজারল্যান্ড ৭,১৭,৬৬৫ ১০,৯০৬ ৬,৯২,১০১
৩৯ নেপাল ৬,৯৩,১০৯ ৯,৮৩৪ ৬,৫২,২৬১
৪০ সংযুক্ত আরব আমিরাত ৬,৭৯,৩২১ ১,৯৪৩ ৬,৫৬,৬৮০
৪১ অস্ট্রিয়া ৬,৫৮,৫১৮ ১০,৭৩৭ ৬,৪২,৫৯৭
৪২ মরক্কো ৬,১৫,৯৯৯ ৯,৭৩২ ৫,৫৭,৪০৮
৪৩ তিউনিশিয়া ৫,৮২,৬৩৮ ১৯,৩৩৬ ৪,৯৯,৬৬৪
৪৪ থাইল্যান্ড ৫,৭৮,৩৭৫ ৪,৬৭৯ ৩,৮১,১৭০
৪৫ কাজাখস্তান ৫,৬৪,৮৮৫ ৫,৭৮০ ৪,৬৭,৯৭২
৪৬ লেবানন ৫,৫৯,৪৭৩ ৭,৯০০ ৫,৩৬,৮০৫
৪৭ সৌদি আরব ৫,২৪,৫৮৪ ৮,২২৬ ৫,০৫,০০৩
৪৮ গ্রীস ৪,৯০,৫৫২ ১২,৯২৩ ৪,৪৪,৪০১
৪৯ ইকুয়েডর ৪,৮৫,৬৭৩ ৩১,৫৪৯ ৪,৪৩,৮৮০
৫০ বলিভিয়া ৪,৭১,৯৫৮ ১৭,৭৮৪ ৪,০৫,৮৫৩
৫১ প্যারাগুয়ে ৪,৫১,৬৯৫ ১৪,৮৭৬ ৪,১৭,৮৭৬
৫২ বেলারুশ ৪,৪৫,০৪৮ ৩,৪৪৫ ৪,৩৯,১৬২
৫৩ পানামা ৪,৩৩,৫৪৫ ৬,৭৯৮ ৪,১৪,১১৮
৫৪ বুলগেরিয়া ৪,২৪,৫২৬ ১৮,২০৮ ৩,৯৮,৪৩৬
৫৫ জর্জিয়া ৪,১৬,৩৩৮ ৫,৭৯৩ ৩,৮১,২৪৬
৫৬ কোস্টারিকা ৪,০৫,২০৬ ৫,০১৩ ৩,২৭,২৪৯
৫৭ কুয়েত ৩,৯৬,৩৩২ ২,৩০৯ ৩,৮১,৫৭৫
৫৮ স্লোভাকিয়া ৩,৯২,৫৮১ ১২,৫৩৬ ৩,৭৯,৪৯৮
৫৯ উরুগুয়ে ৩,৮১,১৮৭ ৫,৯৫৩ ৩,৭৩,০০৭
৬০ কিউবা ৩,৭৫,৭২১ ২,৬৯৩ ৩,২৯,৮১১
৬১ ক্রোয়েশিয়া ৩,৬৩,৩৯৭ ৮,২৫৪ ৩,৫৪,০৫৫
৬২ গুয়াতেমালা ৩,৬২,১৩৪ ১০,২৪৮ ৩,১৬,৯৩১
৬৩ আজারবাইজান ৩,৪৩,২১৬ ৫,০২২ ৩,৩২,৭৫২
৬৪ ডোমিনিকান আইল্যান্ড ৩,৪১,১৭৯ ৩,৯৫৬ ৩,১৭,১২৭
৬৫ ফিলিস্তিন ৩,১৬,৬০৩ ৩,৬০১ ৩,১১,৭৭২
৬৬ ডেনমার্ক ৩,১৬,০৬৮ ২,৫৪৮ ৩,০২,৩৭৭
৬৭ শ্রীলংকা ৩,০৬,৬৬২ ৪,৩৮০ ২,৭৫,২১২
৬৮ ভেনেজুয়েলা ৩,০৩,৭৯৭ ৩,৫৫৮ ২,৮৭,৭২০
৬৯ আয়ারল্যান্ড ২,৯৮,০৪৮ ৫,০৩৫ ২,৬৬,৮৯৬
৭০ ওমান ২,৯৫,৮৫৭ ৩,৮১৪ ২,৭৮,১৯৫
৭১ হন্ডুরাস ২,৯৪,৫৬১ ৭,৭৯৩ ৯৯,৮৭৯
৭২ মায়ানমার ২,৮৯,৩৩৩ ৮,৫৫২ ২,০২,২৩৫
৭৩ মিসর ২,৮৪,১৭০ ১৬,৫১৪ ২,২৯,১৬৭
৭৪ লিথুনিয়া ২,৮২,৪১৬ ৪,৪১৩ ২,৬৯,০৫৪
৭৫ ইথিওপিয়া ২,৭৯,৬২৯ ৪,৩৮১ ২,৬৩,৩৯২
৭৬ বাহরাইন ২,৬৮,৯৭৪ ১,৩৮৪ ২,৬৬,৬৩৫
৭৭ মলদোভা ২,৫৯,২০২ ৬,২৫৩ ২,৫১,৮৫০
৭৮ স্লোভেনিয়া ২,৫৯,০৭৯ ৪,৪২৮ ২,৫৩,৬৮১
৭৯ লিবিয়া ২,৪৯,১১৪ ৩,৫০৯ ১,৯০,৯৭৮
৮০ আর্মেনিয়া ২,২৯,৮৬৭ ৪,৬০৮ ২,১৯,৭০১
৮১ কাতার ২,২৬,০৭৭ ৬০১ ২,২৩,৫৯১
৮২ বসনিয়া ও হার্জেগোভিনা ২,০৫,৬৫৫ ৯,৬৮৭ ১,৮৯,৩৬৯
৮৩ কেনিয়া ২,০১,০০৯ ৩,৯১০ ১,৮৮,২২২
৮৪ দক্ষিণ কোরিয়া ১,৯৬,৮০৬ ২,০৮৯ ১,৭২,৭৫৭
৮৫ জাম্বিয়া ১,৯৫,০৯৬ ৩,৩৭৬ ১,৮৬,২১১
৮৬ নাইজেরিয়া ১,৭২,৮২১ ২,১৪১ ১,৬৪,৯৩০
৮৭ আলজেরিয়া ১,৬৮,৬৬৮ ৪,১৮৯ ১,১৩,৭০৭
৮৮ মঙ্গোলিয়া ১,৬২,৮৬৯ ৮০৯ ১,৬২,৭৮৮
৮৯ কিরগিজস্তান ১,৬১,৯৭৩ ২,৩১১ ১,৪২,৯৮৪
৯০ উত্তর ম্যাসেডোনিয়া ১,৫৬,২৯৯ ৫,৪৯৩ ১,৫০,৩৫০
৯১ আফগানিস্তান ১,৪৭,১৫৪ ৬,৭০৮ ৯৭,৫১৪
৯২ লাটভিয়া ১,৩৮,৭৯৯ ২,৫৫৬ ১,৩৫,৪৬৩
৯৩ নরওয়ে ১,৩৭,১২৭ ৭৯৯ ৮৮,৯৫২
৯৪ ভিয়েতনাম ১,৩৩,৪০৫ ১,০২২ ৩১,৭৮০
৯৫ এস্তোনিয়া ১,৩৩,৩০৮ ১,২৭২ ১,২৮,৭৮৭
৯৬ আলবেনিয়া ১,৩২,৯৯৯ ২,৪৫৭ ১,৩০,১৮৭
৯৭ উজবেকিস্তান ১,২৮,৪০৩ ৮৬৬ ১,২২,৩৬৮
৯৮ নামিবিয়া ১,১৭,৮৯৬ ২,৯৭০ ৯৪,৪১২
৯৯ মোজাম্বিক ১,১৭,৬৬০ ১,৩৮৮ ৮৭,২৫৬
১০০ বতসোয়ানা ১,০৬,৬৯০ ১,৫৬৯ ৯৫,৩২৩
১০১ ফিনল্যাণ্ড ১,০৬,০০৮ ৯৮২ ৪৬,০০০
১০২ জিম্বাবুয়ে ১,০৫,৬৫৬ ৩,৪২১ ৭৩,৩৯৪
১০৩ ঘানা ১,০৩,০১৯ ৮২৩ ৯৭,২১৩
১০৪ মন্টিনিগ্রো ১,০১,৬৪২ ১,৬২৯ ৯৮,৯১৭
১০৫ সাইপ্রাস ১,০০,৭৮৪ ৪১৬ ৮০,১৭৮
১০৬ উগান্ডা ৯৩,২৮২ ২,৬৩২ ৮১,০১৪
১০৭ চীন ৯২,৮৭৫ ৪,৬৩৬ ৮৭,৩০৭
১০৮ এল সালভাদর ৮৬,৬২০ ২,৬১৩ ৭৬,২৬৫
১০৯ ক্যামেরুন ৮২,০৬৪ ১,৩৩৪ ৮০,৪৩৩
১১০ মালদ্বীপ ৭৭,২০২ ২২১ ৭৪,৪২৯
১১১ কম্বোডিয়া ৭৬,৫৮৫ ১,৩৭৫ ৬৯,১৯৮
১১২ লুক্সেমবার্গ ৭৩,৮১৬ ৮২২ ৭১,৭৪৪
১১৩ রুয়ান্ডা ৬৮,৮৬৭ ৭৮৭ ৪৪,৮১৪
১১৪ সিঙ্গাপুর ৬৪,৮৬১ ৩৭ ৬২,৬৭৯
১১৫ সেনেগাল ৬১,২৪৫ ১,৩৩৩ ৪৬,৭৫৪
১১৬ জ্যামাইকা ৫২,৫০৪ ১,১৮২ ৪৬,৯৩৮
১১৭ মালাউই ৫১,১৪১ ১,৫৮৮ ৩৭,৪৯১
১১৮ আইভরি কোস্ট ৪৯,৯১১ ৩২৬ ৪৯,১১৭
১১৯ ড্যানিশ রিফিউজি কাউন্সিল ৪৯,৫৬২ ১,০২৩ ২৯,৪৯৭
১২০ মাদাগাস্কার ৪২,৬৫২ ৯৪৩ ৪১,১২৭
১২১ অ্যাঙ্গোলা ৪২,৪৮৬ ১,০০৩ ৩৬,০২৫
১২২ ত্রিনিদাদ ও টোবাগো ৩৮,২৪৭ ১,০৫৭ ৩১,৩৪১
১২৩ রিইউনিয়ন ৩৭,২৩১ ২৭৫ ৩৩,৮৯৪
১২৪ সুদান ৩৭,১৩৮ ২,৭৭৬ ৩০,৮৬৭
১২৫ মালটা ৩৪,২০১ ৪২৩ ৩১,৪১০
১২৬ অস্ট্রেলিয়া ৩৩,৯০৯ ৯২৩ ২৯,৯২৬
১২৭ কেপ ভার্দে ৩৩,৭২১ ২৯৮ ৩২,৯৩৫
১২৮ ফ্রেঞ্চ গায়ানা ৩০,০৪০ ১৮৫ ৯,৯৯৫
১২৯ ফিজি ২৭,৪৯৭ ২২৭ ৬,৯৫১
১৩০ সিরিয়া ২৫,৯৪২ ১,৯১২ ২১,৯৭৪
১৩১ গিনি ২৫,৫৬৪ ২১৪ ২৪,১১১
১৩২ গ্যাবন ২৫,৩৭০ ১৬৩ ২৫,১৪৩
১৩৩ সুরিনাম ২৫,২১৮ ৬৪৩ ২১,৫২৭
১৩৪ মৌরিতানিয়া ২৫,০৬৩ ৫৫৩ ২১,৯৮৫
১৩৫ ইসওয়াতিনি ২৪,৮৪৮ ৭৭২ ২০,৪৭৬
১৩৬ গায়ানা ২২,৩৭২ ৫৩৫ ২০,৯৭৪
১৩৭ মায়োত্তে ২০,১৭৬ ১৭৪ ২,৯৬৪
১৩৮ হাইতি ২০,১১৬ ৫৫২ ১৪,০৪২
১৩৯ ফ্রেঞ্চ পলিনেশিয়া ১৯,৮৭৫ ১৪৮ ১৯,২০৬
১৪০ গুয়াদেলৌপ ১৯,৫০৩ ২৪২ ২,২৫০
১৪১ মার্টিনিক ১৯,১৪৯ ১১১ ১০৪
১৪২ সিসিলি ১৮,১৮৯ ৯৪ ১৭,৫৩৮
১৪৩ পাপুয়া নিউ গিনি ১৭,৬৭৩ ১৯২ ১৭,২৭৪
১৪৪ তাইওয়ান ১৫,৬৬২ ৭৮৭ ১৪,০৭১
১৪৫ টোগো ১৫,৫২২ ১৫০ ১৪,৩৩৮
১৪৬ সোমালিয়া ১৫,৩৫৮ ৮০৯ ৭,৪৯৮
১৪৭ তাজিকিস্তান ১৪,৯২৯ ১২১ ১৪,৩৮৯
১৪৮ এনডোরা ১৪,৬৫৫ ১২৭ ১৪,১৮০
১৪৯ মালি ১৪,৫৬৬ ৫৩১ ১৩,৯৩৯
১৫০ বাহামা ১৪,৫৪৫ ২৮৬ ১২,৫৪৯
১৫১ বেলিজ ১৪,১১৪ ৩৩৭ ১৩,৩৪৯
১৫২ বুর্কিনা ফাঁসো ১৩,৫৬৬ ১৬৯ ১৩,৩৬৩
১৫৩ কিউরাসাও ১৩,৪৯৩ ১২৬ ১২,৭১৫
১৫৪ কঙ্গো ১৩,১৫৬ ১৭৭ ১১,৭৫৯
১৫৫ লেসোথো ১২,৯০৮ ৩৭৪ ৬,৬৪৯
১৫৬ হংকং ১১,৯৮৫ ২১২ ১১,৭১২
১৫৭ জিবুতি ১১,৬৪৯ ১৫৫ ১১,৪৮৩
১৫৮ আরুবা ১১,৫৮৪ ১১০ ১১,১২৫
১৫৯ দক্ষিণ সুদান ১১,০১৪ ১১৮ ১০,৫১৪
১৬০ পূর্ব তিমুর ১০,৬৯৫ ২৬ ৯,৮০২
১৬১ নিকারাগুয়া ৯,৪৭০ ১৯৫ ৪,২২৫
১৬২ চ্যানেল আইল্যান্ড ৯,১২৭ ৮৬ ৬,২৭৭
১৬৩ ইকোয়েটরিয়াল গিনি ৮,৮৮০ ১২৩ ৮,৬৩৭
১৬৪ বেনিন ৮,৩৯৪ ১০৮ ৮,১৩৬
১৬৫ আইসল্যান্ড ৭,৮০১ ৩০ ৬,৬৯৯
১৬৬ গাম্বিয়া ৭,৭০৯ ২১২ ৬,৬০০
১৬৭ সেন্ট্রাল আফ্রিকান রিপাবলিক ৭,১৫১ ৯৮ ৬,৮৫৯
১৬৮ ইয়েমেন ৭,০৪২ ১,৩৭৪ ৪,১৭১
১৬৯ বুরুন্ডি ৬,৮৬৫ ৭৭৩
১৭০ ইরিত্রিয়া ৬,৫৪৪ ৩৪ ৬,৪১৬
১৭১ সিয়েরা লিওন ৬,২৬৮ ১২০ ৪,২৫৮
১৭২ লাওস ৫,৯১৯ ২,৭৭৪
১৭৩ নাইজার ৫,৬০৭ ১৯৫ ৫,৩৩০
১৭৪ সেন্ট লুসিয়া ৫,৫৬৭ ৮৮ ৫,৩৫৪
১৭৫ লাইবেরিয়া ৫,৩৯৬ ১৪৮ ২,৭১৫
১৭৬ সান ম্যারিনো ৫,১৩০ ৯০ ৫,০০৫
১৭৭ চাদ ৪,৯৭২ ১৭৪ ৪,৭৮৯
১৭৮ জিব্রাল্টার ৪,৯৪৭ ৯৪ ৪,৪৭১
১৭৯ আইল অফ ম্যান ৪,৫২৫ ২৯ ২,৭৩২
১৮০ গিনি বিসাউ ৪,৩৮৭ ৭৪ ৩,৮৭২
১৮১ বার্বাডোস ৪,৩৬৫ ৪৮ ৪,১৮১
১৮২ কমোরস ৪,০২৬ ১৪৭ ৩,৮৬৪
১৮৩ মরিশাস ৩,৯১৩ ১৯ ১,৮৫৪
১৮৪ লিচেনস্টেইন ৩,০৮৫ ৫৯ ৩,০০৯
১৮৫ নিউজিল্যান্ড ২,৮৭০ ২৬ ২,৭৯৯
১৮৬ মোনাকো ২,৮৫৩ ৩৩ ২,৬৮৫
১৮৭ সিন্ট মার্টেন ২,৭৬০ ৩৪ ২,৬৪৮
১৮৮ বারমুডা ২,৫৫৩ ৩৩ ২,৪৯৫
১৮৯ ভুটান ২,৫০৮ ২,৩৭১
১৯০ ব্রিটিশ ভার্জিন দ্বীপপুঞ্জ ২,৫০০ ৩১ ১,৯১৪
১৯১ সেন্ট মার্টিন ২,৪৮১ ৩৮ ১,৩৯৯
১৯২ টার্কস্ ও কেইকোস আইল্যান্ড ২,৪৮১ ১৮ ২,৪৩১
১৯৩ সেন্ট ভিনসেন্ট ও গ্রেনাডাইন আইল্যান্ড ২,২৮৮ ১২ ২,২১০
১৯৪ ক্যারিবিয়ান নেদারল্যান্ডস ১,৭০৫ ১৭ ৬,৪৪৫
১৯৫ অ্যান্টিগুয়া ও বার্বুডা ১,২৯৫ ৪৩ ১,২৩৫
১৯৬ তানজানিয়া ১,০১৭ ২১ ১৮৩
১৯৭ সেন্ট বারথেলিমি ১,০০৫ ৪৬২
১৯৮ ফারে আইল্যান্ড ৯৮২ ৯২৭
১৯৯ ডায়মন্ড প্রিন্সেস (প্রমোদ তরী) ৭১২ ১৩ ৬৯৯
২০০ কেম্যান আইল্যান্ড ৬৪০ ৬২৮
২০১ সেন্ট কিটস ও নেভিস ৫৮২ ৫৩৭
২০২ ওয়ালিস ও ফুটুনা ৪৪৫ ৪৩৮
২০৩ ব্রুনাই ৩৩৩ ২৭০
২০৪ ডোমিনিকা ২১০ ২০০
২০৫ গ্রেনাডা ১৬৪ ১৬১
২০৬ নিউ ক্যালেডোনিয়া ১৩৩ ৫৮
২০৭ গ্রীনল্যাণ্ড ১১৭ ৭৮
২০৮ এ্যাঙ্গুইলা ১১৩ ১১১
২০৯ ফকল্যান্ড আইল্যান্ড ৬৩ ৬৩
২১০ ম্যাকাও ৫৯ ৫৩
২১১ সেন্ট পিয়ের এন্ড মিকেলন ২৮ ২৬
২১২ ভ্যাটিকান সিটি ২৭ ২৭
২১৩ মন্টসেরাট ২১ ১৯
২১৪ সলোমান আইল্যান্ড ২০ ২০
২১৫ পশ্চিম সাহারা ১০
২১৬ জান্ডাম (জাহাজ)
২১৭ মার্শাল আইল্যান্ড
২১৮ ভানুয়াতু
২১৯ সামোয়া
২২০ সেন্ট হেলেনা
তথ্যসূত্র: চীনের জাতীয় স্বাস্থ্য কমিশন (সিএনএইচসি) ও অন্যান্য।
করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]