আরিয়ানের পলাতক সাক্ষীর নতুন ভিডিও প্রকাশ, প্রশ্নের মুখে এনসিবি

বিনোদন ডেস্ক
বিনোদন ডেস্ক বিনোদন ডেস্ক
প্রকাশিত: ০২:২৫ পিএম, ২৫ অক্টোবর ২০২১

নারকোটিক্স কন্ট্রোল ব্যুরো (এনসিবি)-র অফিসে বসে আছেন শাহরুখ পুত্র আরিয়ান খান। তার পাশে বসা এই মামলায় আরিয়ানের বিরুদ্ধে সাক্ষ দেয়া পলাতক সাক্ষী কিরণ পি গোসাভি। তার ফোনে আরিয়ানের সঙ্গে কোনো একজনকে কথাও বলালেন।

কিরণ পি গোসাভির এমন একটি ভিডিও প্রকাশ্যে এসেছে। তারপর থেকেই সরব ভারতীয়দের সোশ্যাল মিডিয়া। টুইটারে উঠেছে এনসিবিকে নিয়ে সমালোচনার। সবাই দাবি করছেন, আরিয়ানকে ফাঁসানো হয়েছে। অনেক পয়সা খরচ করে, অনেক নাটক সাজানো হয়েছে বলিউড বাদশাহ শাহরুখ খানকে টার্গেট করে।

ভিডিওটি দেখে প্রতিবাদ জানালেন শিব সেনার সাংসদ সঞ্জয় রাউত। মহারাষ্ট্রের শাসক দলের এই সদস্য ভিডিওটি টুইট করে লিখেছেন, ‘আরিয়ানকাণ্ডে এনসিবি প্রভাকর সেইলকে ফাঁকা পঞ্চনামায় সই করিয়েছে শুনে চমকে উঠেছি। আরও দাবি উঠেছে যে, সাক্ষ্যের বিনিময়ে বহুল পরিমাণ টাকার প্রস্তাব দেওয়া হয়েছে। মুখ্যমন্ত্রী উদ্ধ্বব ঠাকরে বলেছিলেন, মহারাষ্ট্রের ভাবমূর্তি নষ্ট করার উদ্দেশ্যে এ সমস্ত কিছু ঘটানো হচ্ছে। এখন তো মনে হচ্ছে, সেই মন্তব্যই সত্যি হতে চলেছে। সুয়ো মোটো মামলা দায়ের করা উচিত পুলিশের।’

এর আগে আরিয়ানের গ্রেফতার হওয়ার ঘণ্টাখানেকের মধ্যেই একটি ছবি ছড়িয়ে পড়েছিল চার দিকে। তাঁর সঙ্গে সেলফি তুলতে দেখা গিয়েছিল এক ব্যক্তিকে। তিনিই কিরণ পি গোসাভি। প্রথমে মনে করা হয়েছিল কিরণ এনসিবির কোনো এক অফিসার। অনেকেই সে সময়ে প্রশ্ন তোলেন কিরণের ওই সেলফি নিয়ে।

পরে এনসিবিকে বিবৃতি দিয়ে জানাতে হয়, কিরণ তাদের কেউ নন। শুধু তা-ই নয়, কিরণকে এই মামলার অন্যতম সাক্ষী হিসেবে তুলে ধরে তাঁর খোঁজ চালায় এনসিবি। কিরণ নিজে ওই ঘটনার পর থেকেই পলাতক।

প্রভাকরের দাবি, কিরণ ‘রহস্যজনক ভাবে নিখোঁজ’ হয়ে যাওয়ার পর থেকেই তিনিও আতঙ্কিত। সমীর ওয়াংখেড়ের থেকে বিপদের আশঙ্কা করছেন। এমনকি তার নিজের জীবনেরও ঝুঁকি রয়েছে বলেও দাবি প্রভাকরের।

কিরণ পি গোসাভির দেহরক্ষী হিসেবে নিজের পরিচয় দিয়ে প্রভাকরের দাবি, শাহরুখ-পুত্রের বিরুদ্ধে মুখ খুলতে ১৮ কোটি টাকার চু্ক্তি হয়েছে বলে শুনেছেন তিনি।

এদিকে এসব প্রশ্নের জবাবে পাল্টা প্রশ্ন এনসিবির- তাই যদি হয়, তাহলে এতদিন আরিয়ান জেলে বন্দি থাকেন কী করে? তা ছাড়া, তাদের দফতরে একাধিক নজরদার ক্যামেরা রয়েছে বলে জানিয়েছেন অফিসাররা। তাই এই অভিযোগ ‘সম্পূর্ণ মিথ্যা’ বলে উড়িয়ে দিয়েছে এনসিবি।

প্রকাশ হওয়া সেই ভিডিও :

এলএ/জিকেএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]