রাখাইনে ফিরলেও জমি-জায়গা হারাতে পারে রোহিঙ্গারা

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
আন্তর্জাতিক ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৯:৫০ পিএম, ২৩ অক্টোবর ২০১৭
রাখাইনে ফিরলেও জমি-জায়গা হারাতে পারে রোহিঙ্গারা

রাখাইন রাজ্য ছেড়ে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গারা দেশে ফিরতে পারলেও জমি-জায়গা হারাতে পারেন। যাচাই-বাছাইয়ের পর নিজেদের মিয়ানমারের নাগরিক প্রমাণের পর সেইসব রোহিঙ্গাদের ফেরত নেবে দেশটির সরকার। তবে তাদেরকে নিজ গ্রামে ফিরে যেতে না দেয়ার পরিকল্পনার তথ্য জানিয়েছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স।

মিয়ানমারের কয়েকজন সরকারি কর্মকর্তার সঙ্গে কথা বলেছেন রয়টার্সের সাংবাদিক। এ ব্যাপারে সরকারি পরিকল্পনার কিছু দলিলও তারা পেয়েছেন।

রাখাইনের কৃষিমন্ত্রী চিউ লুইন বলছেন, যাদের নাগরিকত্ব নেই, তাদের জমির মালিকানাও নেই। সুতরাং তারা তাদের গ্রামে ফিরতে পারবেন কি না সেটা তাদের উপরই নির্ভর করছে বলে মনে করেন তিনি।

শান্তিতে নোবেল জয়ী নেত্রী অং সান সু চি সাফ জানিয়ে দিয়েছেন, বাংলাদেশের শরণার্থী শিবিরে আশ্রয় নেয়া কেউ নিজেকে মিয়ানমারের নাগরিক প্রমাণ করতে পারলে তাকে ফিরে নেয়া হবে।

তবে বাংলাদেশের শরণার্থী শিবিরে আশ্রয় নেয়া রোহিঙ্গাদের মিয়ানমারে ফিরিয়ে নিয়ে আসা ঠেকাতে গত রোববার রাখাইন রাজ্যে বিক্ষোভ করেছে বৌদ্ধ ভিক্ষুরা। এছাড়া তাদের সঙ্গে বিক্ষোভে অংশ নিয়েছে চরমপন্থি জাতীয়তাবাদীরা।

বিক্ষোভকারীদের অন্যতম নেতা অং হতে'র বরাত দিয়ে মিয়ানমারের সংবাদমাধ্যম ডেমোক্রেটিক ভয়েস অব বার্মা জানিয়েছে, রাখাইন রাজ্য ছেড়ে বাংলাদেশে পালিয়ে যাওয়া বাঙালিদের অনেকেই সন্ত্রাসী। আশঙ্কা করা হচ্ছে, তাদের ফিরিয়ে নিয়ে আসা হলে সহিংসতার পুনরাবৃত্তি ঘবে।

পুড়ে যাওয়া ঘরবাড়ি ফেলে জীবন বাঁচাতে বাংলাদেশে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গাদের কাছে তেমন কোনো প্রমাণাদি নেই বললেই চলে। তাছাড়া মিয়ানমার সরকার রোহিঙ্গাদের নাগরিকত্বও দেয়নি।

সে ক্ষেত্রে বৈধ প্রমাণাদি হাজিরের শর্ত পূরণ করা রোহিঙ্গাদের জন্য অসম্ভব ব্যাপার। রাখাইন রাজ্যে রোহিঙ্গাদের ফিরে যাওয়ার প্রক্রিয়াটাও তাই জটিল এবং ধোঁয়াশায় ভরা।

সূত্র : রয়টার্স

কেএ/আইআই