দুধ খেলে সমস্যা? পরিবর্তে যা খাবেন

লাইফস্টাইল ডেস্ক
লাইফস্টাইল ডেস্ক লাইফস্টাইল ডেস্ক
প্রকাশিত: ১১:৫৬ এএম, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৯

দুধের পুষ্টিগুণ নিয়ে আলাদা করে বলার কিছু নেই। সুস্থতার জন্য প্রতিদিন অন্তত একগ্লাস দুধ খাওয়ার পরামর্শ দেন চিকিৎসকেরা। কিন্তু নানা কারণে দুধ খাওয়া নিষেধ এমন মানুষের সংখ্যাও কম নয়। কেন এমন পুষ্টিকর একটি খাবার খেতে নিষেধ করা হয়? এর কারণ হলো বদহজম। জেনে নিন দুধ খেলে বদ হজমের কারণ ও দুধের বিকল্প হিসেবে কী খেতে পারবেন।

ল্যাকটোজ ইনটলারেন্স: আমাদের পাকস্থলীর ক্ষুদ্রান্ত্র থেকে নির্গত ল্যাকটেজ নামক একপ্রকার এনজাইম দুধের শর্করা হজমে সাহায্য করে থাকে। যাদের শরীরে এই ল্যাকটেজ এনজাইমের ঘাটতি রয়েছে তারা সাধারণত দুধ খেয়ে হজম করতে পারেন না। দুধে আছে ল্যাকটোজ, আর তা হজমে সমস্যা হলে তাকে বলা হয় ল্যাকটোজ ইনটলারেন্স। কারও কারও বংশগতভাবে এ সমস্যা থাকতে পারে।

Milk

সমস্যা বুঝবেন যেভাবে: ল্যাকটোজসমৃদ্ধ খাবার মানে দুধ বা দুগ্ধজাত খাবার গ্রহণের ৩০ মিনিট থেকে দুই ঘণ্টার মধ্যে লক্ষণগুলো প্রকাশ পেতে থাকে। যেমন বমি ভাব, পেটের ভেতর অস্বস্তি, কামড়ানো, পেট ফাঁপা বা গ্যাস, ডায়রিয়া ইত্যাদি। এই লক্ষণগুলো ভিন্ন ভিন্ন মাত্রায় প্রকাশ পেতে পারে।

Milk

দুধের পরিবর্তে কী খাবেন: দুধ অত্যন্ত পুষ্টিকর একটি সুষম খাদ্য। দুধে আমিষ, চর্বি, শর্করা এবং প্রায় সব ধরনের ভিটামিন ও খনিজ উপাদান থাকে। তাই সুস্থ সবল জীবন যাপনের জন্য প্রতিদিন দুধ খাওয়া অপরিহার্য। বিশেষ করে বয়স বাড়ার সাথে সাথে আমাদের শরীরের হাড়ের ক্ষয়রোধে দুধে থাকা ক্যালসিয়ামের ভুমিকা অপরিসীম। এখন কথা হলো, দুধের পরিবর্তে এমন কী খাবেন যা দুধের পুষ্টিগুণ সরবরাহ করবে এবং সেই সাথে দুধের সাধও পাবেন। এর সবচেয়ে সঠিক এবং উপযুক্ত উত্তর হল দই।

Milk

দই কেন খাবেন: দই হলো ফারমেন্টেড খাদ্য অর্থাৎ উপকারী ব্যাকটেরিয়া দ্বারা গাজন পক্রিয়ার মাধ্যমে দই তৈরি করা হয়। গাজন পক্রিয়ার সময় দুধে থাকা শর্করা ল্যাকটোজ ভেঙে ল্যাকটিক এসিডে পরিণত হয়। ফলে যাদের ল্যাকটোজ ইনটলারেন্স আছে অর্থাৎ দুধ খেলে হজম হয় না তাদের দই হজমে কোনো সমস্যা হয় না। তাই দুধের বিকল্প হিসেবে দই খেতে পারেন অনায়াসে, এতে করে দুধের চেয়েও কয়েকগুণ বেশি পুষ্টি পাবেন।

দই ছাড়াও দুধের পরিবর্তে চিজ বা পনির, সয়া দুধ, নারিকেলের দুধ এবং আমন্ড বাদামের দুধ খেতে পারেন। এগুলো দুধের মতো পেটে সমস্যা করে না।

এইচএন/জেআইএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]