ফেসবুক কার্যক্রমে এগিয়ে মার্কিন দূতাবাস


প্রকাশিত: ১১:০০ এএম, ১৬ এপ্রিল ২০১৬

২০০৯ সাল থেকেই ডিজিটাল বাংলাদেশের স্বপ্ন দেখেছে মানুষ। এরই মধ্যে দেশের প্রতিটি সেক্টরে লেগেছে আধুনিকতার ছোঁয়া। ধাপে ধাপে ডিজিটাল হচ্ছে প্রশাসনিক কার্যালয়সমূহ। অধিকাংশ কাজ অনলাইনেই সম্পন্ন করা হচ্ছে। গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্তসমুহ তুলে ধরা হচ্ছে ফেসবুকসহ সামাজিক যোগাযোগের নানা মাধ্যমে। এরই ধারাবাহিকতায় ফেসবুকে তৎপর হয়েছে ঢাকাস্থ বিভিন্ন দেশের দূতাবাস। এদের মধ্যে সবচেয়ে এগিয়ে মার্কিন দূতাবাস।

দূতাবামের ইউএস অ্যাম্বাসি, ঢাকা (www.facebook.com/bangladesh.usembassy) নামে ফেসবুক পেজটিতে প্রতিদিনই থাকে যুক্তরাষ্ট্র ও বাংলাদেশের নানা ইস্যু নিয়ে পোস্ট, থাকে যুক্তরাষ্ট্র ও ওবামার বার্তা। তুলে ধরা হয় বাংলাদেশ সম্পর্কে সেদেশের আলোচনা-সমালোচনাগুলো।

Facebook

শিক্ষার্থীদের জন্য পেজটিতে প্রায়ই তুলে ধরা হয় যুক্তরাষ্ট্রে গিয়ে পড়াশুনার তথ্যাদি। যুক্তরাষ্ট্রে বসবাসরত শিক্ষার্থীদের মতামতও তুলে ধরা হয় সেখানে।

যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক প্রতিষ্ঠানগুলোর নানা কার্যক্রমও তুলে ধরা হয় পেজটিতে। সম্প্রতি ইউএস এইড বাংলাদেশের ফলে নারী ও চাষিদের সাফল্যের বিষয়টি উঠে এসেছে দূতাবাসের ফেসবুকে। শুক্রবারে প্রায়ই দেখা যায় বাংলাদেশের মসজিদের ছবি ও তার ইতিহাস।

পেজটির প্রায় ২৯ লাখ লাইকারকে যুক্তরাষ্ট্রের পর্যটন ও দর্শনীয় স্থানগুলোর সঙ্গে পরিচয় করিয়ে দেয় মার্কিন দূতাবাসের এই পেইজটি। পোস্টে থাকে ভিসা সংক্রান্ত গুরুত্বপূর্ণ তথ্যাবলি।

Facebook

ফেসবুক পেজটিতে ভিজিটর পোস্ট দেয়ার সুযোগ রাখা হয়েছে। ভিজিটরদের দেয়া নানা প্রশ্নের উত্তর, তথ্য-উপাত্ত সরবরাহ করা হয়। পেজটিতে সাধারণ মানুষ নানা ধরনের তথ্য জানতে চান। সেগুলোরও উত্তর দেয়া হয়।

মার্কিন দূতাবাসের এই পদক্ষেপকে সাধুবাদ জানিয়েছে সাধারণ মানুষ। সাখাওয়াত হোসেন নামে এক ব্যবসায়ী জাগো নিউজকে বলেন, ইউএস অ্যাম্বাসির এই উদ্যোগ সত্যিই প্রশংসনীয়। অন্যান্য দূতাবাসগুলোর উচিৎ এভাবে পোস্ট দিয়ে তাদের কার্যক্রমগুলো সবার সামনে তুলে ধরা।

ফেসবুক সবার হাতের নাগালে তাই এর মাধ্যমে তাদের কাজগুলো আমরা জানতে পারি। সালাউদ্দিন আহমেদ নামে নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের এক শিক্ষার্থী বলেন, ফেসবুক সবার হাতের নাগালে তাই এর মাধ্যমে তাদের কাজগুলো আমরা জানতে পারি। ট্রাভেল এজেন্টগুলো মানুষের সরলতার সুযোগ নিয়ে যুক্তরাষ্ট্র ভ্রমণের বিষয়ে হরেকরকম ধারণা দেয়। তবে যুক্তরাষ্ট্রে যেতে সত্যিই কীভাবে ভিসার জন্য আবেদন করতে হয় সেগুলোর বিস্তারিত ধাপগুলো পোস্ট দিলে আমরা অনেক উপকৃত হবো।

এআর/এসএইচএস/পিআর

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]