ইন্সটাগ্রামে ব্যাঙ্গাত্মক মন্তব্য, শাস্তির মুখে অসি ক্রিকেটাররা

স্পোর্টস ডেস্ক
স্পোর্টস ডেস্ক স্পোর্টস ডেস্ক
প্রকাশিত: ০২:০৭ পিএম, ৩১ জানুয়ারি ২০২০

 

এবারের অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপ খুব একটা ফলপ্রসূ হয়নি অস্ট্রেলিয়ার যুব ক্রিকেট দলের জন্য। দুই জয় ও এক পরাজয়ে গ্রুপপর্ব পেরিয়ে গেলেও, শেষ আটে তারা আটকে পড়ে গেছে ভারতীয় বাধায়। কোয়ার্টার ফাইনালে হেরেছে ৭৪ রানের বড় ব্যবধানে।

বিশ্বকাপের শেষ আটে থেমে গিয়েই শেষ হচ্ছে না অস্ট্রেলিয়ার যুব দলের শনির দশা। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ইন্সটাগ্রামে নিজেদের মধ্যে মজা করতে গিয়ে ঝামেলার মুখে পড়তে চলেছেন অসি যুব দলের কয়েকজন ক্রিকেটার। তবে দেশে ফেরার আগে তাদের বিরুদ্ধে কোনো সিদ্ধান্ত নেবে না ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া।

কোয়ার্টার ফাইনাল ম্যাচের আগে ইংল্যান্ডকে হারানোর পর দলের ওপেনার জ্যাক ফ্রেজার ম্যাকগার্ক নিজের একটি ছবি পোস্ট করেছিলেন ইন্সটাগ্রামে। ক্যাপশনে তিনি লিখেছিলেন, ‘কোয়ার্টার ফাইনাল আমরা আসছি।’ এই ছবির মন্তব্যের ঘরে ব্যঙ্গাত্মক ও অপমানজনক মন্তব্য করেন তার সতীর্থরা।

SS.jpg

যা বুঝতে পারেন ফ্রেজার নিজেও। যার ফলে সেই ছবির সকল মন্তব্য মুছে দিয়ে, মন্তব্য করার অপশনই বন্ধ করে দেন ফ্রেজার। তবে তার আগেই এসব চলে গেছে ক্রিকেট বোর্ডের কর্তাদের নজরে। ওলিভার ডেভিস, লিয়াম স্কট, লাচলান হার্নি, তানভীর সাংঘা এবং স্যাম ফ্যানিংদের করা মন্তব্যগুলোকে ভিনদেশি ইংরেজি বক্তাদের জন্য অপমানজনক হিসেবে ধরেছে ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া।

তাই অভিযুক্ত খেলোয়াড়দের ব্যাপারে যথাযথ ব্যবস্থা নেয়ার কথা বলেছেন বোর্ডের শৃঙ্খলা কমিটির প্রধান শন কটরেল। তিনি বলেন, ‘খেলোয়াড়দের কিছু মন্তব্যকে অনুবাদ করলে ভিনদেশি ইংরেজি বক্তাদের জন্য অপমানজনকই পাওয়া যাবে। যুব দলের সদস্যদের এমন কাণ্ডে আমরা সত্যিই হতাশ। সোশাল মিডিয়ায় তাদের এমন মন্তব্য গ্রহণযোগ্য নয়। তবে তারা এরই মধ্যে ক্ষমা চেয়েছে এই ঘটনার জন্য।’

শন কটরেল আরও জানান, বিশ্বকাপ শেষ করে দেশে ফেরার পরই তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে। তিনি বলেন, ‘ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া তাদের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞার সিদ্ধান্ত নেবে, দেশে ফেরার পরে। তাদের শাস্তির মধ্যে শিক্ষা এবং সংস্কৃতির ব্যাপারে প্রশিক্ষণও থাকবে। যেহেতু অনেক খেলোয়াড়েরই পরিবার এখানেই নেই, তাই তাদের তাদের শাস্তিটা দেশে ফিরেই দেয়া হবে।’

এসএএস/এমএস